বুধবার,২২ নভেম্বর ২০১৭
হোম / ভ্রমণ / সমুদ্র যাত্রায় দেশ ভ্রমণ : একের ভেতরে অনেক
০৬/১৬/২০১৬

সমুদ্র যাত্রায় দেশ ভ্রমণ : একের ভেতরে অনেক

- কাজী মাহদী আমিন

এক ছুটিতে অনেকগুলো দেশ ঘুরে দেখার সবচেয়ে আকর্ষণীয় উপায় হলো ক্রুজ। বৃহৎ এশিয়ার বিশ্বজনীন শহরসমূহ কিংবা এর অদ্ভুত সুন্দর ল্যান্ডস্কেপ দেখার অন্যতম উপায় সমুদ্র যাত্রা বা ক্রুজ। একসময় ক্যারিবিয়ানের সমুদ্রতীর ক্রুজ-এর জন্য বেশ জনপ্রিয় থাকলেও, বর্তমানে এশিয়াতেও জনপ্রিয়তা লাভ করেছে এই মাধ্যম ভ্রমণপিপাসুদের আগ্রহের ফলে।

কিছু কিছু ক্রুজ ১৪ রাত্রের মধ্যে শ্রীলঙ্কা, মিয়ানমার, মালয়েশিয়া এবং থাইল্যান্ড ভ্রমণ শেষ করতে পারে। অন্য দিকে তিন সপ্তাহের মধ্যে হংকং, তাইওয়ান, চীন, সাউথ কোরিয়া এবং জাপানের সমুদ্রবন্দরে পাড়ি দেওয়া সম্ভব ক্রুজের মাধ্যমে। এই সমুদ্র যাত্রায় পুরো দেশের আনাচেকানাচে হয়ত ঘুরে দেখা সম্ভব হবে না, তবে দর্শনীয় স্থানগুলো দেখা যাবে। তাছাড়া, যারা একলা অচেনা গন্তব্যে ঘুরে বেড়াতে অস্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন, তাদের জন্য ক্রুজে গিয়ে দল বেঁধে ঘুরে বেড়ানো একটি উত্তম বিকল্প।

বর্তমানে, সিংহভাগ ক্রুজ শুরু এবং শেষ হয় সিঙ্গাপুর কিংবা হংকং থেকে। দু’জায়গাতেই ফ্লাইট সার্ভিস ভালো এবং এদের অত্যাধুনিক বন্দর অজগ্র যাত্রী পরিচালনা করতে সক্ষম। সিঙ্গাপুর টু হংকং এবং বিপরীতভাবে হংকং টু সিঙ্গাপুর রুটে ভ্রমণ ক্রুজের জন্য বেশ জনপ্রিয়। কারণ, এই পথে একইসাথে ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া এবং বর্ণিয়ো ঘুরে দেখা যায়। আপনি যদি আরও পূর্বে চীন, জাপান এবং সাউথ কোরিয়া ঘুরে আসতে চান, তবে ক্রুজ ধরতে হবে হংকং থেকে। যেহেতু অনেকগুলো দেশ একসাথে ঘুরে দেখার জন্য ক্রুজ শিপে যাওয়া হয়, সেক্ষেত্রে আপনার পাসপোর্টে সংযুক্ত করতে হবে একটি আন্তর্জাতিক টুরিস্ট ভিসা। এই কর্ম সম্পাদনের দায়িত্ব ক্রুজ এজেন্সিগুলোই নেবে। আপনার কাজ হলো যাচাই করে একটি ভালোমানের এজেন্সিকে দায়িত্ব দেয়া।

যাদের পৃথিবী চষে বেড়ানোর বাসনা, তারা অবশ্যই ক্রুজের কথা মাথায় রাখতে পারেন। পুরোদস্তুর ফ্যামিলি ট্যুর কিংবা প্রিয়জনের সাথে হানিমুন, এই ঈদের ছুটিতে সমুদ্র যাত্রা হতে পারে আপনার জীবনের একটি স্মরণীয় ভ্রমণ।

খরচ
ক্রুজ এবং আনুষঙ্গিক সকল ব্যয় মিলিয়ে খরচ খুব কম পড়বে না। কিন্তু বিলাসবহুল জাহাজে পাঁচ তারকা আতিথিয়তায় একের অধিক দেশ দেখে বেড়ানোর সুযোগ পেতে একটু খরচ তো করতেই হয়। এসব ক্রুজ শিপগুলোতে পাবেন সব ধরনের আনন্দ বিনোদনের সুযোগ।
কখন যাবেন
ক্রুজের সময়সূচি মূলত টুরিস্ট কোম্পানিগুলোই ঠিক করে রাখে, যা আপনি সহজেই জেনে নিতে পারবেন তাদের ওয়েবসাইট থেকে।

প্রস্তুতি
ক্রুজের শুরু বুকিং দিয়ে। একটি দীর্ঘমেয়াদী ভ্রমণ হওয়ার ফলে ক্রুজের প্ল্যানিং আগে থেকে করতে হয়। ঢাকা থেকে ফ্লাই করে যেতে হবে কোন ক্রুজ স্পটে। কিছু প্যাকেজে আপনি ডিস্কাউন্টের সুযোগ পাবেন, যদি আগে বুক করে রাখেন। অনেক ক্ষেত্রে প্যাকেজের মধ্যেই ফ্লাইটসহ অফার পাবেন। ইন্টারনেটে একটু ঘাঁটাঘাঁটি করলেই সকল ইনফরমেশন পেয়ে যাবেন।

নিরাপত্তা
শিপের মধ্যে নিরাপত্তার ঘাটতি নেই তবে বন্দরে নেমে ঘোরাফেরা করার সময় বেশি টাকা-পয়সা বা দামি জিনিসপত্র না নেয়াই ভালো।

কিছু ক্রুজশিপের নাম ও ওয়েবসাইট ঠিকানা ।
স্টার ক্রুজ
http://www.starcruises.com/en/
ডিজনি ক্রুজ
https://disneycruise.disney.go.com/
দ্যা স্ট্র্যান্ড ক্রুজ
http://www.thestrandcruise.com/
প্রিন্সেস ক্রুজ
http://www.princess.com/