বুধবার,১৬ অগাস্ট ২০১৭
হোম / ফিচার / বন্ধুর পথ পেরিয়ে চলা কর্মজীবী নারীর
১২/০১/২০১৬

বন্ধুর পথ পেরিয়ে চলা কর্মজীবী নারীর

-

বর্তমান বিশ্বে যে কোনো দেশেই কর্মজীবী নারীরা অর্থনীতির চাকা সচল রাখার ক্ষেত্রে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বাংলাদেশের অর্থনীতিতে কর্মজীবী নারীদের অবদান অনস্বীকার্য, এবং নারীর অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের সঙ্গে সঙ্গে দেশের সামগ্রিক উন্নয়নের সম্পর্কটিও এখন বেশ স্পষ্ট।

বাংলাদেশের কর্মজীবী নারী বললে প্রথমেই চোখে ভেসে উঠে যাদের ছবি তারা হলেন গার্মেন্টসকর্মী নারীরা। তবে গার্মেন্টসকর্মী নারীদের পাশাপাশি দেশের প্রচুর সংখ্যক নারী এখন ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পে অংশ নিয়ে উপার্জন করছে। এই খাতে অংশগ্রহণের মাধ্যমে অনেক নারী নিজের অধীনে আরো কয়েকজন নারীর উপার্জনের ব্যবস্থা করছেন। এছাড়া নিজ গৃহের অভ্যন্তরেই পশু-পাখির ক্ষুদ্র খামার তৈরির মাধ্যমে উপার্জন করছেন নারীরা। কাজ করছেন গার্মেন্টস ছাড়া অন্যান্য আরো অনেক শিল্প কারখানাতেও।

উৎপাদনমুখী এসব শিল্প ছাড়াও প্রচুর নারী কাজ করছেন বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন অফিস-আদালত, ব্যাংক, হসপিটাল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানসহ আরো অনেক ক্ষেত্রে। নারীরা কাজ করছেন আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ অন্যান্য নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীতেও। আর এসব পেশায় কাজ করতে এসে নারীরা বেড়িয়ে এসেছেন নিজ গৃহকোণ ছেড়ে, অনেকে বাড়ি ছেড়েও দূরে আসছেন বা যাচ্ছেন পেশার প্রয়োজনে।

তবে অর্থনৈতিকভাবে নারীর ক্ষমতায়ন হলেও সামাজিকভাবে নারীর ক্ষমতায়ন কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে পৌঁছায়নি এখনও। কর্মজীবী নারীরা নতুন মা হলে কর্মস্থলে ভালো শিশু পরিচর্যা কেন্দ্রের সুবিধা পান না ৯৯ শতাংশ ক্ষেত্রেই। ফলে শিশুর পরিচর্যায় একটু এদিক ওদিক হলেই কর্মজীবী নারীরা ‘ভালো মা’ হন না, এমন অপমানজনক ধারণাটি আরো জোরালো হয়ে ওঠে অনেক পরিবারে। সবচেয়ে দুঃখজনক বিষয় হলো যে, এখনও এমন নারীবিদ্বেষী ধারণা পোষণ করেন আমাদের দেশের অনেকেই। শুধু সন্তানের দেখাশোনা করার সু-ব্যবস্থা না থাকার কারণে চাকরি ছেড়ে দেয়া নারীর সংখ্যা নেহায়েতই কম না।

আরো রয়েছে বিয়ের পর ঘরের বৌয়ের বাইরে যাওয়া নিয়ে শ্বশুড়বাড়ির আপত্তির বিষয়টি। এ ধরনের সেকেলে চিন্তা শহরাঞ্চলে অনেক কমে আসলেও, মফস্বলসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলের নারীরা এখনও শুধু মাত্র সংসার সামলানোর ও গৃহশান্তি বজায় রাখার জন্য কাজ ত্যাগ করতে বাধ্য হন।

এদিকে শহরাঞ্চলগুলোতে বিশেষ করে ঘরের বাইরে নারীর সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়গুলো এখনও নিশ্চিত হয়নি। গতবছরও ঢাকায় ঈদের মৌসুমে শপিংমলে সেলস গার্ল হিসেবে কর্মরত এক নারী রাতে বাড়ি ফেরার পথে গণধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন। পথেঘাটে চলতে ইভটিজিং, আর বাসে উঠলে পুরুষ সহযাত্রী বা হেল্পারদের হাতের অবাঞ্ছিত ছোঁয়া নিয়মিত ঘটনা যেন। এসব ক্ষেত্রে কোনো মেয়ে প্রতিবাদ করতে গেলে বেশিরভাগ সময়ই আশেপাশের মানুষদের কাছ থেকে সমর্থন পান না এখনও।

এছাড়া কর্মজীবী নারীদের আবাসনের সংকট দিন দিন বাড়ছেই, কারণ পেশাগত ও পড়াশোনার কারণে নিজ গৃহ ছেড়ে শহরাঞ্চলে এসে বসবাস করা নারীর সংখ্যাও কম না। বাড়িভাড়া চাইতে গেলে মুখের ওপরে বাড়িওয়ালাদের 'না' বলে দেয়া, চাহিদার তুলনায় মেয়েদের হোস্টেলের সংকট, হোস্টেল কর্তৃপক্ষের অসৌজন্যমূলক আচরণ, অতি নিম্মমানের খাবার পরিবেশন, কথায় কথায় ভাড়া বাড়ানো এবং বাড়তি টাকা আদায়, প্রভাবশালীদের কারণে সরকারি হোস্টেলে প্রকৃত কর্মজীবীদের সিট না পাওয়া, আয়া-বুয়া ও পিওনদের দুর্ব্যবহার এবং অহেতুক নিয়মনীতির বাড়াবাড়ি এসব কিছু মেনে নিয়েই হোস্টেলগুলোতে থাকতে হয় ছাত্রী ও কর্মজীবী নারীদের।

মহিলা বিষয়ক অধিদফতর সূত্র অনুযায়ী, কর্মজীবী নারীদের জন্যে রাজধানীতে মোট ৩টি সরকারি হোস্টেলের মধ্যে নীলক্ষেতে ৪৯৭, মিরপুর হোস্টেলে ১৪৫ এবং খিলগাঁওয়ে ১৮৮টি সিট রয়েছে। তবে ঢাকায় কর্মজীবী নারীদের আবাসন সংকট নিরসন করতে এ ধরনের হোস্টেল প্রয়োজন এর অন্তত ১০ গুণ।

তবে এতোসব বাধা-বিপত্তির পরেও বাংলাদেশের কর্মক্ষেত্রে নারীর সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে, সেটিই আশার কথা।

মহিলা হোস্টেলের একটি তালিকাঃ

১. নীলক্ষেত কর্মজীবী মহিলা হোস্টেল
২, বাবুপুরা, নীলক্ষেত, ঢাকা।

২. খিলগাঁও কর্মজীবী মহিলা হোস্টেল
বাসাবো, খিলগাঁও, ঢাকা।

৩. হ্যাপি হোমস গার্লস রেসিডেন্স
মা আমেনা টাওয়ার, ৫, শাহ আলী বাগ (দ্বিতীয় তলা), মিরপুর ১, ঢাকা।

৪. রূপালী গার্লস হোস্টেল
১৬/৯ ইন্দিরা রোড, তেজগাঁও কলেজ লেন, ফার্মগেট, ঢাকা।

৫. মাদার তেরেসা হোমস
বাড়ী- ১৬, সড়ক- ৩/বি, সেকটর- ৯,
উত্তরা (মাস্কাট প্লাজার পিছনে), ঢাকা।

৬. ওয়াইডবিউসিএ গার্লস হোস্টেল
১১ গ্রিন স্কয়ার, গ্রিন রোড, ঢাকা।

৭. ইউরো চয়েস
রিজিয়া মহল, চ-১১৪/৭, মহাখালী (ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির পিছনের দিকে), ঢাকা।

৮. নারী নিবাস
৭৬২ সাত মসজিদ রোড, ধানমণ্ডি, ঢাকা।

৯. লাবণ্যপ্রভা ছাত্রী নিবাস
৪১/১৪/বি, হাজী আফসার উদ্দিন লেইন,
জিগাতলা, ধানমণ্ডি, ঢাকা।

১০. ব্যতিক্রম গার্লস হোস্টেল
২৫/২ খিলজি রোড, শ্যামলী, ঢাকা।

- এস হক