বুধবার,১৬ অগাস্ট ২০১৭
হোম / খাবার-দাবার / পূজার ভোজ - ১
১০/০১/২০১৬

পূজার ভোজ - ১

-

কলেজে শিক্ষকতা করেন সুনীতি সাহা, কিন্তু রান্না তার প্যাশন। দেশ-বিদেশের নানা ধরনের রেসিপি ট্রাই করে প্রিয়জনের পাতে দিয়ে পান এক অন্য ধরনের আনন্দ। আর দুর্গাপুজাতে তো বেশ কয়েকদিন ধরেই তৈরি করবেন বিভিন্ন মুখরোচক পদ। সেখান থেকে প্রিয় কয়েকটি রেসিপি পাঠকদের জন্য পাঠিয়েছেন তিনি।

১। হিং কচুরি

উপকরণঃ
ছাতু- ১ কাপ
ময়দা- ১ কাপ
ডালডা- ১ কাপ
শুকনো লঙ্কাগুঁড়ো- ৪ চা-চামচ
চিনি- ১/৪ কাপ
হিং গুঁড়ো- ২ চা-চামচ
জোয়ান (গোটা)- ৪ চা-চামচ
গোলমরিচগুঁড়ো- ৪ চা-চামচ
খাবার সোডা সামান্য
সাদা তেল পরিমাণমতো
নুন স্বাদমতো

প্রণালিঃ
প্রথমেই কচুরির জন্য পুর বানাতে হবে।

একটি বাটিতে ছাতু, লঙ্কার গুঁড়ো, সোডা, হিং, জোয়ান, গোলমরিচগুঁড়ো নিন। তাতে আধা চামচ নুন ও চিনি দিন।

বাটিতে জল দিয়ে উপকরণগুলো ভালো করে মেখে নিন।

এবার একটি বাটিতে ময়দা, সামান্য সোডা, নুন ও তেল দিন। বাটিতে জল দিয়ে ভালো করে উপকরণগুলো মেখে নিন।

ময়দা মাখা হয়ে গেলে লেচি কেটে তার মধ্যে পুর ভরুন। পুর ভরে লেচির মুখ বন্ধ করে দিন।

এবার তা লুচির আকারে গড়ুন। খেয়াল রাখবেন, লেচি বেলার সময় যেন পুর বেরিয়ে না যায়।

একটি কড়াইয়ে তেল দিন। তার মধ্যে ডালডা যোগ করুন।

বলগুলো এবার লুচির আকারে গড়ুন।

গরম তেলে ভেজে তুলে নিন।

২। টমেটো বাদাম চাটনি

উপকরণঃ
টমেটো- ১ কাপ, কুচানো
রসুন- ৩ টেবিল চামচ, থেঁতো
লঙ্কা- ৫-৬টি
জিরে- ১ চা-চামচ
ধনেপাতা কুচানো- আধা কাপ
বাদামবাটা- আধা কাপ
চিনি সামান্য
তেল পরিমাণমতো
নুন স্বাদমতো
কারি পাতা- ৪-৫টি (ঐচ্ছিক)

প্রণালিঃ
গ্যাসে কড়াই বসিয়ে তাতে ২ চামচ তেল দিন। তেল গরম হলে কড়াইয়ে জিরে দিন।

এরপর একে একে কাঁচালঙ্কা, কারিপাতা, রসুন দিয়ে ভাজতে থাকুন।

রসুন হালকা লাল হয়ে এলে তাতে টমেটোর টুকরো দিয়ে ভাজতে থাকুন।

এবার কড়াইয়ে সামান্য নুন মেশান। তাতে ধনেপাতা কুচি দিয়ে ভাজতে থাকুন।

এবার চিনেবাদাম গুঁড়ো দিয়ে ভাজতে থাকুন।

হয়ে গেলে ঢেলে পরিবেশন করুন।

৩। মিষ্টি মিষ্টি পোলাও

উপকরণঃ
গোবিন্দভোগ চাল- ২ কাপ, অল্প হলুদ মেশানো জলে ভেজানো
চিনি- আধা কাপ
ঘি- ১ কাপ
গরম মসলাগুঁড়ো- ৩ চা-চামচ
জায়ফল-জয়ত্রী- ৪ চা-চামচ, শুকনো খোলায় ভেজে গুঁড়ো করা
তেজপাতা- ৫-৬টি
কাজু ও কিসমিস- ১ কাপ
এলাচ- ৫-৬টি
লবঙ্গ- ৫-৬টি
দারুচিনি- ৫-৬টি
জল পরিমাণমতো
নুন স্বাদমতো

প্রণালিঃ
গ্যাসে কড়াই বসিয়ে তাতে ঘি দিয়ে দিন। ঘি গলে গেলে তাতে তেজপাতা, এলাচ, লবঙ্গ, দারুচিনি দিয়ে দিন।

এবার কড়াইয়ে চাল দিন। খানিকক্ষণ পর কড়াইয়ে কাজুবাদাম ও কিসমিস দিয়ে নাড়াচাড়া করুন। কিছুক্ষণ পর কড়াইয়ে জল দিয়ে ঢাকা দিয়ে দিন।

দশ মিনিট পর ঢাকনা খুলে কড়াইয়ে চিনি, নুন, জায়ফল-জয়ত্রীগুঁড়ো ও গরম মসলা দিন।

সমস্ত উপকরণগুলো ভালোভাবে মিশিয়ে নিন।

ডিশে ঢেলে উপরে কাজুবাদাম-কিসমিস ছড়িয়ে পরিবেশন করুন।

ব্যস, মিষ্টি পোলাও তৈরি।

৪। বাসন্তী বেগুন

উপকরণঃ
বেগুন- ৫-৬টি, লম্বা করে কাটা
সরষেবাটা- ১ কাপ
নারকেল কোড়ানো- আধা কাপ
দই- ৪ টেবিল চামচ
কাঁচালঙ্কা- ৪-৬টি
ধনেপাতাকুচি- ২-৩ চা-চামচ
কালোজিরে- ১ চা-চামচ
চিনি- ১ চা-চামচ
সরষের তেল- ১ কাপ
নুন স্বাদমতো
জল পরিমাণমতো

প্রণালিঃ
কেটে রাখা বেগুনগুলো ভালোভাবে ভেজে নিন।

এবার একটি বাটিতে টক দই, কোড়ানো নারকেল, সামান্য হলুদ নিন। ভালোভাবে সেটিকে মেশান।

এবার কড়াইয়ে সরষের তেল দিয়ে দিন। তেল গরম হলে তাতে কালোজিরে ফোড়ন দিন।
এবার ওই মিশ্রণটি তেলে দিয়ে দিন।

খানিকক্ষণ নাড়াচাড়ার পর তার উপর চেরা কাঁচালঙ্কা দিয়ে দিন।

খানিকক্ষণ ফোটানোর পর তাতে সামান্য জল মেশান। এবার তাতে নুন, স্বাদমতো চিনি দিয়ে দিন।

ভালো করে নেড়েচেড়ে তাতে সরষেবাটা দিয়ে দিন।

উপরে ধনেপাতা ছড়িয়ে দিন নামানোর আগে।

এবার ওই গ্রেভি ভাজা বেগুনগুলোর উপর ছড়িয়ে দিন।

তৈরি হয়ে গেল বাসন্তী বেগুন।

৫। ছানার ডালনা

উপকরণঃ
বড়া বানানোর জন্য :
ছানা- ৫০০ গ্রাম
আদাবাটা- ২ চা-চামচ
লঙ্কাগুঁড়ো- ১ চা-চামচ
হলুদগুঁড়ো- ১/২ চা-চামচ
কর্নফ্লাওয়ার অল্প
জিরেগুঁড়ো সামান্য
চাট মসলা সামান্য
নুন আন্দাজমতো

ডালনার জন্য :
গোটা জিরে- ১ চা-চামচ
তেজপাতা- ২টি
চিনি, হলুদ, শুকনো লঙ্কা, টমেটো পিউরি - ৪ চা-চামচ
গোটা গরম মসলা (সব