বুধবার,২২ নভেম্বর ২০১৭
হোম / বিবিধ / ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনে বাংলাদেশের পিয়া
১১/২১/২০১৬

‘ভোগ’ ম্যাগাজিনে বাংলাদেশের পিয়া

-

বাংলাদেশের ফ্যাশনজগতে মডেল ও অভিনেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়ার জনপ্রিয়তা আকাশচুম্বী, পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ফ্যাশনাঙ্গনেও পিয়ার নামটি একেবারে অচেনা নয়। গ্ল্যামারাস পিয়া একাধিকবার বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মডেল হিসেবে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। সম্প্রতি পিয়ার কৃতিত্বের খাতায় যুক্ত হয়েছে নতুন এক অর্জন- বিশ্বখ্যাত ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনের ভারতীয় সংস্করণের অক্টোবর সংখ্যার প্রচ্ছদে আরও পাঁচজন মডেলের সঙ্গে কভারে স্থান করে নিয়েছেন বাংলাদেশের এই টপ মডেল। এই প্রথম কোনো বাংলাদেশি নারী মডেল ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদ পাতায় নিজের জায়গা করে নিয়েছেন। (উল্লেখ্য: এর আগে প্রথম বাংলাদেশি মডেল হিসেবে আসিফ আজিম ‘ভোগ’-এর প্রচ্ছদে আসেন।)

‘ভোগ’ ম্যাগাজিনের নবম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ সংখ্যার প্রচ্ছদে ‘সেলিব্রেটিং বিউটি ইন ডাইভারসিটি’ শিরোনামে দ্যুতি ছড়ান পিয়া। গত অক্টোবর মাসের ১৪ তারিখে ২৫ বছর বয়সে পদার্পণ করা পিয়ার সঙ্গে এ প্রচ্ছদে উপস্থিত বাকি ৫ জন মডেল হলেন ভারতের পূজা মূর (২৪), নেপালের বর্ষা থাপা (২২), শ্রীলঙ্কার শেনেল রদ্রিগো (২১), মালদ্বীপের রাউধা আথিফ (২০) ও ভুটানের দেকি ওয়াংমো (২২)।

এরা প্রত্যেকেই এখানে নিজ নিজ দেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। এশিয়ার নারীদের নিয়ে সাজানো এই প্রচ্ছদের থিম ছিল বৈচিত্র্য এবং সংখ্যাটির প্রধান লেখার শিরোনাম তার সঙ্গে তাল মিলিয়েই রচিত - "These talented and driven women are the perfect ambassadors for diversity" (এই প্রতিভাবান এবং অনুপ্রাণিত নারীরা বৈচিত্র্যের যথাযথ দূত।)

পিয়া ফটোশুটটির জন্য দু’দিনের সফরে ভারতে যান এবং ফিরে এসে ‘ভোগ’ দলের পেশাদারিত্বের তারিফ করেন গণমাধ্যমের কাছে। মুম্বাইয়ের মেহবুব স্টুডিওতে ২৯ জুলাই সংখ্যাটির ফটোশ্যুট হয়, আর এই চিত্রধারণের দায়িত্বে ছিলেন ‘ভোগ’-এর নামকরা ফ্যাশন এডিটর আনাইতা আদাজানিয়া। ক্যামেরার পেছনে ছিলেন ভারতের শিখা, আর হেয়ার স্টাইলে প্যারিসের প্রখ্যাত ফ্যাশন আইকন সাইরিলে।

এ-প্রসঙ্গে উচ্ছ্বাসিত ও আনন্দিত পিয়া বলেন, “ভোগ একটি বিশ্বখ্যাত ম্যাগাজিন। এর প্রচ্ছদের মডেল হতে পেরে অবশ্যই ভালো লাগছে। এটি ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়।” পিয়া জানান, তাঁর সব সময়ের স্বপ্ন ও ইচ্ছে ছিল দেশ-বিদেশের বিভিন্ন ফ্যাশন ম্যাগাজিনের সঙ্গে কাজ করার। যদিও উচ্চাকাক্সক্ষী পিয়া এর আগে ভারতে সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সময় একটি ম্যাগাজিনের জন্য কাজ করেছিলেন; কিন্তু ‘ভোগ’-এর মতো আন্তর্জাতিক মানের ফ্যাশন ম্যাগাজিনে কাজ করাটাকে ‘ক্যারিয়ারের নতুন একটি সফলতা’ বলে মনে করেন।

কেন নয়? ‘ভোগ’, বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী ফ্যাশন পত্রিকা, প্রায় ২৩টি দেশ থেকে প্রকাশিত হয়ে থাকে এবং অধিকাংশ তারকাদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে থাকে এই ম্যাগাজিনটি। এটি আন্তর্জাতিকভাবে (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ব্যতীত) প্রায় ১২.৫ মিলিয়ন পাঠকের হাতে যায়। ‘ভোগ’ ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে এর আগে দেখা গিয়েছে নামকরা সব হলিউড-বলিউডের তারকাদের।

পিয়া আরও বলেন, “বিশেষ করে আমি যে তাদের (‘ভোগ’) সঙ্গে কাজ করতে পারি, তারা আমাকে তাদের কাজের যোগ্য মনে করেছেন; এটিই আমার জন্য অনেক বড় প্রাপ্তি।”

২০০৭ সালে ‘মিস বাংলাদেশ’ খেতাব বিজয়ী হওয়ার পরে ২০০৮ সাল হতে র‌্যাম্প মডেলিং দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করেন পিয়া। ২০১৩ সালে পিয়া ১৯টি দেশের প্রতিযোগীদের পেছনে ফেলে ‘মিস ইন্ডিয়ান প্রিন্সেস ইন্টারন্যাশনাল’ এর মুকুট জয় করেন। ক্যারিয়ারের পরের দিকে নাটক-চলচ্চিত্রে অভিনয় করে তিনি নজর কেড়েছেন সাধারণ দর্শকের। রেদওয়ান রনি পরিচালিত ‘চোরাবালি’ দিয়ে ঢালিউডে যাত্রা শুরু করা পিয়া পরবর্তীকালে ‘স্টোরি অব সামারা’ ও ‘গ্যাংস্টার রির্টানস’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন।

রেড কার্পেট ও র‌্যাম্পে নিজের আধিপত্য বজায় রাখার সঙ্গে অলরাউন্ডার পিয়া একজন শিক্ষানবিশ আইনজীবীও। পিয়ার স্বপ: আইন পেশাতেও প্রতিষ্ঠিত হওয়া ও ক্যারিয়ার গড়া। লন্ডন কলেজ অব লিগ্যাল স্টাডিজ (এলসিএলএস) থেকে শেষ বর্ষের পরীক্ষা দিয়েছেন পিয়া। সংবিধান প্রণেতা ও সুবিদিত প্রবীণ আইনজীবী ড. কামাল হোসেনের সহকারী হিসেবে কাজ করছেন ব্যস্ত এই অভিনেত্রী। তাছাড়া বিসিএস পরীক্ষা দেয়ার জন্যও প্রস্তুতি নিচ্ছেন তিনি।
‘ভোগ’-এর সঙ্গে সাক্ষাৎকারে পিয়া জানান যে, ভবিষ্যতে ভালো ভালো ছবি করার পাশাপাশি দেশের বাইরে থেকে ব্যারিস্টারি ডিগ্রি নেওয়ার ইচ্ছে তাঁর। উল্লেখ্য, ইতোমধ্যে ব্রিস্টল ইউনিভার্সিটি থেকে বার-এট-ল পড়তে যাবার অফার লেটারও পেয়েছেন সম্ভাবনাময়ী এই নায়িকা।

- নুসরাত ইসলাম