হাঁচি-কাশি হলেই করোনা নয়, কী করবেন!

প্রতীকী ছবি
জ্বর, শ্বাসকষ্ট এবং হাঁচি-কাশি থাকলে মাস্ক ব্যবহার করুন এবং পরিবার ও অন্যান্যদের থেকে আলাদা হয়ে যান। সামাজিক দূরতে মেনে চলুন এবং দ্রুত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে আলোচিত ও সংক্রমিত মহামারী করোনা ভাইরাস। নিয়মিত বাড়তে থাকা সংক্রমণ আর মৃত্যুর সংখ্যা প্রতিদিনই নতুন করে আতঙ্কিত করে তুলছে বিশ্ববাসীকে। আর এর থেকে ভয়ঙ্কর বিষয় হচ্ছে, এই ভাইরাসে সংক্রমিত হলে রোগীর শরীরে যে উপসর্গগুলো দেখা দেয় সেগুলোর মধ্যে অধিকাংশ ক্ষেত্রজুড়েই রয়েছে জ্বরসহ হাঁচি-কাশি।

 

বছরের এই সময়টাতে ঋতু পরিবর্তনে একটি প্রতিক্রিয়া পড়তে পারে আমাদের শরীরে। অনেক সময় এই কারণে শরীরে হালকা জ্বর ও হাঁচি-কাশি দেখা দিতেই পারে। এছাড়াও অ্যালার্জিসহ বিভিন্ন কারণে এ ধরনের সমস্যা হতে পারে। তাই বলে এ সময় হালকা জ্বর কিংবা হাঁচি-কাশি হলেই যে আপনার করোনা হয়েছে, এমনটা মনে করবেন না। প্রচণ্ড গরম, ঘাম ও মাঝে মাঝে বৃষ্টি হওয়ায় অ্যালার্জির সমস্যা হতে পারে, যা থেকে হতে পারে হাঁচি-কাশি।

 

হাঁচি-কাশি হলে করণীয়

 

১. হাঁচি-কাশির সমস্যা থাকলে ধুলাবালি, ঘরের ঝুল, ধোঁয়া ইত্যাদি থেকে দূরে থাকুন। বাসা পরিষ্কার ও জীবাণুমুক্ত রাখার চেষ্টা করুন।

২. ঘরে কার্পেট ও কম্বল রাখা থেকে বিরত থাকুন।

৩. বিছানার বালিশ, তোশক বা ম্যাট্রেসে তুলা ব্যবহার না করে স্পঞ্জ ব্যবহার করুন।

৪. করোনা এবং ধুলা উভয় থেকে বাঁচতে বাইরে যাওয়ার সময় মাস্ক ব্যবহার করুন। পকেটে সর্বদা টিস্যু রাখুন এবং হাঁচি-কাশি দেয়ার সময় তা ব্যবহার করুন।

৫. ধূমপায়ীদের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি। তাই ধূমপান বর্জন করুন।

৬. অ্যালার্জি হতে পারে এমন খাবার এড়িয়ে চলুন ।

৮. ঠাণ্ডা খাবার ও ঠাণ্ডা পানি পরিহার করুন।

৯. কাশি হলে হালকা গরম পানিতে মধু মিশিয়ে পান করুন। পাশাপাশি আদা চাও খেতে পারেন।

১০. ঘরের দরজা-জানালা খোলা রাখুন যেন যথেষ্ট আলো-বাতাস ঢুকতে পারে।

 

এছাড়া জ্বর, শ্বাসকষ্ট এবং হাঁচি-কাশি থাকলে মাস্ক ব্যবহার করুন এবং পরিবার ও অন্যান্যদের থেকে আলাদা হয়ে যান। সামাজিক দূরতে মেনে চলুন এবং দ্রুত বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।