চোখের যখন চশমা প্রয়োজন

প্রকাশ : ১৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৫:১০ | অনলাইন সংস্করণ

  জাহিদ হাসান দিপু

কথায় আছে, ‘চোখের ভেতরেই আত্মার বাস’। ভেবে দেখেছেন ঈশ্বরের দেওয়া এই অপার নিয়ামতটি না থাকলে আমরা কতকিছু উপভোগ করা থেকে বঞ্চিত হতাম?
সময়ের সঙ্গে সঙ্গে জীবনযাত্রার ধরন পরিবর্তন হচ্ছে। এখন পেশার সুবাদেই আমাদের দিনের অনেকটা সময় ল্যাপট, কম্পিউটার স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে থাকতে হয়। কখনো কি ভেবেছেন এসব কিছু আপনার চোখের উপর কিভাবে এবং কতটুকু প্রভাব ফেলছে? বা চোখে ঠিক কতটুকু সমস্যা হলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হয় জানা আছে কি? আসুন জেনে নেওয়া যাক :


চোখে অস্পষ্ট দেখছেন? কাছে না দূরে?


আপনার প্রিয় বন্ধুটিকেও ১০ কদম দূরে থেকে চিনতে পারছেন না? আপনার প্রিয় ম্যাগাজিনটি চোখের অনেক কাছে নিয়ে পড়তে হচ্ছে? তাহলে আপনার মায়োপিয়া বা ক্ষীণদৃষ্টির সমস্যা দেখা দিয়েছে। মায়োজিয়ায় দূরের বস্তু দেখতে সমস্যা হয়। সাধারণত বেশিরভাগ চোখের সমস্যাই মায়োপিয়ার কারণে হয়ে থাকে। আবার ধরুন আপনি ক্লাস এ আছেন। শিক্ষক বোর্ডে যা তুলছেন সবই বুঝতে পারছেন কিন্তু নোটস তুলতে সমস্যা হচ্ছে। এটাকে দূরদৃষ্টি বা বিজ্ঞানের ভাষায় আমরা হাইপারমেট্রোপিয়া বলে থাকি। হাইপারমেট্রোপিয়া থাকলে আমাদের দূরে দেখতে সমস্যা হয়। আবার যদি আপনার কাছে ও দূরে উভয়ই দেখতে সমস্যা হয় তাকে অ্যাসটিগমারিসম বলা হয়ে থাকে। যদি হাল্কা ঝাপসা দেখেন তাহলে চোখকে বিশ্রাম দিন এবং হাইড্রেটেড থাকুন। যদি তবু সমস্যা থাকে তাহলে শিগগিরই ডাক্তারের সঙ্গে সাক্ষাত করুন।


রাতে দেখতে সমস্যা হচ্ছে?


হাল্কা আলোতে কারো গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করতে কিংবা ধরতে সমস্যা হচ্ছে? রাতে গাড়ি চালান কষ্টকর হয়ে পরছে? আপনি সম্ভবত ক্যাটারাক্ট বা চোখে ছানি পড়ার প্রাথমিক ধাপে আছেন। বিলম্ব না করে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।


কম্পিউটারে কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে?


চাকরির সুবাদে আপনাকে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কম্পিউটারের স্ক্রিন-এর দিকে তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে? যখন আমরা কম্পিউটার-এর মনিটরের দিকে তাকিয়ে থাকি তখন আমাদের চোখ স্বাভাবিকের তুলনায় কম পলক ফেলছে, চোখে যথেষ্ট বিশ্রাম পাচ্ছে না যার ফলে চোখ ব্যথা করছে, তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যাচ্ছে। তার উপর যখন আপনার দৃষ্টিশক্তি কমে যায় তখন আমাদের চোখের পেশির কাজ বেড়ে যায়। পেশি তাড়াতাড়ি ক্লান্ত হয়ে যায় এবং কাজে মনোযোগ দিতে সমস্যা হয়, ঘুম পায়। এক্ষেত্রে চিকিৎসকরা ২০-২০-২০ নিয়ম অনুসরণ করতে বলেন। কাজ করার সময় প্রতি ২০ মিনিট পর পর কমপক্ষে ২০ ফুট দূরের কোনো কিছুর দিকে তাকিয়ে থাকুন ২০ সেকেন্ড। এক্ষেত্রে এ সমস্যাটি অনেকাংশে প্রতিরোধ ও প্রতিকার করতে পারবেন।


খুব দ্রুতই চোখে অবসাদ অনুভব করছেন?


২০ মিনিটের বেশি বই পড়তে পারছেন না যেখানে একবছর আগেও ১ ঘণ্টা কোনো সমস্যা ছাড়াই বই পড়তে পারতেন? চোখে অবসাদ তখনি আসে যখন আপনি কোনো একটা বস্তু স্পষ্টভাবে দেখার জন্য বারবার চোখ ঝাপটাতে থাকেন। চোখে সমস্যা থাকলেই আমাদের কোনো একটা বস্তুর দিকে ফোকাস করতে সমস্যা হয়। যখন আমরা কোনো বই পড়ি আমাদের চোখকে প্রতিটা অক্ষরের আকৃতি, বিবরণ, খুঁটিনাটির দিকে লক্ষ্য করতে হয়। যদি চোখকে বিশ্রাম না দেওয়া হয় তাহলে চোখের উপর অনেক চাপ পড়ে। যখন আপনি চোখে খুব অল্প সময়ই অবসাদ অনুভব করবেন দেরি না করে ডাক্তারের শরণাপন্ন হন। দৈনিক অন্তত ৮ গ্লাস পানি পান করুন চোখকে সতেজ রাখার জন্য।


আপনি কি হলো বা আলোর ছটা দেখতে পান?


‘ঐধষড়’ বা আলোর ছটা হলো আশপাশের কোনো বস্তুকে ঘিরে আবছা আলোর রেখা দেখতে পাওয়া যায়। ফলে বস্তুটিকে ঝাপসা আলোর উৎস মনে হয়। এছাড়াও কি মনে হয় সেই আলো ছড়িয়ে যাচ্ছে অথবা ম্লান হয়ে যাচ্ছে? লাইট বাল্ব থেকে গাড়ির হেডলাইট পর্যন্ত এই সমস্যা দেখা দিতে পারে। চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলুন। কারণ ছানির একটি লক্ষণ হতে পারে এই ব্যাপারটা। তাই দেরি না করে চক্ষু চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন।


ঘন ঘন মাথা ব্যথা করছে?


চোখের সমস্যার অন্যতম উপসর্গ হলো মাথা ব্যথা করা। যদি অনেকক্ষণ পড়াশোনা করার পর বা কম্পিউটার এ কাজ করার পর মাথা ব্যথা করে তাহলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হওয়া জরুরি।


কীভাবে চোখ সুস্থ রাখবেন :


১. একটানা টিভি কম্পিউটারের স্ক্রিনের দিকে না তাকিয়ে থেকে চোখকে নির্দিষ্ট সময় পর পর বিশ্রাম দিন।
২. বেশি করে ছোটো মাছ, সবুজ শাকসবজি খাওয়ার চেষ্টা করুন। এতে চোখ সুস্থ থাকবে।
৩. মাথা ব্যথা চোখের পাওয়ার পরিবর্তনের নির্দেশক। মাথা ব্যথা হলে ডাক্তারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করুন।
৪. আপনার সন্তানকে টিভি, ট্যাবের দিকে দীর্ঘসময় বিরতিহীনভাবে তাকিয়ে থাকার দিকে নিরুৎসাহিত করুন।
৫. শিশুদের চোখে সমস্যা হলে তাড়াতাড়ি ডাক্তার দেখানো বাঞ্ছনীয়। কারণ তাড়াতাড়ি না দেখান হলে সমস্যা দীর্ঘস্থায়ী হয়ে যেতে পারে।
৬. ডায়াবেটিস রোগীদের নিয়ন্ত্রণে থাকা অত্যন্ত জরুরি কারণ নিয়ন্ত্রণে না থাকলে চশমার পাওয়ার ঘন ঘন পরিবর্তন হয়। যার ফলে চশমা ব্যবহারে ফল পাওয়া যায় না।
৭. কন্টাক্ট লেন্স ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ব্যবহার করা উচিত।
৮. নিয়মিত পানি পান করুন, চোখ সতেজ রাখুন।
৯. আপনি যদি চশমা ব্যবহার করেন তাহলে যখন তখন খুলে ফেলবেন না। এতে বরঞ্চ চোখের ক্ষতিই হবে। হ