বৃহস্পতিবার,২২ অগাস্ট ২০১৯
হোম / জীবনযাপন / আপনি কি নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন?
০৭/২১/২০১৯

আপনি কি নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন?

-

ইনসিকিউরিটি বা নিরাপত্তাহীনতা বর্তমান সময়ে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, যা কোনোভাবেই অবহেলা করার অবকাশ নেই। বিশ্বজুড়ে বহু মানুষের কর্মোদ্দীপনা শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনার ক্ষেত্রে এ মানসিক ব্যাধিটির ভূমিকা খুবই লক্ষণীয়। শুধুমাত্র যুক্তরাষ্ট্রের প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ১০ শতাংশ মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন। বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে এ ধরনের কোনো নির্ভরযোগ্য পরিসংখ্যান না থাকলেও এই নিরাপত্তাহীনতায় ভোগা মানুষের সংখ্যা যে নেহায়েতই কম নয়, তা কিন্তু সহজেই অনুমেয়। বিশেষ করে কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তাহীনতা, রাস্তাঘাটে সুস্থ স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করার আশঙ্কা, অনিরাপদ খাদ্য গ্রহণের শঙ্কা এবং এর সাথে যখন ধর্ষণের মতো বিষয়গুলোর প্রকোপ বৃদ্ধি পাচ্ছে, তখন নিরাপত্তাহীনতায় না ভোগাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু তাই বলে নিরাপত্তাহীনতার কথা সারাক্ষণ মনে রেখে সুন্দর এই জীবনের সুন্দর মুহূর্তগুলোকে নষ্ট করা কোনো মানে নেই। কারণ, নিরাপত্তাহীনতাই পরবর্তীসময় তৈরি করতে পারে বিষণ্ণতার মতো মানসিক ব্যাধি। আর তাই নিরাপত্তাহীনতা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য নিতে হবে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ।

প্র থ মে ই -

নিজেকে মূল্যায়ন করাটা গুরুত্বপূর্ণ। আপনাকে বুঝতে হবে এটি আপনার জীবন। তাই এর প্রতিটি মুহূর্তকে মূল্যায়ন আপনাকেই করতে হবে। সারাক্ষণ নেতিবাচক চিন্তা পরিহার করে ইতিবাচক চিন্তা করার চেষ্টা করতে হবে। প্রয়োজনে ভালো বই বা মুভির সাহায্য নিতে পারেন, যা জীবনকে নতুনভাবে অনুপ্রাণিত করতে সহায়তা করে।


দ্বি তী য় ত -

মানসিক চাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখুন। কোনো কিছুতে অনিরাপদ মনে করলে আশপাশের পরিচিত এবং নির্ভরযোগ্য মানুষজনের সাথে বিষয়টি শেয়ার করুন। তাদেরকে বুঝিয়ে বলুন আপনি কিসের জন্য শঙ্কিত বোধ করছেন। পাশাপাশি প্রয়োজনীয় কিছু ব্যবস্থা সর্বদা নিজের সাথে রাখুন। যেমন পেপার স্প্রে বা সেফটি কিট প্রয়োজন হলে সুযোগ বুঝে ব্যবহার করুন।


তৃ তী য় ত -

উৎসাহী এবং ইতিবাচক মানসিকতা সম্পন্ন মানুষদের সাথে বন্ধুত্ব গড়ে তুলুন। তাহলে দেখবেন আপনার মধ্যে জীবন স€úর্কে একটি ইতিবাচক ধারণা গড়ে ওঠা অনেক সহজ হবে।

চ তু র্থ ত -

নিজের প্রতি আত্মবিশ্বাসী হোন। নিজেকে নিজের জন্য একজন মডেল হিসেবে তৈরি করুন। নিজেকে বোঝান, যত বড় বিপদই আসুক না কেন তা নিয়ন্ত্রণ করার সামর্থ্য আপনার রয়েছে। সর্বোপরি নিজেকে জানুন।


পরিশেষে বলতে চাই, প্রতিটি মানুষই একটি অসাধারণ সৃষ্টি। আপনার নিজস্ব ইচ্ছাশক্তিই আপনাকে দিতে পারে যে-কোনো রকমের অনিরাপত্তার হাত থেকে চূড়ান্ত পরিত্রাণ। তাই আত্মশক্তিতে বলীয়ান হয়ে রুখে দাঁড়ান অন্যায়ের বিরুদ্ধে। কারণ, মনে রাখবেন, ন্যায়ের শক্তি সর্বদাই অন্যায়ের থেকে বেশি। তাই নিরাপত্তাহীনতায় না ভোগে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের মাধ্যমে একটি সুখী জীবনযাপনের কামনা করছি।



--রুদমিলা মাহবুব
প্রভাষক, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়

মডেল : মৌ
ছবি : তানভীর আহমেদ