শুক্রবার,২৪ নভেম্বর ২০১৭
হোম / স্বাস্থ্য-ফিটনেস / ইফতার আইটেমে ক্যালরি কত?
০৬/০১/২০১৬

ইফতার আইটেমে ক্যালরি কত?

- নাসিফ

রোজার মাসে সারাদিন না খেয়ে থাকার পর ইফতারে ভরপেট খাওয়ার অভ্যাস কমবেশি সবারই থাকে। তবে সারাদিন না খেয়ে থাকার পর হুট করে একবারে অনেক কিছু খেয়ে ফেললে তা শরীরের জন্য খারাপ ফল বয়ে আনতে পারে। তাছাড়া যারা ডায়েট কন্ট্রোল করছেন তাদের ক্ষেত্রে ইফতারেও খাদ্যের ক্যালরির মান অনুযায়ী খাবার খাওয়া উচিত।

বয়স, ওজন, উচ্চতা ও দৈনন্দিন শারীরিক পরিশ্রমভেদে উনিশ বা তার বেশি বয়সি একজন পুরুষের দিনে গড়ে ২২০০ থেকে ৩০০০ হাজার ক্যালরি গ্রহণ করতে হয়। নারীদের ক্ষেত্রে তা ২০০০ থেকে ২৪০০ ক্যালরি হওয়া উচিত।
* ইফতারের শুরুতে যেকোনো ধরনের এক গ্লাস শরবত পান করলে তা শরীরে ৬০ থেকে ১০০ ক্যালরির যোগান দেবে।
* ইফতারে বেশ প্রচলিত পদ ছোলা। এককাপ ছোলাভুনা খেলে ২৫০ ক্যালরি পরিমাণ শক্তি পাওয়া যাবে।
* পেঁয়াজু অথবা সবজি পাকোড়া আকার অনুযায়ী ৫০ থেকে ২০০ ক্যালরি পর্যন্ত হতে পারে।
* ইফতারে আরেকটি প্রচলিত পদ বেগুনিতে ক্যালরির পরিমাণ আকৃতি অনুযায়ী ৮০ (মাঝারি আকৃতির) থেকে ২০০ হয়ে থাকে।
* যারা হালিম খেতে পছন্দ করেন তাদের জেনে রাখা ভালো- এককাপ হালিমে ক্যালরি মান ২০০-এর মতো, তবে আরেকটু বেশি খেলে অর্থাৎ সাধারণ সাইজের এক বাটি হালিমে ক্যালরি মান ৩৫০ থেকে ৪০০ পর্যন্ত হয়ে থাকে।
* ইফতারে মোটামুটি বড় সাইজের জিলাপি খাওয়ার অভ্যাস থাকলে তা আপনার দৈনন্দিন চাহিদার ২০০ বা ২১০ ক্যালরি পূরণ করবে।
* ইফতারে ১০০ গ্রামের কাবাব খেলে তার ক্যালরি মান আনুমানিক ১৭০। তবে গরুর শামিকাবাব জাতীয় খাবার খেলে তার ক্যালরি মান দাঁড়াবে ২০০ থেকে ২১০।
* অনেকেই খেজুর দিয়ে ইফতার শুরু করেন। এক্ষেত্রে স্বাভাবিক আকৃতির একটি খেজুর খেলে ২৩ ক্যালরি গ্রহণ করা হবে।
* ইফতারে যারা ফলমূল খেয়ে থাকেন তাদের জেনে রাখা ভালো মাঝারি সাইজের একটি আপেলে ৯৫ ক্যালরি, কলায় ১০৫ ক্যালরি এবং একটি আমে ২০০ ক্যালরি পরিমাণ খাদ্যমান রয়েছে।