করোনার ঝুঁকি কমাতে জীবাণুমুক্ত রাখবেন ঘরের যেসব জিনিস

প্রতীকী ছবি
লকডাউন পরিস্থিতিতে ঘরে থাকাই ছিল আমাদের একমাত্র করণীয়। তবে এখন জীবিকার স্বার্থে বাইরে যেতে হচ্ছে মানুষকে। তাই শুধু বাইরে নয়, ঘরের ভেতরেও অবলম্বন করতে হবে বাড়তি সতর্কতা। এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই পরিস্থিতিতে অতিরিক্ত সতর্ক থাকা প্রয়োজন। তা না হলে যেকোনো মুহূর্তে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন।

গত ছয় মাসে বিশ্বব্যাপী মহামারীর আকার ধারণ করেছে করোনা ভাইরাস। ১৮৮টি দেশে সংক্রমিত হওয়া এই ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে বিশ্বজুড়েই চলছে লকডাউন পরিস্থিতি। কয়েক মাসের লকডাউনে মুখ থুবড়ে পড়েছে সবগুলো দেশের তথা বৈশ্বিক অর্থনৈতিক ব্যবস্থা। অর্থনীতিকে বাঁচাতে তাই সম্প্রতি বিভিন্ন দেশে শিথিল করা হয়েছে লকডাউন। বাংলাদেশের পরিস্থিতিও এর ব্যতিক্রম নয়। দেশে করোনার সংক্রমণ এখনও চললেও সম্প্রতি শিথিল করা হয়েছে লকডাউন। এমন অবস্থায় ভাইরাসের সংক্রমণ থেক বাঁচতে আমাদের হতে হবে আরো সতর্ক।

 

লকডাউন পরিস্থিতিতে ঘরে থাকাই ছিল আমাদের একমাত্র করণীয়। তবে এখন জীবিকার স্বার্থে বাইরে যেতে হচ্ছে মানুষকে। তাই শুধু বাইরে নয়, ঘরের ভেতরেও অবলম্বন করতে হবে বাড়তি সতর্কতা। এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই পরিস্থিতিতে অতিরিক্ত সতর্ক থাকা প্রয়োজন। তা না হলে যেকোনো মুহূর্তে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারেন।

 

করোনার সংক্রমণ থেকে বাঁচার সবচেয়ে কার্যকারী পদক্ষেপ হলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা। বার বার ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধোয়ার পাশাপাশি তাই এখন থেকে পরিষ্কার রাখতে হবে ঘরের ভেতরের কয়েকটি জিনিস। আজ আলোচনা করবো করোনার ঝুঁকি কমাতে ঘরের যেসব জিনিস জীবাণুমুক্ত রাখা খুবই জরুরি।

 

স্মার্টফোন

 

দৈনন্দিন জীবনে আমাদের সবচেয়ে বেশি যে জিনিসটি হাতে ধরতে হয় সেটি হলো স্মার্টফোন। এটি ছাড়া এখন আমাদের জীবন চিন্তাই করা সম্ভব না। সকালে ঘুম থেকে উঠা থেকে শুরু করে রাতে ঘুমানোর আগ পর্যন্ত আমাদের সঙ্গী এটি। এ কারণেই প্রথমেই আমাদের উচিৎ নিজেদের স্মার্টফোনটি পরিষ্কার রাখা। বাইরে থেকে ফিরেই তাই ভালো করে
স্যানিটাইজার বা হেক্সিসল দিয়ে স্মার্টফোনটি পরিষ্কার করে নিন। আর ফোন পরিষ্কারের পর অন্তত ২০ সেকেন্ড ধরে সাবান দিয়ে হাত ধোয়াও আবশ্যক।

 

টেলিভিশন বা এসির রিমোট

 

ঘরের যেই জিনিসটি পরিবারের প্রত্যেক সদস্য হাতে ধরে থাকেন সেটি হলো টেলিভিশন বা এসির রিমোট। তাই বর্তমান পরিস্থিতিতে যতটা সম্ভব রিমোট পরিষ্কার করে নিন। পারলে ব্যবহারের আগে এবং পরে ওয়েট টিস্যু দিয়ে মুছে নিন।

 

কলিং বেলের সুইচ

 

বাইরে থেকে কাজ শেষে ঘরে ঢোকার আগে দরজার বাইরের কলিং বেলের সুইচটিকে সবাই অন্তত একবার করে চাপছি। ফলে এর মাধ্যমে করোনা সংক্রমণের সম্ভাবনা শতভাগ। তাই বেল বাজানোর পরে ভালো করে তা জীবাণুমুক্ত করুন এবং বাসায় ঢুকে প্রথমেই হাত ভালো করে সাবান দিয়ে ধুয়ে নিন।

 

মেকআপের ব্রাশ

 

প্রায় দুই মাসের বেশি সময় ধরে চলা লকডাউন পরিস্থিতি শিথিল হবার পর কর্মক্ষেত্রে যেতে হচ্ছে আমাদের অনেককেই। তাই বাড়ির বাইরে বের হওয়ার আগে অনেকেই কিছুটা মেকআপ ব্যবহার করতে চাইবেন। তবে আপনি হয়তো জানেন না, প্রতিদিনের ব্যবহারের মেকআপ ব্রাশটি আপনার করোনা ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে অনেক গুণে। তাই মেকআপ ব্রাশটিকে যথা সম্ভব পরিষ্কার রাখুন। সপ্তাহে অন্তত একবার তা পরিষ্কার করুন।

 

রান্নাঘর

 

এই সময় রান্নাঘর জীবাণুমুক্ত খুবই জরুরি। বিশেষ করে বেসিন পরিচ্ছন্ন থাকছে কিনা, তা খেয়াল রাখুন। এছাড়া থালাবাসন মাজার স্পঞ্জও পরিষ্কার রাখা প্রয়োজন।