রবিবার,২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭
হোম / সম্পাদকীয় / পুষ্টির সঙ্গে মিলেমিশে সুস্বাদু হয়ে উঠুক ঈদ-আনন্দ
০৭/০১/২০১৬

পুষ্টির সঙ্গে মিলেমিশে সুস্বাদু হয়ে উঠুক ঈদ-আনন্দ

- তাসমিমা হোসেন

যদি এমন হতো, আমাদের হাত নেই- সরীসৃপ কিংবা চতুষ্পদী প্রাণীর মতো! অথবা আমরা এখনো আগুন আবিষ্কার করে উঠতে পারিনি!
সরীসৃপের মতো খাবার যদি কেবল গিলে খেতে হতো, কী করে জানতাম খাবারের কোষে কোষে কত স্বাদ লুকানো? রন্ধন করা খাবার যদি না পেতাম, তবে কী করে বুঝতাম, খাবারের স্বাদ কতভাবে জিভে জল আনতে পারে। কথিত আছে, আগুন আবিষ্কারের পর কোনো এক মাহেন্দ্রক্ষণে শিকার করা একটুকরো মাংস পড়ে গিয়েছিল আগুনের ভেতরে। আদিম মানুষ ভেবেছিল, মাংসের টুকরোটা বোধহয় নষ্টই হয়ে গেল। কিন্তু কঠিন সংগ্রামে শিকার করে আনা মাংস কি এত সহজে ফেলে দেওয়া যায়? তাই কৌতূহলে ঝলসানো মাংস মুখে তুলে নিতেই চমকে উঠেছিল আদিম মানুষ। এত স্বাদ! তারপরের ইতিহাস আমাদের সবার জানা।

পোড়ালে বা সিদ্ধ করলে খাবারের খাদ্যগুণ বাড়ে, কারণ, এরফলে মানুষের হজমের অযোগ্য সেলুলোজ সহজপাচ্য উপাদানে ভেঙে যায়। তাই, খাদ্যের পুষ্টিমান বাড়াতে রন্ধনের ভূমিকার তুলনা চলে না। দীর্ঘ পরমায়ু লাভের উপায় এখন আমাদের অজানা নয়। আর তা হলো, ভালো স্বাস্থ্য, সুষ্ঠু মানসিক পরিবেশ এবং কর্মচঞ্চল সুন্দর একটি জীবন। সেই জীবনের ফুয়েল হলো ভালো খাওয়া-দাওয়া। অথচ পৃথিবী ক্রমশ জটিল হয়ে পড়ছে। জীবিকা-নির্বাহের জন্য আরও বেশি সময় দিতে হচ্ছে সবাইকে। বাজার করা, রান্না করা, এমনকি খাওয়ার জন্য সময় কমে যাচ্ছে দিনকে দিন।

আমরা অনেকেই কাজের ফাঁকে ফাঁকে, পথ চলতে চলতে খেয়ে নিচ্ছি বাইরে তৈরি খাবার, চটজলদি খাবার (ফাস্ট ফুড)। এভাবে যদি ৩৬৫টি দিন চলতে থাকে তবে তার নেতিবাচক প্রভাব আমাদের স্বাস্থ্যের ওপর পড়তে বাধ্য। অথচ ভালো পুষ্টিমানের সহজ রেসিপি সেই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, রন্ধনের রসায়ন এক মহাবিস্ময়কর সূত্র। কিছু উপাদান ও উপকরণের বিচিত্র অনুপাতের মিশ্রণ কী বিস্ময়করভাবে তৈরি করে জাদুকরি স্বাদের খাবার। সেই যথাযথ অনুপাত আবিষ্কার করাটাও কম মুনশিয়ানার ব্যাপার নয়।

অনন্যা’র ঈদ-রেসিপি-সংখ্যায় রন্ধনশিল্পের সেই বৈচিত্র্যই তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। বরাবরের মতো এবারও এতে প্রাধান্য পেয়েছে পুষ্টি ও স্বাদের বিষয়টি। আশাকরি, রসনাবিলাসী ও খাদ্যসচেতন মানুষের কাছে কিছুটা হলেও নতুনত্বের স্বাদ এনে দেবে অনন্যা’র এই রেসিপি সংখ্যা।
পুষ্টির সঙ্গে মিলেমিশে আরো সুস্বাদু হয়ে উঠুক ঈদের আনন্দ।
ঈদ মোবারক।