মঙ্গলবার,২২ অক্টোবর ২০১৯
হোম / বিবিধ / লাইফস্টাইল নিয়ে মতবিরোধ
১০/০৩/২০১৯

লাইফস্টাইল নিয়ে মতবিরোধ

পারিবারিক

-

দাম্পত্য সম্পর্কে না থাকলে তা একসময় পানসে মনে হয়। চাওয়া-পাওয়ার তারতম্য ঘটলে সেখানে ঝগড়া আসতে পারে। আবার এই ঝগড়াঝাঁটি একসময় ঠিকও হয়ে যায়। কিন্তু লাইফস্টাইলের ভিন্নতা নিয়ে ঝগড়ার ফলে যদি স€úর্ক এমন তলানিতে গিয়ে ঠেকে যে সেখান থেকে উদ্ধারের কোনো আশাই নেই, তাহলে মুশকিল। তাই স€úর্কে অবনতি ঠেকাতে চাইলে কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে-

লাইফস্টাইল বলতে আমাদের প্রতিদিনকার জীবনযাপনকেই বুঝায়। তবে আক্ষরিক অর্থে বলতে গেলে লাইফস্টাইল বলতে বুঝায় সামাজিক ও পারিবারিক মূল্যবোধগুলোকে গুরুত্ব দিয়ে দৈনন্দিন চলাফেরায়, কথাবার্তায়, আচার-আচরণে, পোশাক-পরিচ্ছদে নিজের পছন্দ বজায় রাখা এবং সবার সামনে তা গ্রহণযোগ্য করে গড়ে। লাইফস্টাইলের ভিন্নতার চিত্রটি সব থেকে বেশি ধরা পড়ে একটি পরিবারে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে। দুজনই আলাদা দুটি পরিবার, পরিবেশ, অভ্যেস থেকে একসঙ্গে জীবনযাপন শুরু করে। এক্ষেত্রে লাইফস্টাইলের পার্থক্য থাকবে এমনটাই স্বাভাবিক। কিন্তু এ নিয়ে যদি মতবিরোধ চরমে পৌঁছে যায়, তখন তা চিন্তার বিষয়।

আলোচনা


সঙ্গীর সঙ্গে খোলামেলা আলোচনার কোনো বিকল্প নেই। পরস্পরের সঙ্গে কথা বললে, পরস্পরের কথা মন দিয়ে শুনলে অনেক সমস্যারই সমাধান খুঁজে পাওয়া স€¢ব। পুরোনো দিনগুলোর গল্প দিয়েই শুরু করতে পারেন।
খোঁচা দিয়ে কথা নয়।

কোনো বিষয় নিয়ে তিক্ততা দেখা দিলে বারবার সেই বিষয়টাকে খুঁড়ে বের করার দরকার নেই। বিশেষ করে যখন অভিযোগ নয়

অনেক সময় আমরা কাছের মানুষদের ব্যাপারে খুব কঠোর মনোভাব দেখিয়ে ফেলি। এটা ঠিক নয়। সারাক্ষণ পার্টনারের ব্যবহার, আচরণ নিয়ে অভিযোগ না করে নিজেকে তার জায়গায় রেখে দেখুন। নিজেদের স€úর্কটাকে ইতিবাচক আলোয় দেখার চেষ্টা করুন, তাতে আপনাদেরই ভালো হবে!



ইতিবাচক থাকুন

সময়ের সাথে সাথে সম্পর্কের ধরন বদলায়। তাই আপনার সঙ্গী প্রথমদিকে আপনার সঙ্গে কেমনভাবে কথা বলতেন তা দিয়ে আজকের সম্পর্কটাকে বিচার করতে যাবেন না। বরং সম্পর্কে স্বচ্ছন্দ থাকুন।

অভিযোগ নয়

অনেক সময় আমরা কাছের মানুষদের ব্যাপারে খুব কঠোর মনোভাব দেখিয়ে ফেলি। এটা ঠিক নয়। সারাক্ষণ পার্টনারের ব্যবহার, আচরণ নিয়ে অভিযোগ না করে নিজেকে তার জায়গায় রেখে দেখুন। নিজেদের স€úর্কটাকে ইতিবাচক আলোয় দেখার চেষ্টা করুন, তাতে আপনাদেরই ভালো হবে!

শরীরী আকর্ষণ

কাজে বের হওয়ার আগে ছোট্ট চুমু, একটু জড়িয়ে ধরা, হাতের উপর হাত রাখার মতো শরীরী কাজ স€úর্কে নতুন জোয়ার এনে দিতে পারে। পরস্পরকে আদর করুন, যাতে শরীরে এনডরফিন হরমোন ক্ষরিত হয়। এই হরমোন আপনাদের দুজনকেই খোশমেজাজে রাখবে, সুস্থ থাকবে আপনাদের সম্পর্ক।

-মাশরুবা সুবা
-ছবি : তানভীর আহমেদ