বৃহস্পতিবার,২৩ নভেম্বর ২০১৭
হোম / রূপসৌন্দর্য / বাহারি কেশসজ্জা
০৬/১৬/২০১৬

বাহারি কেশসজ্জা

- ইরা

ঈদ মানেই নতুন পোশাক, নতুন জুতা আরো কত কি। সেই সঙ্গে চুলের সাজও হওয়া চাই ফ্যাশনেবল। এই প্রতিবেদনে সহজ কিছু হেয়ারস্টাইল তুলে ধরা হলো। যা বেশ চটজলদি করা সম্ভব এবং যেকোনো পোশাকের সঙ্গেই মানানসই।

ফ্রন্ট ব্রেইড হেয়ার স্টাইল : এই স্টাইলে মূলত সামনের চুলগুলো টেনে বেণি করে পেছনে নিয়ে একটি ঝুঁটি করে আটকে ফেলতে হবে। সামনে সিঁথি করে চুল দুই ভাগ করে নিয়ে দু’পাশে ফ্রেঞ্চ বেণি করে নিতে হবে পিছনের দিকে টেনে। বেণি করা হয়ে গেলে ক্লিপ দিয়ে মাথার সঙ্গে আটকে বাকি চুলগুলোসহ একটি ঝুঁটি করে নিলেই হবে।

সামনে ফুলিয়ে খোঁপা : এটি বেশ পুরানো ও পরিচিত হেয়ারস্টাইল। এক্ষেত্রে সামনের চুলগুলো ফুলিয়ে পিছনে পছন্দমতো খোঁপা করে নিলেই হলো। এবার খোঁপায় ফুল গুঁজে নিলেই বাজিমাত। আর চুল সেট রাখতে সব শেষে হেয়ার স্প্রে করে নিন। শাড়ির সঙ্গে এই হেয়ারস্টাইলটি বেশি মানাবে।

একপাশে খেজুর বেণি : অনেকটা দেখতে খেজুর পাতার মতো মনে হয় বলে এই স্টাইলটিকে খেজুর বেণিও বলা হয়। চুল মাঝখানে সিঁথি করে একপাশে টেনে খেজুর বেণি করে নিতে পারেন। খেজুর বেণি করতে সমস্যা হলে সাধারণ বেণিও মানিয়ে যাবে এই স্টাইলে। উৎসবের ছোঁয়া দিতে বেণিতে পাথরের ছোট ক্লিপ গুঁজে দিতে পারেন।

খোলাচুল : খোলাচুলের সৌন্দর্য নিয়ে নতুন করে বলার কিছুই নেই। যাদের চুল ছেড়ে রাখতে সমস্যা নেই তারা চাইলে স্ট্রেইট করে চুল খুলে রাখতে পারেন। দীর্ঘসময় বাইরে কাটাতে হলে সঙ্গে ক্লিপ বা হেয়ারব্যান্ড রাখুন যেন যেকোনো সময় চুল আটকে নেওয়া যায়। আবার খোলাচুলেও ভিন্নতা আনা যায় চেষ্টা করলে। চুল একপাশে নিয়ে অন্য পাশে ছোট এক অংশ চুল নিয়ে ক্লিপ দিয়ে আটকে দেওয়া যেতে পারে। এ স্টাইলটি বেশ ফ্যাশনেবল।

অগোছালো বেণি : চুল টেনে বেণি তো সব সময়ই করা হয়, কিন্তু একটু অপরিপাটি করে চুল বাঁধলেও যে দেখতে ভালো লাগে তা কি কখনও মাথায় এসেছে! প্রথমে ছোট ছোট ভাগ নিয়ে সাধারণ নিয়মেই ফেঞ্চ বেণি করে নিন। এরপর মাথার উপরের দিক থেকে অল্প অল্প করে চুল টেনে চুল ফুলিয়ে নেন। এতে চুল মাথার সঙ্গে লেপ্টে থাকবে না এবং দেখতেও ভালো লাগবে। শেষে হেয়ার স্প্রে করে চুলগুলো সেট করে নিলেই চলবে।

একপাশে সিঁথি করে খোঁপা : সামনেরে চুলে একপাশে সিঁথি করে নিন, তবে অর্ধেক সিঁথি। এরপর মাথার মাঝামাঝি অংশের চুলগুলো খানিকটা পাফ করে ফুলিয়ে ক্লিপ দিয়ে আটকে নিন। এরপর কিছুটা নিচু করে বাকি চুলগুলো খোঁপায় বেঁধে নিন। শাড়ি বা কামিজের সঙ্গে মানানসই বেশ সহজ এই স্টাইলটি আরামদায়কও।

সামনের চুল পিন করে রাখা : একটু ক্যাজুয়াল ড্রেসের সঙ্গে এই স্টাইলটি বেশ মানানসই। যাদের সামনে ব্যাংস কাটা আছে তারা চাইলে সামনের কিছুটা চুল বাদ দিয়ে তারপর খানিকটা চুল নিয়ে একপাশে ববি পিন দিয়ে আটকে রাখতে পারেন। আটকানোর আগে সামনের চুলগুলো হালকা টিজ করে নেওয়া যায় এতে মাথার সঙ্গে চুল লেপ্টে থাকবে না। এছাড়া পিছনের চুলগুলো খোলা বা বেঁধে রাখা যায় এই স্টাইলে।

ঝুঁটি : সব থেকে নির্ভেজাল হেয়ারস্টাইল হলো পনিটেইল বা ঝুঁটি। সামনে খানিকটা ফুলিয়ে উঁচু করে চুলগুলো বেঁধে নিলেই হলো।