বৃহস্পতিবার,২৩ নভেম্বর ২০১৭
হোম / রূপসৌন্দর্য / বডি পলিশিং এখন ঘরেই
০৫/১৬/২০১৬

বডি পলিশিং এখন ঘরেই

- অদ্বিতী

বডি পলিশিং এই শব্দ দু’টির অর্থ শরীরের ত্বককে ঘষে চকচকে করে তোলা। শুনতে অদ্ভুত মনে হলেও আসলেও কিন্তু তাই। আমাদের ত্বকের উপরে ধূলাবালি, ময়লা এবং মৃত কোষের একটি লেয়ার তৈরি হয়, যার ফলে ত্বক মলিন দেখায়। পলিশিং-এর সাহায্যে ত্বকের উপরে জমে থাকা লেয়ারটি দূর করা হয়। ফলে ত্বক প্রাণ ফিরে পায়।

আমরা মুখে যেভাবে সপ্তাহে অন্তত তিন দিন স্ক্রাবার ব্যবহার করি, ব্ল্যাক হেডস দূর করতে অথবা ত্বক পরিষ্কার রাখতে, তেমনি পলিশিংও বলা চলে এক ধরনের স্ক্রাবিং বা এক্সফলিয়েটিং পদ্ধতি, যা পুরো শরীরের ত্বকের জন্য করা হয়ে থাকে।

পলিশিং-এর জন্য বাজারে নামিদামি ব্র্যান্ডের নানা ধরনের ক্রিম বা স্ক্রাব পাওয়া যায়। যা কিনতে মোটা অংকের টাকা গুনতে হয়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে তৈরি হওয়ার কারণে আশানুরূপ ফল পাওয়া যায় না এবং এর পার্শপ্রতিক্রিয়াও থাকে। তাই এই সব দিক চিন্তা করে ঘরেই বডি পলিশ বানিয়ে নেওয়া যায়।

এই প্রতিবেদনে ঘরে কিভাবে সহজলভ্য কিছু উপকরণ দিয়ে বডি পলিশ তৈরি করা যায় তার প্রণালি দেওয়া হলো। এই বডি পলিশগুলো তৈরি করতে ঘরোয়া এবং ভেষজ উপাদান ব্যবহার করা হয়েছে যা ত্বকের জন্য উপকারী এবং কোনো ক্ষতি হওয়ার ও ঝুঁকি নেই।
হলুদ ও চিনির পলিশ

১ টেবিল চামচ হলুদগুঁড়ার সঙ্গে ২ থেকে ৩ টেবিল চামচ মোটা দানার চিনি মিশিয়ে নিতে হবে। দুধ অথবা গোলাপ জল পরিমাণমতো মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করে নিন। তবে খেয়াল রাখতে হবে চিনি যেন পুরোপুরি গলে না যায়। এটি বডি এক্সফলিয়েটর হিসেবে কাজ করবে। চিনি ত্বক এক্সফলিয়েট করবে আর হলুদ ত্বকে জেল্লা ফিরিয়ে আনবে।

গোলাপের পাপড়ি, মধু ও ওটসের স্ক্রাব

গোলাপের পাপড়ির পেস্ট, মধু ও ওটসের মিশ্রণে তৈরি এই স্ক্রাবারটি ত্বক পলিশ করার পাশাপাশি ত্বক ময়েশ্চারাইজও করবে। গোলাপের পাপড়ি ত্বকের রং উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে, মধু ত্বকে আর্দ্রতা জোগায় ও ত্বক উজ্জ্বল করে এবং ওটস কাজ করে এক্সফলিয়েটর হিসেবে। এই তিনটি উপাদানের মিশ্রণ তৈরি করতে সঙ্গে খানিকটা কাঁচা দুধ মিশিয়ে নেওয়া যেতে পারে। সপ্তাহে দু বার এই স্ক্রাব ব্যবহারে ত্বকের রং উজ্জ্বল হবে।

গুঁড়াদুধ ও দারুচিনি

ত্বকের জন্য দারুচিনি কতটা উপকারী সে সম্পর্কে অনেকেই অজ্ঞাত। দারুচিনিতে রয়েছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান যা ত্বকে বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না এবং বলিরেখা কমায়। ব্রণ ও ব্ল্যাক হেডসের সমস্যাও দূর করে। গুঁড়া দুধ ত্বকের লোমকূপ পরিষ্কার করে ত্বক উজ্জ্বল করে তোলে। গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে এই মিশ্রণ ব্যবহার করা উপকারী।

লবণ ও ডিমের সাদা অংশ

লোমকূপ পরিষ্কারের পাশাপাশি ত্বকের রং উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে ডিমের সাদা অংশ। তাছাড়া ব্রণের দাগ দূর করতেও এই উপাদান কার্যকর। সামুদ্রিক লবণ ত্বক এক্সফলিয়েট করতে সাহায্য করে এবং ত্বক টানটান করে। এই মিশ্রণে বাড়তি পানি বা গোলাপ জলের প্রয়োজন নেই। ময়েশ্চারাইজার সমৃদ্ধ ফেইসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে এই প্যাক ব্যবহারের পর।

কফি স্ক্রাব

দিনের শুরুতে এককাপ কফি সারাদিন সতেজ থাকতে সাহায্য করে। ঠিক তেমনি ত্বক সতেজ রাখতেও কফি সমানভাবে উপকারী।
কফি স্ক্রাব তৈরি করতে প্রয়োজন হবে সোয়া কাপ চিনি, সোয়া কাপ গুঁড়া করা কফি, ২ টেবিল-চামচ নারিকেল ও জলপাইয়ের তেল, ১ টেবিল-চামচ সামুদ্রিক লবণ।

একটি পাত্রে প্রতিটি উপকরণ মিশিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিলেই স্ক্রাব তৈরি হয়ে যাবে।

গ্রিন টি স্ক্রাব

গ্রিন টি স্বাস্থ্য ও রূপচর্চায় সমানভাবে উপকারী। গ্রিন টি’তে রয়েছে প্রচুর পারিমাণে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা ত্বকের তারুন্য ধরে রাখে। আর এর অ্যান্টি-এজিং উপাদান ত্বকে বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না।

ত্বকের যেকোনো ধরনের দাগ ও বলিরেখা সারিয়ে তুলতেও সাহায্য করে গ্রিন টি।

এই স্ক্রাব তৈরিতে ছয় থেকে আটটি ব্যবহৃত টি ব্যাগ রেফ্রিজারেটরে রেখে ঠান্ডা করে নিতে হবে। আরও লাগবে সোয়া কাপ চিনি ও ২ টেবিল-চামচ মধু। টি-ব্যাগ কেটে ভিতর থেকে পাতা বের করে সঙ্গে চিনি ও মধু মিশিয়ে ঘন ও দানাদার মিশ্রণ তৈরি করতে হবে। তারপর ব্যবহার করা যাবে।