অবসরের বন্ধু বই, পড়তে পারেন যা যা

অবসরের বন্ধু বই, পড়তে পারেন যা যা
অবসরের বন্ধু বই, পড়তে পারেন যা যা
বর্তমানে করোনার ভয়াল থাবায় বিপর্যস্ত গোটা বিশ্ব। বছর পেরিয়ে গেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। চলছে অনলাইন ক্লাস। ঘর বন্দী সময় পাড় করতে হচ্ছে সবাইকে। কারণ ঘরের বাইরে না যাওয়ার রয়েছে নানা নিষেধাজ্ঞা। শিক্ষার্থী থেকে বয়স্ক সকল বয়সের লোকই এখন গৃহবন্দী জীবন কাটাচ্ছেন। এমন অবসর সময়ে আপনার সুন্দর সঙ্গী হতে পারে বই।

সব নেশা ক্ষতিকর, বই পড়া হিতকর। বই জ্ঞানের উৎস৷ জীবনকে সুন্দরভাবে বিকশিত করতে বই পড়ার বিকল্প নেই। অজানা বিষয়কে জানার উত্তম একটি মাধ্যম হচ্ছে বই। এতে জ্ঞান আহরণের পাশাপাশি সুন্দর  সময়ও কাটে। 

 

বর্তমানে করোনার ভয়াল থাবায় বিপর্যস্ত গোটা বিশ্ব। বছর পেরিয়ে গেছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। চলছে অনলাইন ক্লাস। ঘর বন্দী সময় পাড় করতে হচ্ছে সবাইকে। কারণ ঘরের বাইরে না যাওয়ার রয়েছে নানা নিষেধাজ্ঞা। শিক্ষার্থী থেকে বয়স্ক সকল বয়সের লোকই এখন গৃহবন্দী জীবন কাটাচ্ছেন। এমন অবসর সময়ে আপনার সুন্দর সঙ্গী হতে পারে বই।

 

ইন্টারনেটের কল্যাণে আমরা বেশিরভাগ সময়ই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিয়ে বসে থাকি। ফেসবুক একনাগাড়ে স্ক্রল কিংবা চ্যাটিং করে ঘণ্টার পর ঘণ্টা নষ্ট করে ফেলি৷ যা মোটেও কাম্য নয়।আমরা এই মূল্যবান সময়টাকে বই পড়ার মাধ্যমে আরো সুন্দর করে তুলতে পারি।

 

কিছু বই আছে যেগুলো জীবনে একবার হলেও পড়া উচিত। যেহেতু এখন গৃহবন্দী অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন। এক্ষেত্রে বইগুলো পড়ে দেখতে পারেন। যদি বাংলায় পড়তে চান তবে খোয়াবনামা, পথের পাঁচালি, শেষের কবিতা, পদ্মা নদীর মাঝি, গোরা, ন হন্যতে এই বইগুলো পড়তে পারেন। এছাড়াও গাভী বৃত্তান্ত, যদ্যপি আমার গুরু, একেকটি বই আমাদেরকে ভিন্নভাবে শক্তি দিবে। 

 

দীর্ঘদিনের কর্মব্যস্ততার হঠাৎ করেই সব থমকে গিয়েছে। বদলে গেছে দৈনন্দিন রুটিন। হঠাৎই অখণ্ড অবসর। এই অবসরে অনেকে ল্যাপটপ, কম্পিউটার, মোবাইল-ফোন কিংবা টেলিভিশনে ঝুঁকে যাচ্ছে। কাজকর্মে এসেছে অলসতা। এসময় আপনি চাইলেই বই পড়ে সময়টাকে চাইলেই মূল্যবান করে তুলতে পারেন। 

 

যারা একেবারেই নতুন পাঠক তারা হুমায়ুন আহমেদের হিমু ও মিসির আলী সিরিজটি পড়তে পারেন। এছাড়াও দেয়াল, অপরান্হ,শঙ্খনীল কারাগার,মেঘ বলেছে যাব যাব,বৃষ্টিবিলাস,অপেক্ষা, শূন্য, দেবী ইত্যাদি।  এর বাইরে পড়তে পারেন জাফর ইকবালের লেখা রাশা, আমি তপু, আমার বন্ধু রাশেদ ও আনিসুল হকের লেখা মা, বিক্ষোভের দিনগুলোতে প্রেম ইত্যাদি পড়ে দেখতে পারেন। গোয়েন্দা গল্প যাদের টানে তাদের জন্য ফেলুদা, বোমকেশ বক্সী, মাসুদ রানা হতে পারে সেরা সঙ্গী। 

 

ছোট বাচ্চাদের বইয়ের তালিকায় যুক্ত হতে পারে সুকুমার রচনাসমগ্র, ঠাকুমার ঝুলি, ঈশপের গল্প সমগ্র ,গোপাল ভাঁড় সমগ্রসহ নানাধরনের বই।  

 

যদি বাংলার বাইরে পড়তে চান সেক্ষেত্রে হানিয়া ইয়ানাগিহারার' আ লিটল লাইফ',জর্জ এলিয়টের 'মিডলমার্চ', চার্লস ডিকেন্সের ' ব্লিক হাউজ", হারম্যান মিলভিলের 'মোবি -ডিক(দ্য হোয়েল) বইগুলো পড়তে পারেন। এগুলো আপনার অবসর সময়টাকে করবে সুন্দর। 

 

সামনে আসছে ঈদ। ঈদকে কেন্দ্র করে অনলাইন পড়াশোনার চাপও কিছুটা কম থাকবে। এসময় অনেক বই পড়তে পারেন। যা আপনাকে তৃপ্ত করবে। মনকে করবে শান্ত।

 

ইরানের বিখ্যাত কবি ওমর খৈয়াম একটি কথা বলেছিলেন৷ কথাটি কমবেশি আমাদের সবারই জানা, ‘রুটি মদ ফুরিয়ে যাবে, প্রিয়ার কালো চোখ ঘোলাটে হয়ে আসবে, তবু একখানা ভালো বই অনন্ত যৌবনা।

 

বই যেকোনো সময় যেকোনো স্থানে পড়া সম্ভব। প্রয়োজন শুধু ইচ্ছা। আমার আমাদের মনকে করে তৃপ্ত। একটা ভালো বই শুধু জীবনকে করে সুবাসিত। মনোজগতের অবসাদ ও ক্লান্তি দূর করে আনে শান্তি৷ তাই অবসর সময়টাকে নষ্ট না করে বই পড়ুন৷ এটাই হতে পারে আপনার অবসরের শ্রেষ্ঠ সঙ্গী।