বৃহস্পতিবার,২৩ নভেম্বর ২০১৭
হোম / রূপসৌন্দর্য / দূর করুন চোখের কালি
১১/১১/২০১৬

দূর করুন চোখের কালি

-

অ্যালার্জি, পানিশূন্যতা, অনিদ্রা, ধূমপান, দুশ্চিন্তা ইত্যাদি বিভিন্ন কারণে চোখের নিচে কালি পড়ে, ফোলাভাবও হয়। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে কিছু সহজ সমাধান জেনে রাখা উচিত।

মেকআপ ব্যবহার করে চটজলদি চোখের নিচের ফোলা বা কালচে-ভাব ঢেকে ফেলা যায়। কিন্তু সেটা ক্ষণস্থায়ী। এর জন্য প্রয়োজন বিশেষ যতœ প্রয়োজন। বিভিন্ন প্রসাধনী বাজারে সহজলভ্য ঠিকই, কিন্তু এগুলো ব্যবহারে নানা ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হতে পারে। তাই
প্রাকৃতিক উপায় বেছে নেওয়াই উত্তম। এখানে কিছু সহজ ও ঘরোয়া উপায় উল্লেখ করা হলো।

আমন্ড অয়েল
এই তেলে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন ই, যা ত্বকের আর্দ্রতার মাত্রা বজায় রাখতে সহায়ক। এমনকি চোখের নিচে পাতলা ত্বকের যতেœর জন্যও এই তেল বেশ উপযোগী। নিয়মিত চোখের নিচের ত্বকে এই তেল ব্যবহারে কালচে দাগ দূর হবে এবং বলিরেখাও কমে আসবে।

রাতে ঘুমানোর আগে চোখের নিচে ও উপরে হালকা মালিশ করে তেল লাগিয়ে ঘুমান। সকালে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে উপকার পাওয়া যাবে।

কাঁচা আলু
আলুর রস ত্বকের কালচেভাব দূর করতে সহায়তা করে। তাই চোখের নিচের কালচেভাব দূর করতে আলু বেশ উপকারী।

আলু কুচি করে চিপে রস বের করে নিন। ওই রস চোখের চারপাশে ভালোভাবে তুলার সাহায্যে লাগান। ১০ থেকে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। অথবা আলু পাতলা করে কেটে চোখের উপর দিয়ে বিশ্রাম নিন কিছুক্ষণ। প্রতিদিন এক থেকে দুই বার করুন, টানা দুই সপ্তাহ। চোখের কালো দাগ দূর হবে।

শসা
শসায় রয়েছে প্রাকৃতিক অ্যাসট্রিনজেন্ট, যা কালোভাব দূর করতে এবং চোখ শীতল রাখতে সাহায্য করে। মোটা করে শসা কেটে ৩০ মিনিট ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করে নিতে হবে। ওই ঠান্ডা শসার টুকরা চোখের উপর দিয়ে অপেক্ষা করতে হবে ১০ মিনিট। তারপর ধুয়ে ফেলতে হবে।

অথবা শসার রস ও সমপরিমাণ লেবুর রস মিশিয়ে তুলার সাহায্যে চোখের চারপাশে লাগিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। প্রতিদিন যেকোনো একটি উপায়ে শসা ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যাবে।

গোলাপজল
রূপচর্চায় এই সুগন্ধি পানির ব্যবহার বেশ পুরানো। ত্বক শীতল রাখতে এবং উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে গোলাপজলের জুড়ি নেই।

ঠান্ডা গোলাপজলে তুলার প্যাড ভিজিয়ে চোখের উপর দিয়ে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। এরপর পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। দিনে দু’বার, এক সপ্তাহ ব্যবহারে কালি থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

ঠান্ডা টি-ব্যাগ
গ্রিন টি বা ক্যামোমাইল টি-ব্যাগ গরম পানিতে ভিজিয়ে এর নির্যাস খানিকটা বের করে তা ফ্রিজে রেখে ঠান্ডা করে নিতে হবে। চোখের উপর ওই ঠান্ডা টি ব্যাগ দিয়ে ১০ মিনিট অপেক্ষার পর ধুয়ে ফেলতে হবে। প্রতিদিন ব্যবহারে চোখের নিচের কালোভাব এবং ফোলাভাব দূর হবে।

ঠান্ডা দুধ
দুধ চোখের দাগ ও ফোলাভাব দূর করতে সহায়তা করে। ঠান্ডা দুধে তুলা ভিজিয়ে চোখের উপর দিয়ে বিশ্রাম নিন। কিছুক্ষণ পর পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

কমলার রস
কয়েক ফোঁটা গিøসারিনের সঙ্গে কমলার রস মিশিয়ে তুলার সাহায্যে চোখের চারপাশে লাগিয়ে নিন। কয়েক মিনিট অপেক্ষা করে ধুয়ে ফেলুন।

লেবুর রসের মতো কমলার রসও ত্বকের কালচেভাব দূর করে জেল্লা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে।

লেবু ও কমলার রস দিনে নয়, রাতে ব্যবহার করতে হবে।

টমেটো
এতে আছে লাইকোপেন, ভিটামিন সি এবং রেটিনল, যা রক্তসঞ্চালন বৃদ্ধি করে এবং কোষ গঠনে সহায়তা করে। তাছাড়া ত্বকের রং উজ্জ্বল করে ও ত্বকের কালচেভাব দূর করতে সাহায্য করে টমেটো। এক টেবিল চামচ টমেটোর রস, আধা চামচ লেবুর রস, একচিমটি হলুদগুঁড়া এবং একচিমটি চালের গুঁড়া মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে বানিয়ে চোখের চারপাশে লাগান। ১০ থেকে ১৫ মিনিট অপেক্ষার পর ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে উপকার পাওয়া যাবে।

যেকোনো ঘরোয়া পদ্ধতিই ত্বকের জন্য উপকারী এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া মুক্ত। তবে নিয়মিত ও ধৈর্য সহকারে ব্যবহার করতে হবে।

- অদ্বিতী