বৃহস্পতিবার,২৩ নভেম্বর ২০১৭
হোম / রূপসৌন্দর্য / ভালোবাসার দিনে রঙিন সাজ
০২/১৩/২০১৭

ভালোবাসার দিনে রঙিন সাজ

-

ফাগুনের রঙিন হাওয়া যেন ভালোবাসার প্রতিটি মুহূর্তকে আরও রঙিন করে তোলে। আর তাইতো সারা বছরের পুরানো ভালোবাসাকে মনে করার জন্য বেছে নেওয়া হয় ফাগুনের দ্বিতীয় দিনটিকে।

নতুন বা পুরানো যে-কোনো জুটিই এই দিনটির জন্য নানান ধরনের পরিকল্পনা সাজাতে থাকেন বেশ আগে থেকেই। আর তাই দিনটি ঘনিয়ে এলেই কেমন পোশাক পরব, কীভাবে সাজব এমন নানা চিন্তা ভর করে।

১৪ই ফেব্রুয়ারি ভালোবাসার দিনে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, জিন্স-টপস, স্কার্ট-টপস, ফতুয়া যে-কোনো পোশাক বেছে নিতে পারেন নিজের পছন্দ অনুযায়ী। চাইলে হালফ্যাশনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে গাউন, স্কার্টের উপর লম্বা ফতুয়া বা ম্যাক্সি ড্রেসও পরতে পারেন। পোশাক যাই হোক না কেন, সাজতে হবে পোশাকের রংয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে। তাছাড়া দিনের এবং রাতের সাজের পার্থক্যটিও মাথায় রাখতে হবে।

ভালোবাসার রং লাল, এমনটাই বেশ প্রচলিত। তাই এ দিনে লালের আধিক্য থাকে চোখে পড়ার মতো। তাই বলে পুরো পোশাকে যেন লালের আধিক্য না থাকে, সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। কারণ অতিরিক্ত লাল রং দৃষ্টিকটু হতে পারে। শাড়ি লাল বেছে নিলে ব্লাউজ, ব্যাগ এবং স্যান্ডেল বেছে নিন
সোনালি, কালো বা সাদা রংয়ের। অন্যভাবে ব্যাগ ও স্যান্ডেল লাল পরলে পোশাক বেছে নিন মানানসই কোনো রংয়ের। এতে করে ভালোবাসার রংও থাকবে, আবার তা দৃষ্টিকটুও হবে না।

তবে নীল, আকাশি বেগুনি, ফিরোজা, গোলাপি ইত্যাদি হালকা ও মিষ্টি রংগুলোও এদিন বেশ মানাবে। অন্যদিকে বসন্তের দ্বিতীয় দিন হওয়ায় বসন্তের রংগুলোও বেছে নেওয়া যেতে পারে। হলুদ, বাসন্তী, কমলা, সবুজ ইত্যাদি রংও ফাগুনের দ্বিতীয় দিনে দারুণ মানিয়ে যাবে। পোশাক বাছাইয়ের পর সাজসজ্জার পালা। জমকালো সাজ যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলাই ভালো। কারণ হাল ফ্যাশনে ন্যাচারাল সাজটাই বেশি জনপ্রিয়।

মেকআপের আগে ত্বকের কিছু বাড়তি যত্ন নিতে হবে। কারণ সুন্দর মেকআপের জন্য সুন্দর ত্বকই বড় শর্ত।

ভালো কোনো স্ক্রাবার দিয়ে প্রথমেই স্ক্রাবিং করে নিতে হবে। এতে ত্বকে জমে থাকা ময়লা, ব্ল্যাকহেডস ও মৃত কোষ পরিষ্কার হয়ে যাবে এবং মেকআপ সুন্দরভাবে বসবে। চাইলে ঘরেই স্ক্রাব বানিয়ে নেওয়া যেতে পারে। চালের গুঁড়ার সঙ্গে মধু ও খানিকটা পানি বা গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিলেই মিশ্রণটি স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করা যায়। এছাড়া মধু, লেবু ও চিনি মিশিয়েও স্ক্রাব তৈরি করে নেওয়া যাবে। এরপর মুখ ভালোভাবে মুছে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিতে হবে। দিনের বেলা বের হলে অবশ্যই ভালোমানের সানস্ক্রিন লাগিয়ে নিন।

দিনের মেকআপ হবে হালকা আর ন্যাচারাল। ত্বকের রংয়ের সঙ্গে মানিয়ে ফাউন্ডেশন দিয়ে এর পর অতিরিক্ত দাগ এবং চোখের নিচের কালচেভাব ঢাকতে কনসিলার ব্যবহার করতে হবে। প্রথমে খুব অল্প পরিমাণে ফাউন্ডেশন লাগিয়ে মেকআপ শুরু করুন। কারণ বেশি ফাউন্ডেশন ব্যবহারে দেখতে মেকি লাগবে। হালকা করে কন্টোর করে গালে গোলাপি, কমলা, পিচ, বাদামি ব্লাশঅন বুলিয়ে নিন।

চোখের সাজে ড্রামাটিক ভাব আনতে চাইলে স্মোকি আই লুক বেশ মানাবে। কালোর পাশাপাশি পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে নীল, সবুজ, বেগুনি স্মোকি লুকও বেশ আকর্ষণীয়। তবে চোখে গাঢ় শ্যাডো ব্যবহার করলে ঠোঁটে হালকা ও ন্যুড শেডের লিপস্টিক ব্যবহার করতে হবে। তবে ভালোবাসার দিনে চোখের মেকআপকে প্রাধান্য দেওয়া যেতেই পারে। তবে চোখের মেকআপ হালকা করে ঠোঁটে উজ্জ্বল লাল, বেগুনি বা মেরুন লিপস্টিক লাগানো যেতে পারে।

রাতের সাজ হতে পারে বেশ জমকালো। চোখে মনমতো দু’তিনটি শ্যাডো রং ব্যবহার করা যেতে পারে। সোনালি, তামাটে, রূপালি, মেরুন, গাঢ় বেগুনি, কালো ইত্যাদি শ্যাডো রাতের জন্য বেশ উপযোগী। ঠোঁটের রং-এ জমকালো রংগুলো বেছে নেওয়া যেতে পারে। তবে অবশ্যই চোখ এবং ঠোঁটের সাজে সামঞ্জস্য বজায় রাখতে হবে।

সকালে বা আগের দিন রাতে চুল ধুয়ে কন্ডিশন করে নিন। খোলাচুলে ওয়েভ, কার্ল, স্পাইরাল ইত্যাদি বেশ ফ্যাশনেবল লাগবে। চাইলে কপাল ঘেঁষে চিকন বেণি করে নিতে পারেন। পনিটেইল, ফ্রেঞ্চ বেণিও ভালো লাগবে। যাঁরা শাড়ি পরবেন, তারা হাতখোঁপা করে নিতে পারেন। হরেকরকম চুলের কাঁটা গুঁজে খোঁপায় ভিন্নতা আনতে পারেন। খেয়াল রাখবেন, চুল যেন সব সময় পরিষ্কার ও টিপটপ দেখায়। চুল ছেড়ে বের হতে চাইলে ব্যাগে পাঞ্চ ক্লিপ ও ব্রাশ রাখবেন।

পোশাকের সঙ্গে মানিয়ে ব্যাগ ও স্যান্ডেল বাছাই করতে হবে। যদি বাইরে হাঁটাহাঁটি বেশি হয়, তাহলে অবশ্যই আরামদায়ক স্যান্ডেল বেছে নিতে হবে। তাছাড়া কানের দুল, গলার মালা, চুড়ি বা বালা ইত্যাদিও পোশাকের সঙ্গে মানিয়ে পরতে হবে।

সব শেষে বের হওয়ার আগে মন মাতানো সুগন্ধি ছিটিয়ে নিতে ভুললে চলবে না।

- বেলা দত্ত