গোলমরিচের নানা গুণাগুণ 

গোলমরিচের নানা গুণাগুণ
গোলমরিচের নানা গুণাগুণ
গোলমরিচ নাক বন্ধ,হাঁপানি থেকেও মুক্তি মেলাতে সাহায্য করে। দাঁতে ক্যাভিটি বা ব্যথা থাকলে মুখে গোলমরিচ রাখতে পারেন। ব্যথা নিরাময় করতে গোলমরিচ সাহায্য করে। 

গোলমরিচ একটি পরিচিত মশলা। খাবারে গোলমরিচের ব্যবহার স্বাদে আনে ভিন্নতা। খাবার করে তুলে সুস্বাদু। কিন্তু শুধু কি খাবার সুস্বাদু করতেই গোলমরিচের ব্যবহার করে থাকি? মোটেও নয়।  কারণ গোলমরিচে রয়েছে নানা পুষ্টিগুণ। গোলমরিচ শুধু খাবারের স্বাদই বাড়ায় না, রোগ প্রতিরোধ এবং প্রতিষেধকেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

 


গোলমরিচ ভিটামিনের একটি অংশ। এতে বিভিন্ন ভিটামিনের উপস্থিতি বিদ্যমান। গোলমরিচ স্বাস্থ্যের জন্যও দারুণ উপকারী। তাই স্বাদ নয় বরং স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রেখে আমাদের গোলমরিচ খাওয়া প্রয়োজন।

 

 

গোলমরিচ দেহের বাড়তি ওজন কমাতে সাহায্য করে। এটি দেহের চর্বি কমায়। এক্ষেত্রে খাবারে গোলমরিচ ব্যবহার করলে অনেক উপকার পাবেন। সহজেই শরীরের অতিরিক্ত মেদ কমাতে সক্ষম হবেন।এছাড়াও নিয়মিত গোলমরিচ খেলে আমাদের হজম ভালো হয়।আর হজমে সমস্যা না হলে অনেক রোগ থেকে সহজেই মুক্তি মেলে।

 

 

এছাড়াও গোলমরিচ সর্দি-কাশি নিরাময়েও কার্যকর ভূমিকা রাখে। এটি ফ্লু কিংবা গলা ব্যথার সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে৷ চায়ের মধ্যে আদা,দারুচিনি ও এলাচ দিয়ে সঙ্গে একটু গোলমরিচের মিশিয়ে খেলে দারুণ উপকার পাবেন। 

 

 

এটি ত্বকের জন্যও বিশেষ উপকারী। এটা খাওয়ার ফলে শরীর প্রচুর ঘামে। যার কারণে শরীর থেকে অতিরিক্ত টক্সিন কমতে থাকে। গোলমরিচের গুঁড়ো স্ক্রাবার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। এই স্ক্রাবার ত্বক থেকে মৃত কোষ দূর হয়। যা ত্বকের জন্য ভালো।

 

 

গোলমরিচ নাক বন্ধ,হাঁপানি থেকেও মুক্তি মেলাতে সাহায্য করে। দাঁতে ক্যাভিটি বা ব্যথা থাকলে মুখে গোলমরিচ রাখতে পারেন। ব্যথা নিরাময় করতে গোলমরিচ সাহায্য করে। 

 

 

গোলমরিচে থাকা ব্যাকটেরিয়াল উপাদান শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করে।সেই সঙ্গে সংক্রমণের হাত থেকে সুরক্ষা দেয়। এছাড়াও এতে থাকা  দস্তা, সোডিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম, ফসফরাস, ক্যালসিয়ামের মতো উপাদান স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি।