বুধবার,২২ নভেম্বর ২০১৭
হোম / বিবিধ / রাশি অনুযায়ী প্রেম-দাম্পত্য ও যৌনজীবন
০১/১১/২০১৭

রাশি অনুযায়ী প্রেম-দাম্পত্য ও যৌনজীবন

-

মেষ (২১ মার্চ-২০ এপ্রিল)
মেষ জাতক-জাতিকার মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে না। তাই ভালোবাসার জন্য এদের সিংহ ও ধনু জাতককে প্রাধান্য দেওয়া উচিত। মেষ ও সিংহের ভেতর প্রেমের রসায়ন ভালো জমে।

আর যৌনতার ক্ষেত্রে - মঙ্গল হলো যৌনতা, যুদ্ধ এবং শক্তির দেবতা আর এ-সবকিছুই ফুটে ওঠে মেষ রাশির জাতক-জাতিকার জীবনে। দৈহিক প্রেমের ক্ষেত্রে এই মানুষেরা দুর্দান্ত প্রেমিক হিসেবে পরিচিত।

বৃষ (২১ এপ্রিল-২১ মে)
এ রাশির জাতক-জাতিকার জন্য কন্যা রাশির জাতক-জাতিকা উপযুক্ত। বৃষ ও কন্যার সমন্বয়ে যে ভালোবাসা প্রস্ফুটিত হয় সেটি অনেকদূর পর্যন্ত যেতে পারে।

যৌনতার ক্ষেত্রে- ভালোবাসায় সব পারদর্শী ভেনাসের প্রত্যক্ষ প্রভাব রয়েছে এই রাশির জাতক-জাতিকার ওপর। এরা দৈহিক ভালোবাসার ক্ষেত্রে খুব সংবেদনশীল। যৌনজীবনে এরা খুব অ্যাকটিভ। ছন্দোময় দৈহিক সম্পর্কে এই রাশির মানুষেরা পারঙ্গম।

মিথুন (২২ মে-২১ জুন)
এ জাতক-জাতিকার সঙ্গে তুলা ও সিংহ রাশির জাতক-জাতিকার সম্পর্ক গভীর হতে পারে। এ জাতকের সবচেয়ে ভালো বন্ধু হতে পারে মেষ এবং কর্কট জাতিকা।

যৌনতার ক্ষেত্রে- বুধ গ্রহের প্রভাবে সদাসর্তক মনোভাব, মিষ্টভাষী, আদুরে আর খুনসুটিপূর্ণ ব্যক্তিত্ব নিয়ে এই রাশির জাতক-জাতিকা রয়েছে মহাসুখে। বিছানায় এরা বৈচিত্র্যময় হন। এরা যেমন নমনীয়, তেমন দৃঢ়ও।

কর্কট (২২ জুন-২২ জুলাই)
এ জাতকের ভালো বন্ধু হতে পারে কন্যা রাশির জাতক। জীবনসঙ্গী হিসেবে কন্যা রাশিকে অগ্রাধিকার দিতে পারেন। তবে কন্যা রাশির জাতিকা পাওয়ার জন্য অনেক বাধা-বিঘ্ন পেরুতে হবে। সেটি না পারলে কুম্ভ রাশি বেছে নিন, তাদের সঙ্গেও সম্পর্ক হতে পারে।

দৈহিক প্রেমের ক্ষেত্রে কর্কট রাশির জাতক-জাতিকার সাহচর্য মিশ্র ধরনের। চরম আনন্দের মুহূর্তে এরা অনেক সময় বিচলিত বোধ করেন। সঙ্গীর প্রতি এরা খুবই যত্নবান।

সিংহ (২৩ জুলাই-২৩ আগস্ট)
মেষ রাশির যে কারও সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়া যেতে পারে। সিংহ জাতিকার সবচেয়ে ভালো বন্ধু পাওয়া যাবে মিথুন ও ধনু রাশিতে। বিশেষ করে কন্যা রাশির জাতক-জাতিকাদের এড়িয়ে যাওয়া ভালো।

যৌনতার ক্ষেত্রে- যে কোনো প্রগাঢ় সম্পর্কের ক্ষেত্রেই এদের ইতিবাচক মনোভাব, হাস্যরস আর শারীরিক দক্ষতা তুলনাহীন। তাই প্রবল যৌনাবেদনময় সিংহ রাশির কাউকে ভালোবাসার মানুষ হিসেবে পাওয়া সত্যিই ভাগ্যের ব্যাপার।

কন্যা (২৪ আগস্ট-২৩ সেপ্টেম্বর)
এ জাতকের সবসময় আদর্শ বন্ধু ও জীবনসঙ্গী হিসেবে বিবেচনা করা হয় কর্কট জাতককে। তবে মকরের সঙ্গেও সুসম্পর্ক গড়তে বাধা নেই। এ জাতকের সবচেয়ে বড় শত্রু হবে সিংহ জাতক বা জাতিকা থেকে।

যৌনতার ক্ষেত্রে- নিখাদ ভালোবাসার জন্য বিখ্যাত কন্যা রাশির ছেলেমেয়েরা। এদের শরীর খুবই সংবেদনশীল। এ-রাশির মানুষেরা অতিমাত্রায় দেহজ ভালোবাসায় বিশ্বাস করে।

তুলা (২৪ সেপ্টেম্বর-২৩ অক্টোবর)
এ জাতকের জন্য ভালো বন্ধু হতে পারে মিথুন জাতিকার কেউ। এছাড়া নিজ রাশির সঙ্গেও ভালো বনিবনা হতে পারে। তবে বৃশ্চিকের সঙ্গে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়া ঠিক হবে না। কারণ তুলা ও বৃশ্চিকের ভালোবাসার ঘর হবে ক্ষণস্থায়ী।

যৌনতার ক্ষেত্রে- দিনে বন্ধু আর রাত্রিতে প্রেমিক এই প্রবাদের সবচেয়ে বড় উদাহরণ হলো তুলারাশির ছেলেমেয়েরা। ভেনাসের প্রভাবে এরা সাধারণত সৌন্দর্য, রহস্যময়তা আর দৈহিক আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু। সঙ্গী-সঙ্গিনীদের শুধু একটু হাসি, উদ্দেশ্যপূর্ণ চাহনি, গাঢ় আলিঙ্গন বা হাতের মৃদু স্পর্শের মাধ্যমেই পটিয়ে ফেলতে পারে তুলারাশির পুরুষ বা নারীরা।

বৃশ্চিক (২৪ অক্টোবর-২২ নভেম্বর)
এ জাতকের সঙ্গে ধনু, মকর ও মীন জাতকের সম্পর্ক হতে পারে। নিজ রাশির জাতক-জাতিকার সঙ্গে সম্পর্ক হলে তা ক্ষণস্থায়ী হতে পারে। বিয়ের ক্ষেত্রে কর্কট জাতক-জাতিকাকে এড়িয়ে যেতে হবে। কারণ কর্কট ও বৃশ্চিকের সমন্বয়ে দাম্পত্য স্থায়ী হয় না।

যৌনতার ক্ষেত্রে- প্রতিটি বৃশ্চিকের মধ্যেই যেন লুক্কায়িত আছে একেকটি অ্যাটম বোমার শক্তি। প্রবল আবেগ আর উন্নাসিকতার জন্য বৃশ্চিক জাতক-জাতিকা বেশ বিখ্যাত বা কুখ্যাত।

ধনু (২৩ নভেম্বর-২১ ডিসেম্বর)
এ জাতক বা জাতিকার সঙ্গে মেষ ও মকরের ভালো সম্পর্ক গড়ে উঠতে পারে। ধনু জাতক বা জাতিকাকে এড়িয়ে চলুন। পাশাপাশি বৃশ্চিক, মকর ও মীন রাশির কাউকে প্রাধান্য দেওয়া যেতে পারে। এ জাতকের সবচেয়ে ভালো বন্ধুত্ব হতে পারে মেষ রাশির জাতকের সঙ্গে।

যৌনতার ক্ষেত্রে- ধনুরাশির কাউকে পার্টনার হিসেবে পাওয়াটা বেশ মজার অভিজ্ঞতার সূচনা করবে, কারণ সাধারণত বেশ অ্যাথলেটিক গড়নের ধনুরা বেশি রসবোধসম্পন্ন, বহির্মুখী এনার্জের্টিক এবং আশাবাদী।

মকর (২২ ডিসেম্বর-২০ জানুয়ারি)
এ জাতকের সঙ্গে নিজ জাতকের বন্ধুত্ব স্থায়ী হয় না। কন্যা, ধনু ও মীন জাতকের মধ্যে থেকে বন্ধু খুঁজে নেওয়া ভালো। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তুলা রাশির সঙ্গেও সম্পর্ক করা যেতে পারে। কারণ তুলা ও মকরের সমন্বয়ে প্রেমিক-প্রেমিকার বৃহস্পতি থাকে তুঙ্গে।

যৌনতার ক্ষেত্রে- শুরুর সময়টাতে আপনাকেই নিতে হবে কিছু আগ্রহী ভুমিকা; কিন্তু এরপর আর কোনো সমস্যা নেই। কারণ, আপনার মকর কাউন্টারপার্ট আপনার দৈহিক সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যের প্রতি থাকবে অতিমাত্রায় মনোযাগী। প্রেমিক হিসেবে এরা নির্ভরযোগ্য ও বিশ্বাসী।

কুম্ভ (২১ জানুয়ারি-১৮ ফেব্রুয়ারি)
এ জাতকের জন্য সবচেয়ে ভালো বন্ধু পাওয়া যাবে মকর রাশির জাতক-জাতিকা থেকে। কুম্ভ ও মকরের সমন্বয়ে দাম্পত্য এগিয়ে যায় অনেকদূর। পাড়ি দিতে পারে অনেক বাধা-বিপত্তি। এদের বৃহস্পতি থাকে তুঙ্গে।

ইউরেনাস প্রভাবাম্বিত কুম্ভ রাশির ছেলেমেয়েরা প্রখর বুদ্ধিমত্তার অধিকারী এবং নিজেদের প্রেমিক-প্রেমিকার প্রতি বিশেষ যত্নবান। আপনি যেভাবে এদের পেতে চান ঠিক সেভাবেই এরা ধরা দেবে। এখন আপনার ওপরই নির্ভর করছে এদের বোরিং পার্টনার হিসেবে দূরে ঠেলে দেওয়া বা বিশ্বস্ত সঙ্গী হিসেবে কাছে টেনে নেওয়া।

মীন (১৯ ফেব্রুয়ারি-২০ মার্চ)
এ জাতকের সবচেয়ে ভালো বন্ধু হতে পারে বৃশ্চিক রাশির কেউ। মীন ও বৃশ্চিকের সমন্বয়ে শনির দশা কেটে যেতে পারে। এগিয়ে যাওয়া যায় সমৃদ্ধির সঙ্গে। কুম্ভ রাশির সঙ্গে প্রেম ও ভালোবাসার সম্পর্ক গড়া ঠিক হবে না।

চাতুর্যপূর্ণ কথা, আপাদমস্তক দৈহিক আকর্ষণে পরিপূর্ণ এবং আবেগ দৃষ্টি দিয়ে বন্ধ করার চেষ্টা; এ সবকিছুই আপনি পাবেন দেহজ প্রেমের আরেক হান্টার মীন রাশির মানুষের কাছে। তার এতটুকু সংস্পর্শেও আপনি উত্তেজনায় অস্থির হয়ে উঠতে পারেন অথবা তার প্রগাঢ় আলিঙ্গন আপনাকে নিয়ে যেতে পারে অন্য জগতে।