যত্ন নিন কণ্ঠের

যত্ন নিন কণ্ঠের
যত্ন নিন কণ্ঠের
জোরে কথা বলা পরিহার করুন। জোরে কথা বললে কণ্ঠনালীর উপর প্রভাব পড়ে। যা কণ্ঠকে খারাপ করে দেয়। তাই অপ্রয়োজনে জোরে কথা বলা ত্যাগ করুন। 

কথায় বলে, যত্নে রত্ন মিলে৷ ত্বকের যত্ন, মনের যত্ন, শরীরের যত্ন এমন অনেক ক্ষেত্রেই আমরা ভীষণ যত্নশীল হই। কিন্তু কখনো ভেবেছেন, গলা বা কণ্ঠের যত্ন নিয়ে আপনি হয়ে উঠতে পারেন সুন্দর কণ্ঠের অধিকারী। সেজন্য সবার আগে খেয়াল রাখতে হবে কণ্ঠকে যেন অ্যাবিউজ (বিরামহীন কথা বলা,  জোরে চিৎকার করা, গলায় কোন সমস্যা হলে চিকিৎসা না নেওয়া) করা না হয়।  অ্যাবিউজের কারণে কণ্ঠ খারাপ হতে থাকে৷ আর তাই কণ্ঠকে সুন্দর ও ভালো রাখতে - 

 

 

জোরে কথা বলা পরিহার করুন। জোরে কথা বললে কণ্ঠনালীর উপর প্রভাব পড়ে। যা কণ্ঠকে খারাপ করে দেয়। তাই অপ্রয়োজনে জোরে কথা বলা ত্যাগ করুন। 

 

অতিরিক্ত কথা না বলা বা কথা কম বলার অভ্যাস করুন। অতিরিক্ত এবং বিরামহীন কথা বললে কণ্ঠ ভেঙে যাওয়া, স্বর পরিবর্তন হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে৷ 

 

কণ্ঠ চর্চা করুন। অর্থাৎ সুন্দর করে গুছিয়ে কথা বলার চেষ্টা করুন। সুন্দর করে কথা বলার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারলে কণ্ঠও তার সাথে সুন্দর হয়ে ওঠে। 

 

কণ্ঠ এবং গলার নানা রকম ব্যায়াম আছে। প্রতিদিন একবার করে সেগুলো করতে পারেন। অতিরিক্ত গরম বা ঠাণ্ডা খাওয়া বর্জন করুন।  মাঝে মধ্যে কুসুম গরম পানির সাথে লবণ দিয়ে কুলকুচি করতে পারেন।