রবিবার,২০ অগাস্ট ২০১৭
হোম / বিনোদন / আগস্টের হলিউড টপচার্ট
০৯/০৬/২০১৬

আগস্টের হলিউড টপচার্ট

- অহ নওরোজ

সিনেমাপ্রেমীদের কাছে পৃথিবীর বিভিন্ন সিনেমা ইন্ডাস্ট্রির টপচার্টে থাকা সিনেমাগুলো একটু বেশিই আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়। চলতি বছরের আগস্ট মাসে হলিউডের টপচার্টে থাকা সিনেমাগুলো সম্পর্কে একটু খোঁজ খবর নেয়া যাক।

সুইসাইড স্কোয়াড : অ্যামেরিকান জনপ্রিয় কমিক সিরিজ ডিসি কমিক্সের ব্যানারে নির্মিত হয়েছে থ্রিলার সিনেমা ‘সুইসাইড স্কোয়াড’। এটি নির্মাণ করেছেন মার্কিন পরিচালক ডেভিড আইয়ার। জুলাই মাসে সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছে বিশ্বব্যাপী। উইল স্মিথ, জেরাড লেটো, মারগট রবিসহ এতে অভিনয় করেছেন একগুচ্ছ মার্কিন অভিনয়শিল্পী। ১২৩ মিনিটের এই সিনেমাটি নির্মাণে খরচ পড়েছে ১৭৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ইতোমধ্যেই বক্স অফিস রেকর্ড গড়ে সিনেমাটি আয় করে ফেলেছে ২৮০ মার্কিন ডলার। যে-কারণে আগস্টের টপচার্টে ছিল এই সিনেমাটির নাম।
জেসন বোর্ন : জুলাই মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে আমেরিকা, বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে একযোগে মুক্তি পেয়েছে বোর্ন সিরিজের পঞ্চম সিনেমা ‘জেসন বোর্ন’। মুক্তির প্রথম সপ্তাহেই বেশ সাড়া পায় এই চলচ্চিত্র। এ্যাকশানভিত্তিক এই সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন জনপ্রিয় আমেরিকান পরিচালক পলগ্রিনগ্রাস। এতে অভিনয় করেছেন ম্যাট ড্যামন, অ্যালিসিয়া ভিকান্ডারের মতো অভিনয় শিল্পীরা। ১২০ মিলিয়ন খরচে নির্মিত এই ছবি এখনো পর্যন্ত আয় করেছে ১৯৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। এটি রয়েছে টপচার্টের দ্বিতীয় স্থানে।

ব্যাড মমস : আমেরিকান কমেডি সিনেমা ‘ব্যাড মমস’ মুক্তি পেয়েছে জুলাই মাসের ১৯ তারিখে। আমেরিকান পরিচালক জন লুকাস এবং স্কট মোর-এর যৌথ পরিচালনার এই সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন মিলা কুনিস, ক্রিস্টান বেল, ক্যাথেরিন হান, আন্নে মুমলসহ আরও অনেকে। ১০০ মিনিটের এই সিনেমা নির্মাণে মাত্র ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার খরচ হলেও সিনেমাটি এখনো পর্যন্ত আয় করেছে প্রায় ৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। এখনো পর্যন্ত টপচার্টের তৃতীয় স্থান দখল করে রেখেছে সিনেমাটি।

দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস : জুন মাসের বক্স অফিস শীর্ষে থাকা ‘দ্য সিক্রেট লাইফ অব পেটস’ সিনেমাটি প্রবল সাফল্য পাওয়ায় নতুন করে জুলাই মাসে বিশ্বব্যাপী মুক্তি দেওয়া হয়। সেখানেও জয়জয়কার। জুলাই সহ আগস্টের টপচার্টেও উঠে এসেছে এই ছবি। মূলত এটি কমেডি ঘরানার একটি এ্যানিমেটেড সিনেমা। প্রযোজনা করেছে আমেরিকান প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ইলুমিনেশন এন্টারটেইনমেন্ট। পরিচালনা করেছেন ক্রিস রেনাউড এবং ইয়ারো চেইনি। মাত্র ৭৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয়ে নির্মিত ৯০ মিনিট দীর্ঘ এই সিনেমাটি এখনো পর্যন্ত আয় করেছে ৫০৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

স্টার ট্রেক বিয়ন্ড : ‘স্টার ট্রেক বিয়ন্ড’ মূলত একটি সায়েন্স ফিকশন। তবে এটি নির্মিত হয়েছে দুঃসাহসিক এক অভিযানের উপর ভিত্তি করে। জাস্টিন লিন পরিচালিত এই সিনেমায় অভিনয় করেছেন জন সো, সাইমন পেগ, ক্রিস পাইনসহ আরও অনেকে। জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে মুক্তি পেলেও স্টার ট্রেক বিয়ন্ড প্রথম সপ্তাহেই ব্যয়ের টাকা উঠিয়ে লাভের খাতা খুলে বসে। যে-কারণে টপ চার্টে খুব সহজেই পঞ্চমে উঠে এসেছে সিনেমাটি। ১৮৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে নির্মিত এই সিনেমাটি এখনো পর্যন্ত আয় করেছে ১৯৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

নাইন লাইভস : ফ্রান্সে নির্মিত ইংরেজি ‘নাইন লাইভস’ সিনেমাটি মূলত একটি কমেডি। টম ব্র্যান্ড নামক এক লোকের মেয়ে রেবেকার জন্মদিনে একটি বেড়ালের সাক্ষাতের উপর ভিত্তি করে নির্মিত হয়েছে এই সিনেমাটি। নির্মাণ করেছেন মার্কিন পরিচালক বেরি সোনেনফেল্ড। মাত্র ৩০ মিলিয়ন খরচ হয়েছে নির্মাণে। এখনো পর্যন্ত লাভ করেছে ৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। টপচার্টে সিনেমাটির অবস্থান ছয়।

লাইটস আউট : জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহে আমেরিকান ভৌতিক সিনেমা ‘লাইটস আউট’ বাংলাদেশে মুক্তি পেলেও আমেরিকায় এটি মুক্তি পেয়েছিল গেল জুনের শেষে। তবে পুরো জুলাই মাসে ব্যবসায়িক সাফল্যের কারণে সিনেমাটি টপচার্টের অবস্থান ধরে রেখেছে। মাত্র ৪.৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে নির্মিত এই ছবি এখনো পর্যন্ত আয় করেছে ৮৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন ডেভিড স্যান্ডবারগ।

নার্ভ : জুলাই মাসের আলোচিত ক্রাইম সিনেমা ‘নার্ভ’ নির্মিত হয়েছে অ্যামেরিকান লেখিকা জেনি রায়্যানের উপন্যাস ‘নার্ভ’-এর উপর ভিত্তি করে। একত্রে নির্মাণ করেছেন হেনরি জোস্ট এবং এরিয়েল শুকম্যান। এতে মূল চরিত্রে অভিনয় করেছেন ইম্মা রবার্টস এবং ডেভ ফ্রান্সকো। ২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয়ে নির্মিত এই সিনেমাটি এখনো পর্যন্ত আয় করেছে ২৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। টপচার্টের আট নম্বরে জায়গা করে নিয়েছে সিনেমাটি।
গোস্টবাস্টার : অতিপ্রাকৃত ঘটনাকে উপজীব্য করে মার্কিন পরিচালক পল ফেইগ নির্মাণ করেছেন হাস্যরসাত্মক সিনেমা ঘোস্টবাস্টার। সিনেমটিতে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন মেলিসা ম্যাকার্থি, লেসলি জোন্স, ক্রিস্টেন ওয়েগ সহ আরও অনেকে। ১১৬ মিনিটের এই ছবি নির্মাণে খরচ হয়েছে ১৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর এখনো পর্যন্ত সিনেমাটি আয় করেছে ১৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। চলতি মাসের টপচার্টে সিনেমাটির অবস্থান নয় নম্বরে।

আইস এজ ; কলিশন কোর্স : মুক্তির আগে থেকেই থেকেই আলোচনায় ছিল জনপ্রিয় অ্যানিমেটেড সিনেমার সিরিজ, আইস এজের নতুন ‘সিক্যুআল আইস এজ ; কলিশন কোর্স’। জুন মাসে মুক্তি পেলেও সিনেমাটির সাফল্যের কারণে এটি বিশ্বব্যাপী মুক্তি দেওয়া হয় জুলাই মাসে। ওই মাসেও সিনেমাটি রমরমা আয়ের খাতা খোলে। মাইক থারমা ইরয়ারের পরিচালনায় নির্মিত এই সিনেমাটি জুন এবং জুলাই মিলে এপর্যন্ত আয় করেছে প্রায় ২৯০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। যে-কারণে এই ছবি উঠে এসেছে আগস্টের টপচার্টে।