গর্ভাবস্থায় আবার গর্ভধারণ করে রেবেকা!

গর্ভাবস্থায় আবার গর্ভধারণ করে রেবেকা!
গর্ভাবস্থায় আবার গর্ভধারণ করে রেবেকা!
রেবেকার দুই সন্তানের পৃথিবীতে আসার বয়স সমান হলেও মায়ের পেটে আসার বয়স সমান নয়। দুটি বাচ্চার মধ্যে তিন সপ্তাহের ব্যবধান রয়েছে যা চিকিৎসকদের বোধগম্য হচ্ছে না।

গর্ভধারণ ও সন্তান জন্মদান নারীর জীবনের স্বাভাবিক ঘটনা। একবার গর্ভধারণের পর সন্তান জন্মদানের পরই কেবল আবার গর্ভধারণ করতে পারে। কিন্তু এই বিধানের ব্যতিক্রম ঘটনা ঘটতে দেখা গিয়েছে। যুক্তরাজ্যের এক নারী গর্ভধারণের তিন সপ্তাহ পরে আবার গর্ভধারণ করেছেন। যমজ সন্তানের ক্ষেত্রে একাধিক সন্তান একসাথেই গর্ভে আসে ভ্রূণ অবস্থায়। এই ঘটনাকে চিকিৎসকরা বিরল ‘সুপার টুইনস’ হিসেবে উল্লেখ করছেন। 

 

 

এই বিরল জমজ শিশুর জন্ম দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের উইল্টশায়ারে বসবাসকারী রেবেকা রবার্টস। তার দুটি শিশুই একই দিনে জন্মগ্রহণ করেছে কিন্তু এরা মায়ের গর্ভে এসেছে তিন সপ্তাহের ব্যবধানে। রেবেকার দুই সন্তানের পৃথিবীতে আসার বয়স সমান হলেও মায়ের পেটে আসার বয়স সমান নয়। দুটি বাচ্চার মধ্যে তিন সপ্তাহের ব্যবধান রয়েছে যা চিকিৎসকদের বোধগম্য হচ্ছে না।’

 

 

গত সেপ্টেম্বরে নোয়াহ ও রোসেলি নামে দুই জমজ শিশুর জন্ম দিয়েছেন রেবেকা। রেবেকা জানান, তিনি ও তার সঙ্গী রাইস ওয়েভার অনেক বছর ধরেই সন্তান জন্মদানের চেষ্টা করে আসছিলেন। এজন্য রেবেকা ও রাইস বহুবার চিকিৎসকের কাছেও গিয়েছেন। চিকিৎসা নিয়ে অবশেষে গর্ভধারণ করতে পারেন রেবেকা। কিন্তু গর্ভাবস্থায় তৃতীয় আল্ট্রাসাউন্ড পরীক্ষার সময় চমকে যান রেবেকা। তার চিকিৎসকরা জানান, তিনি আবারও গর্ভধারণ করেছেন। এই পরীক্ষার সময় রেবেকা ১২ সপ্তাহের গর্ভবতী ছিলেন।

 

 

ইউরোপিয়ান জার্নাল অব অবসটেট্রিক্স অ্যান্ড গাইনেকোলজির ২০০৮ সালের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সে সময় পৃথিবীতে এ ধরণের ‘সুপার টুইনস’ এর ঘটনা দশটিরও কম ছিল। রেবেকার এই গর্ভধারণকে সুপারফেটেশন নামে অভিহিত করা হয়। এটি এমন এক পরিস্থিতি যখন প্রথম গর্ভধারণের মধ্যেই দ্বিতীয় গর্ভধারণের ঘটনা ঘটে। এটি ঘটে যখন ডিম্বাশয় থেকে দুটি পৃথক সময়ে ডিম্বাণু বের হয়।

 

 

ওয়াকার বলেন, ‘ডিম্বাণু মুক্তিকরণ বন্ধের পরিবর্তে, তিনি প্রথমটির তিন বা চার সপ্তাহ পরে আরেকটি ডিম্বাণু ছেড়েছেন। এবং ডিম্বাণুটি অলৌকিকভাবে নিষিক্ত হতে সক্ষম হয়েছে এবং জরায়ুতে প্রতিস্থাপিত হয়েছে।’ রেবেকার গর্ভধারণ বেশ চ্যালেঞ্জিং পরিস্থিতি তৈরি করেছিল কারণ চিকিৎসকরা আশঙ্কা করছিলেন, দ্বিতীয় সন্তানটি নাও বাঁচতে পারে। তবে সৌভাগ্যক্রমে তার দুই সন্তানই সুস্থ আছে।