সোমবার,২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯
হোম / বিনোদন / রিভিউ- সুই ধাগা
০৭/২৭/২০১৯

রিভিউ- সুই ধাগা

-

অভিনেতা-
অনুস্কা শর্মা, বরুণ ধাওয়ান

পরিচালক-
শরত কাটারিয়া

সুই ধাগা মানে সূঁচ সুতা। পরিচালক শরৎ কাটারিয়া দম লাগাকে হাইসার পর আবারও একটি ছোট্ট শহরের গল্প নিয়ে হাজির হয়েছেন এই সিনেমায়। মুভির গল্প এগোয় এক নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারকে নিয়ে। বাবা-মা দুই ছেলে এবং তাদের স্ত্রী। ছেলে তার বউয়ের সঙ্গে পরিবারের থেকে আলাদা হয়ে যায়। ছোট ছেলে মৌজি সাধারণ চোখে কোনো কাজের না। কিন্তু রক্তে সুই সুতা বুননের কাজ গাথা। একদিন নিত্যদিনের চাকরগিরি ছেড়ে খেয়াল হয় যেই কাজটা পারে সেটা নিয়েই তো জীবনটা চালানো যায়। ব্যস, যেই বলা সেই কাজ। এরপর কি হয় জানতে হলে বাকি সিনেমা দেখতে হবে।

এই ছবিতে মৌজির ভূমিকায় অভিনয় করেছেন বরুণ ধাওয়ান। আর তাঁর স্ত্রী মমতার ভূমিকায় দেখা যাবে অনুস্কা শর্মাকে। যেহেতু যশ রাজ ফিল্মস তাই মুভির ডিটেইলস খুব নিখুঁত। মুভিতে যে বাসায় মৌজি থাকে সেই বাসাটা একদম নিখুঁত করে সাজানো হয়েছে নিম্নমধ্যবিত্তের পরিবারের আদলে, এরকম বাসার প্রতিদিনের যেসব স্ট্রাগল থাকে সেগুলো একদম পরিষ্কার চোখে পড়েছে কিংবা কস্টিউমের ডিটেলস একদম আগাগোড়া মিলিয়ে নেওয়া হয়েছে চরিত্রের সাথে। এদিক থেকে পরিচালক হিসেবে শরত কাটারিয়া সফল।

ছবির দুই কেন্দ্রীয় চরিত্রে বরুণ ধাওয়ান ও অনুষ্কা শর্মা দু’জনেই নিজেদের কমফোর্ট জোন থেকে বেরিয়ে পাল্লা দিয়ে অভিনয় করেছেন। অনুস্কার মতো গ্ল্যামারাস অভিনেত্রীর জন্য মমতার মতো চরিত্র ছিল চ্যালেঞ্জিং। মমতা এক সাধারণ নিম্নবিত্ত পরিবারের বউ। আর দশটা সাধারণ মেয়ের মতো তার পোশাক, চুলবাধা, সাজসজ্জা।

এই সিমপ্লিসিটির পোট্রে করার চ্যালেঞ্জে অনুস্কা শর্মা ভালোমতোই উতরে গেছেন। তার কথা বলা, শারীর আঁচল ধরে রাখা, সাইকেলে জড়সড় হয়ে বসার দৃশ্য মনে দাগ কেটে যায়। একই সাথে মমতা বুদ্ধিমতি, মৌজির জীবনে আসা সফলতার অর্ধেক দাবিদার সে। মৌজিকে স্বাধীনভাবে ব্যবসা শুরু করার অনুপ্রেরণা সেই দেয়। মুভিতে স্বাধীন ব্যবসা, ক্ষুদ্র শিল্প, নারীপুরুষের সমাধিকার এমন অনেক বিষয় উঠে এসেছে। উপমহাদেশীয় পুরুষতান্ত্রিক সমাজে নারীদের অবস্থান নিখুঁতভাবে দেখানো হয়েছে। মুভিতে এমনই একটা দৃশ্য হলো যে মৌজির মা মাথা ঘুরে রান্নাঘরে পড়ে যাবার পর তার প্রথম সংলাপ হচ্ছে : ‘এখনো নাস্তা বানানো হয়নি’। সিনেমার সবচেয়ে আকর্ষণীয় ব্যাপারটা হলো সিনেমার মূল চরিত্রদ্বয়ের অব্যক্ত প্রেম এবং তাদের জার্নিটা। পুরো সিনেমাটির গল্পটা সহজ। সাধারণ। আটপৌরে কিন্তু খুব আপন।


--রিফাহ তাসনিম অর্না