শুক্রবার,২৪ নভেম্বর ২০১৭
হোম / অন্দর-বাগান / বসন্তে ঘর সাজুক ফুলে ফুলে
০২/০৫/২০১৭

বসন্তে ঘর সাজুক ফুলে ফুলে

-

শীতের কুয়াশা ভেদ করে অল্প কিছুদিনের মধ্যে আসছে ঋতুরাজ বসন্ত। আর বসন্ত মানেই আশপাশে ফুলের সমারোহ। এ সময়টায় ঘরের সৌন্দর্য বাড়িয়ে তুলতে একগুচ্ছ ফুলের চেয়ে ভালো আর কোনো কিছু নেই। ফুলদানিতে সাজানো কিছু ফুল ঘরের চেহারাই পালটে দেয়। ঘরে স্নিগ্ধতা আনতে তাজা ফুলের জুড়ি নেই।

- ফুলদানিতে শুধু তাজা ফুল না রেখে এর সঙ্গে রাখতে পারেন পাতা, ডাল, ঘাস জাতীয় কিছু। এতে ফুলের সৌন্দর্যে আসবে প্রাকৃতিক ছোঁয়া।

- ফুলদানি যেন সুন্দর হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখুন। পোর্সেলিন বা মেটালের ফুলদানি ব্যবহার করুন, বেশ একটি আভিজাত ভাব আসবে। গরমের দিনে অবশ্য স্বচ্ছ কাচের ভাসও ব্যবহার করতে পারেন। সবুজের ছোঁয়া বাড়বে।

- সব সময় লাল, কমলা রঙের ফুল না রেখে একটু ব্যতিক্রমী রঙের ফুল রাখার চেষ্টা করুন। যেমন বেগুনি, হলুদ, হালকা গোলাপি। বেশ বৈচির্ত্য আসবে।

- সবসময় ফুল দিয়ে না সাজিয়ে মাঝে মাঝে ফুলদানিতে শুধু পাতাবাহারও রাখতে পারেন। বিভিন্ন ধরনের পাতাবাহার দোকানে পাওয়া যায়। সেগুলো দিয়ে ফুলদানি সাজান; ঘরের ভেতর প্রকৃতির ছোঁয়া অনুভূত হবে।

- ফুলদানিতে একই রকম ফুল না রেখে বরং দু-তিন রকমের ফুল রাখুন। দেখতে ভালো লাগবে।

- ফুলের সুবাস দীর্ঘসময় ধরে রাখতে ফুল সাজানোর আগে ফুলদানির পানিতে লবণ ও সিরকা মিশিয়ে নিন। তবে ফুলের ডাঁটি আপনি কিভাবে কাটছেন তার ওপরও ফুলের স্থায়িত্ব নির্ভর করে অনেকখানি। ফুলের ডগা কাটার সময় একটু তির্যকভাবে কাটুন। এতে ডগার মধ্যে পানি প্রবেশ করে এবং বাতাস চলাচল করতে পারে অনায়াসেই।

- ছোট ছোট টবে রঙিন ফুল দিয়ে ড্রয়িংরুমের দেয়াল সাজাতে পারেন। এছাড়া ফুলদানিতে করে ঘরের পজিশন মতো স্থানে সাজিয়ে রাখতে পারেন ফুল। সেন্টার টেবিলের মাঝে কিংবা সাইড টেবিলের ওপরও রাখতে পারেন বাহারি ডিজাইনের ফুলদানিতে ফুল। ঘরে একটা আভিজাত্যের ছোঁয়া চলে আসবে।

- রজনীগন্ধা ফুলদানিতে সাজিয়ে নেয়া ফুলগুলোর মধ্যে বরাবরই প্রথম সারিতে। একটা ফুলদানিতে গাদাগাদি করে না রেখে তিনটি ভিন্ন ভিন্ন সাইজ ও শেপের পটারিতে রজনীগন্ধা সাজিয়ে নিন। জায়গা যদি না থাকে, তবে একটি পটারিতেই ছোট-বড় করে কয়েকটি রজনীগন্ধা স্টিক সাজিয়ে নিলে মন্দ লাগবে না।

- ডাইনিং রুমে খাওয়ার পরিবেশ বজায় রাখাটাই ভালো। এই ঘরের দেয়ালে খাবারের ছবির পাশাপাশি ঝুলন্ত টবে দিতে পারেন কিছু ফুল। এছাড়া এই ঘরে যদি এ্যাকুয়ারিয়াম কিংবা শোকেস থাকে, তাহলে তার ওপর বাহারি ডিজাইনের ক্রিস্টাল, কাঠ, মাটি কিংবা বাঁশের ফুলদানিতে রাখতে পারেন ফুল। ঘরে চলে আসবে মনোরম পরিবেশ। ডাইনিং টেবিলে ফুলদানির পাশাপাশি ছোট ছোট ক্রিস্টালের ফুল সাজিয়ে রাখতে পারেন টেবিলের ওপর বা ছোট বাটিতে। খাবার টেবিলের ঠিক মধ্যখানে একটু ইকেবানা স্টাইলে সাজানো রঙ্গন অনেক বেশি মানানসই।

- বেডরুমের দেয়াল রঙিন হলে রঙের সঙ্গে মিলিয়ে ফুল কিনতে পারেন। এছাড়া খাটের সাইড টেবিলে কিংবা খাটের সঙ্গেও ব্যবহার করতে পারেন মানানসই ফুল। ঘরের শোভা বাড়িয়ে নিন শুভ্র সাদা পাপড়ির দোলনচাঁপায়। ফুলের স্নিগ্ধ সৌন্দর্য বহুগুণ বেড়ে যাবে, যদি তা সাজিয়ে রাখা হয় লম্বা বা ওভাল শেপের ক্রিস্টাল কোনো ফ্লাওয়ার ভাসে। চাইলে অর্কিডও ঝুলিয়ে দেয়া যেতে পারে শোয়ার ঘরের জানালায় কিংবা দেয়ালে। এর একটি বাড়তি সুবিধাও আছে। অর্কিড অনেক দিন পর্যন্ত সতেজ থাকে।

- পড়ার ঘর বই-পুস্তকেই সাজানো থাকে। এরপরও এই ঘরে ফুলের ব্যবহারে কোনো মানা নেই। পড়ার টেবিলের ওপর কিংবা বুকশেলফের ওপর ফুলদানিতে সাজিয়ে রাখতে পারেন ফুল। তাহলে পড়ার ঘরের একঘেয়ে ভাব দূর হয়ে বৈচির্ত্য আসবে।

শুধু ঘর সাজাতেই নয়, ফুল আপনি অফিস রুম সাজাতেও ব্যবহার করতে পারেন। আপনার রুম, কিউবিকল ডেস্ক যদি তাজা ফুলে সাজানো থাকে, তবে আপনার মন তো সতেজ থাকবেই, দেখবেন কাজেও মনোযোগ বাড়বে।

- ফারজিন