বৃহস্পতিবার,২৩ নভেম্বর ২০১৭
হোম / ফ্যাশন / বর্ষার সাজপোশাক ও অনুষঙ্গ
০৮/১৬/২০১৬

বর্ষার সাজপোশাক ও অনুষঙ্গ

- ইরা

হঠাৎ ঝুপ করে বৃষ্টি, কখনওবা মেঘের ফাঁকে সূর্যের লুকোচুরি খেলা। এই মৌসুমে ঘর থেকে বের হওয়ার আগে বেশ কিছু প্রশ্ন মাথায় ঘুরতে থাকে। কি ধরনের পোশাক, জুতা বা স্যান্ডেল এবং অলঙ্কার বেছে নিতে হবে! তার পাশাপাশি এই আবহাওয়ার জন্য মানানসই মেকআপও বেশ জরুরি।
বর্ষায় সিক্ত প্রকৃতির সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিতে মানানসই পোশাক খুবই জরুরি। সুতি বা লিনেন জাতীয় পোশাক এ-সময় কিছুটা এড়িয়ে চলা যেতে পারে। কারণ এ-ধরনের পোশাকে কাদাছিটে দাগ পড়লে তা পরিষ্কার করা দুষ্কর। তাছাড়া সুতি কাপড় ভিজে গেলে শুকাতেও সময় নেয়। তাই এ সময় সহজে শুকিয়ে যায় এবং পানি শোষণ ক্ষমতা কম এমন কাপড় বেছে নেওয়া ভালো। এক্ষেত্রে জর্জেট, সামু সিল্ক, ক্রেপ জর্জেট ইত্যাদি কাপড় বেশ উপযোগী। এ-ধরনের কাপড়ে তৈরি পোশাক সহজেই শুকিয়ে যায় এবং ভিজলেও শরীরের সঙ্গে লেপটে থাকে না। তাই এই মৌসুমের জন্য এ-ধরনের পোশাকই উপযোগী।

তাছাড়া এই আবহাওয়ায় ডেনিম বা জিন্সের প্যান্ট এড়িয়ে চলতে হবে। কারণ অনেকটা একই। বৃষ্টিতে ভিজলে জিন্সের প্যান্ট সহজে শুকাবে না এবং পরিষ্কার করাও বেশ ঝামেলার।

বর্ষা মানেই সবুজ, কলাপাতা রং, নীল, আকাশি আর ধূসর রংয়ের প্রকৃতি। তাই এই সময়ে এসব রংয়ের পোশাকগুলো বেশি ভালো লাগে। মন খারাপ করা মেঘলা দিনে উজ্জ্বল রং বেশ ভালো লাগে। বিশেষত বিভিন্ন ধরনের ফুলেল বা প্যাটার্নের প্রিন্টের কাপড় বেছে নেওয়া যেতে পারে এই মৌসুমে।

এই মৌসুমে নিচে আঁটসাঁট এবং উপরে ঢোলাঢালা পোশাক বেছে নিতে হবে। এ-সময় জেগিংস, ল্যাগিংস ইত্যাদি আঁটসাঁট প্যান্টের সঙ্গে ঢোলাঢালা শার্ট পরা যেতে পারে। শ্রাগ এই মৌসুমে পরার জন্য আদর্শ পোশাক।

মেটালের গয়না এড়িয়ে চলা উচিত। কারণ পানিতে রং নষ্ট হয়ে যেতে পারে।
এবার আসা যাক পাদুকা বাছাইয়ের ক্ষেত্রে। এ-সময় জুতা বেছে নিতে হবে, যা পানিতে বেশ উপযোগী, পিচ্ছিল জায়গায় হাঁটতে সাহায্য করবে এমন। প্লাস্টিকের চপ্পল এবং জুতা বর্ষার দিনের জন্য সব থেকে উপযোগী। তাছাড়া এমন স্যান্ডেল বেছে নিতে হবে, যা পরলে পানিতে নষ্ট হবে না এবং স্লিপ কাটবে না। এসময় অবশ্যই চামড়া এবং কাপড়ের জুতা, ভেলভেট জুতা ইত্যাদি এড়িয়ে চলতে হবে। শুধু জুতা নয়, চামড়ার তৈরি যেকোনো অনুষঙ্গ এই বর্ষায় এড়িয়ে চলতে হবে। অতিরিক্ত উঁচু হিল অবশ্যই এড়িয়ে চলতে হবে এই সময়। বরং সামান্য উঁচু প্ল্যাটফর্ম হিল এই সময়ের জন্যে আদর্শ।

এই বর্ষায় মেকআপ হতে হবে হাল্কা। ফাউন্ডেশন, অতিরিক্ত আইশ্যাডো, মাস্কারা, লাইনার ইত্যাদি এড়িয়ে চলতে হবে। কারণ বেশি মেকআপ হঠাৎ বৃষ্টির কারণে ধুয়ে যেতে পারে। খুব অল্প পরিমাণে বিবি বা সিসি ক্রিম দেওয়া যেতে পারে মুখে। বিশেষ অনুষ্ঠান হলে ওয়াটারপ্রুফ ফাউন্ডেশন বেছে নেওয়া যেতে পারে। মেকআপে ব্যবহৃত অন্যান্য প্রসাধনীও হতে হবে ওয়াটারপ্রুফ। বিশেষত চোখের সাজের জন্য মাস্কারা এবং লাইনার বেছে নিতে হবে ওয়াটার প্রুফ। কারণ পানিতে চোখের মেকআপ ছড়িয়ে গেলে বাজে দেখাবে। তাই এসব দিক বিবেচনা করতে হবে।

মেঘলা দিন ভেবে সানস্ক্রিন এড়িয়ে যাওয়া চলবে না। কারণ মেঘের ফাঁক থেকে যতটুকু সূর্যরশ্মি এসে পৌঁছায়, তা ত্বকের জন্য যথেষ্ট ক্ষতিকর। তাই ত্বককে ক্ষতিকর রশ্মি থেকে সুরক্ষিত থাকতে হবে।

এবার আসা যাক বর্ষা থেকে বাঁচতে জরুরি অনুষঙ্গের কথায়। বর্ষায় সঙ্গে অবশ্যই ছাতা রাখতে হবে। তবে কালো বা গাঢ় নীল রংয়ের ছাতা বাদ দিয়ে রংবেরংয়ের ছাতা বেছে নিতে পারেন। রেইনকোটও বেছে নেওয়া যেতে পারে। এখন রেইনকোটেও এসেছে বৈচিত্র্য। ভারি আর বড়সড় রেইনকোটের বদলে এখন বাজারে আছে নানা মাপের এবং রংয়ের রেইনকোট। আররংচঙা রেইনকোট পছন্দ না হলে স্বচ্ছপ্লাস্টিকের তৈরি রেইনকোটও বেছে নেওয়াযেতে পারে। এগুলো এখন বেশ ফ্যাশনেবল। নিউমার্কেট, গুলিস্তান, পলওয়েল মার্কেট,বিভিন্ন সুপারশপে ছাতা ও রেইনকোটপাওয়া যায়।
এই সময় যে কোনো পোশাক এবং অনুষঙ্গবেছে নেওয়ার সময় মাথায় রাখতে হবেতা এই মৌসুমের জন্য উপযোগী কিনাএবং পানিতে টেকসই কিনা।