গরমে রোজা রেখেও সুস্থ থাকুন

গরমে রোজা রেখেও সুস্থ থাকুন
গরমে রোজা রেখেও সুস্থ থাকুন
সেহেরি সারাদিনের কর্মশক্তি যোগায় । বিশেষজ্ঞরা বলছেন সেহেরি না খেলে বা কম ঘুমালে হিট স্ট্রেস হতে পারে। তাই সেহেরিতে ভালো ভাবে পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে। 

বৈশাখের প্রথম দিনেই এবার প্রথম রোজা। পুরো রোজাই  গ্রীষ্মের পুরো গরমের মধ্যে কাটাতে হবে। এই গরমে টানা ১৫/১৬ ঘণ্টা না খেয়ে গরমের দিনে রোজা রাখা অনেকের জন্যই চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়ায়। 


এছাড়াও এই গরমে এতক্ষণ পানাহার থেকে বিরত থাকলে ডিহাইড্রেশন, মাথা ব্যথার মত সমস্যা দেখা দিতে পার। তবে মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের জন্য রোজা ফরজ হওয়ায় সকল ধর্মপ্রাণ মানুষ রোজা রাখেন। এমন পরিস্থিতিতে  কীভাবে রোজা রেখেও সুস্থ থাকা যায় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। এক্ষেত্রে যেসব নিয়ম মেনে চলতে পারেন: 

 

 

সেহেরি খাওয়া 

সেহেরি সারাদিনের কর্মশক্তি যোগায় । বিশেষজ্ঞরা বলছেন সেহেরি না খেলে বা কম ঘুমালে হিট স্ট্রেস হতে পারে। তাই সেহেরিতে ভালো ভাবে পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে। 


ক্যাফেইন বাদ দেওয়া 

রমজান মাসে চা, কফি, কোমল পানীয় পরিহার করুন। আর খেলেও তা যেন সেহেরির সময় না হয়। কারণ চা কফি শরীরকে ডিহাইড্রেট করে দেয়। সেই সাথে সেহেরিতে চা, কফি খেলে প্রস্রাবের সাথে শরীরের লবণ বের হয়ে যায়। যা সারাদিন রোজা রাখার জন্য জরুরি। 


পর্যাপ্ত ঘুম

ঘুম কম হলে মানুষ কাজ করার শক্তি হারায়। এই গরমে রোজা রেখে কম ঘুমালে হিট স্ট্রেস দেখা দেয়। তাই রোজা রেখে পর্যাপ্ত ঘুমানো উচিত। 


তরল খাবার

সারাদিনের প্রচণ্ড রোদ গরমে শরীরে পানি বা পানিজাতীয় খাবারের চাহিদা থাকে অনেক। তাই ইফতার থেকে সেহেরি পর্যন্ত বেশি করে পানি, পানি জাতীয় ফল, তরল খাবার গ্রহণ করুন। 


ইফতার  

সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে এমন খাবার রাখুন যা আপনাকে সারাদিনে পুষ্টি ঘাটতি মেটাতে সাহায্য করবে। অস্বাস্থ্যকর ভাজাপোড়ার বদলে স্বাস্থ্যকর খাবার রাখুন ইফতারে। খেঁজুর, ফলমূল, তরল খাবার, পর্যাপ্ত পানি খেতে পারেন।