সোমবার,২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯
হোম / ফ্যাশন / পোশাকে বৈশাখী হাওয়া
০৪/১৯/২০১৯

পোশাকে বৈশাখী হাওয়া

-

উৎসব মানেই অগুনতি নতুন ফ্যাশন, স্টাইল ও ডিজাইন। এ বছর পয়লা বৈশাখের ফ্যাশনে শুধু পোশাকের রঙেই নয়, কাটছাঁটেও থাকছে বৈচিত্র্য। বৈচিত্র্যময় নকশার পাশাপাশি কাপড়ের বুনন ও রঙে প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে। তবে, একই ডিজাইনের পোশাক পরে বর্ষবরণের ট্রেন্ড এবারও থাকবে।
বৈশাখে বন্ধুদের বা পরিবারের মিলনমেলায় অবশ্যই চাই নতুন পোশাক। ক্রেতার সঙ্গে তাল মিলিয়ে দেশি ফ্যাশন ডিজাইনাররা চেষ্টা করেন নতুন কিছু উপহার দিতে। ইন্টারনেট আর স্যাটেলাইটের বদৌলতে আজকাল ক্রেতার মননে প্রভাব ফেলে চলেছে আন্তর্জাতিক ফ্যাশন। সেটা অবহেলার মতো নয়। সব মিলিয়ে, এবারের বৈশাখে মুখ্য হয়ে উঠছে ক্রেতা পছন্দের ফ্যাশন। এই বৈশাখে নজরকাড়া ডিজাইন আর প্যাটার্নকে গুরুত্ব দিচ্ছেন সবাই। তবে, একই ডিজাইনের পোশাকের প্রতি আগ্রহও কম নয়।

এবার সালোয়ার-কামিজ, কুর্তা সবকিছুইতেই থাকছে ফেব্রিক, ডিজাইন বা মোটিফের যুগপৎ উপস্থাপনা। সালোয়ার-কামিজ আর কুর্তার প্যাটার্নে থাকছে লং এবং গাউন স্টাইল, কিছু কাটিংয়ে থাকছে ঘের এবং বডি ফিটিংস। টিনএজারদের জন্য ফিউশনধর্মী ভিন্ন কাটিংয়ে একই নকশার তৈরি পোশাকের চাহিদা বেশি। মাঝ বয়সী আর পরিবারের সবার কথা চিন্তা করে রং আর নকশায় পরিবর্তন আনা হয়। পোশাকের নকশা-কাটিং নির্ভর করে উৎসবের ধরনের উপর। এবার যেমন শীতল পাটি, মঙ্গল শোভাযাত্রা থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে তৈরি মোটিফ, পুরানো স্থাপত্য শৈলী থেকে ডিজাইন, ফুলেল নকশা ও জিওমেট্রিক মোটিফ এবং কাঁথার সূচিকর্ম থাকছে বৈশাখের পোশাকে। কামিজ, সালোয়ার কামিজে এবার প্যাটার্ন ভিন্নতা থাকছে খানিক ফিউশনের আদলে।

বৈশাখের মূল আকর্ষণ শাড়ি। তবে, সারাদিনের হৈ-হুল্লোড়ের জন্য সালোয়ার-কামিজ, সিঙ্গল কামিজ, কুর্তা, তাগা, টপস, কাফতান, স্কার্ট বা গাউন-সবই পাবেন। সঙ্গে মিলিয়ে নিতে পারেন পালাজ্জো, ডিভাইডার, প্যান্ট, ধুতি, পাটিয়ালি ইত্যাদি। ছেলেদের জন্য পাঞ্জাবি আর ফতুয়ার পাশাপাশি শার্ট আর টি-শার্টও থাকছে। এবার ফ্যাশন ব্র্যান্ডগুলোর আয়োজনগুলো বেশ গুছানোও বটে।

রঙ বাংলাদেশ

রঙ বাংলাদেশ বরাবরই বাংলার কথা বলে বাঙালির কথা বলে। বাংলাদেশের পোশাক সংস্কৃতিকে সচেতনভাবে বিবেচনায় রেখেই তাদের সংগ্রহ সাজিয়ে থাকে। এবারেও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। বরং এই সময়, প্রকৃতির অবস্থা, পারিপার্শ্ব, আবহাওয়াও পোশাকের উপকরণ নির্বাচনে বিশেষ গুরুত্ব পেয়েছে। সূতি, লিলেন, তাঁত, স্ল­াব, মসলিন, হাফসিল্ক, ফাইনকটন, এন্ডিকটন, এন্ডিসিল্ক, ভয়েল কাপড়ে লাল, মেরুন, অফ হোয়াইট, সাদা, নীল, কমলা, মেজেন্ট, গোল্ডেন হলুদ, গেরুয়া, টিয়া, সবুজ, ফিরোজা, ওলিভ, বিস্কুট, মিষ্টি কমলা, কফি, পিংক, পেস্টসহ নানান রঙে সেজেছে তাদের পোশাকগুলো। বৈশাখী মাত্রা যোগ করতে করা হয়েছে স্ক্রীনপ্রিন্ট, ব্লকপ্রিন্ট, হ্যান্ডওয়ার্ক, কারচুপি, মেশিন এমব্রডারী, টাই অ্যান্ড ডাই।
মেয়েদের জন্য রয়েছে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, সিঙ্গেল কামিজ, টপস্, র্স্কাট-টপস্ সেট, প্লাজো, আনষ্টিচ, ওড়না, ব্লাউজপিস, তৈরি ব্লাউজ, ছেলেদের জন্য রয়েছে পাঞ্জাবি, শার্ট, কাতুয়া, টি-শার্ট, পায়জামা, গেঞ্জি, ধুতি, উত্তরীয় ও ছোটদের জন্য রয়েছে সালোয়ার-কামিজ, সিঙ্গেল কামিজ, ফ্রক, স্কার্ট-টপস সেট, টপস, প্লাজো, পাঞ্জাবি, শার্ট, টি-শার্ট। এবং কাপলও ফ্যামিলি ড্রেস। এছাড়া আরো রয়েছে গয়না ও মেয়েদের ব্যাগ। উপহার সামগ্রী হিসাবে রয়েছে নানাডিজাইনের মগ।

কে ক্র্যাফট


এবারের বৈশাখকে সামনে রেখে ফ্যাশন হাউজ কে ক্র্যাফট দেশীয় পোশাকের পসরা সাজিয়েছে, লোকজ নানা শিল্পের অনুপ্রেরণায় আধুনিকতার মিশেলে নকশা করা হয়েছে নানা পোশাকের। লোকজ, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী মোটিফ, নকশিকাঁথা, গুজরাটি, ইক্কার, কাশ্মীরি স্টিচ এমন নানা মোটিফ ও কারুকাজ রীতিকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে বৈশাখী পোশাকে। লাল-সাদার চিরাচরিত সমন্বয়, সাথে নানা রঙের ছোঁয়ায় পোশাকগুলো পেয়েছে বর্ণিল রূপ। সাদা, লাল, ধূসর, কমলা, ফিরোজা, মেজেন্টা, স্টোনকালার, নীল এর নানা শেড, পার্পল, ক্রিমসন রেড, অফ হোয়াইট, ক্রিমসহ নানা রঙের পোশাকে হাতের কাজ, এমব্রয়েডারি, স্ক্রীন ও ব্লক প্রিন্ট, কারচুপি এবং টাই-ডাই-এর মাধ্যমে অলংকরণ করা হয়েছে। এবারের পোশাক সম্ভারে রয়েছে- শাড়ি, সেলোয়ার কামিজ, ফিউসন কুর্তি, কটিসহ টপস, দুই পার্টের কুর্তি, লং-কুর্তি, রেগুলার কুর্তি, টপস, টপস-স্কার্ট, পাঞ্জাবি, শার্ট, টি-শার্ট ও শিশুদের জন্য থাকছে নানা পোশাক। এছাড়াও বরাবরের মতো সময়োপযোগী যুগল ও ফ্যামিলি পোশাকের কালেকশন থাকছে।

বাংলার মেলা

ছোট-বড় সকলের জন্য ফ্যাশন হাউজ ‘বাংলার মেলা’ নিয়ে এসেছে নজরকাড়া বৈশাখী কালেকশন। এসব পোশাকের মূল উপজীব্য পহেলা বৈশাখের ঐতিহ্যম-িত মঙ্গল শোভাযাত্রা। অতীত ও বর্তমানের ধারার মিশেলে আনকোরা এসব নকশায় ব্যবহার করা হয়েছে ডাইইফেক্ট, অ্যামব্লিশমেন্ট, অ্যাম্ব্রয়ডারি, ওপেন ওয়ার্ক ও র‌্যাফলের যুগপৎ মিশ্রণ। তাদের সালোয়ার-কামিজ, কুর্তি, পাঞ্জাবি ও ফতুয়ায় আভিজাত্য ফুটিয়ে তুলতে কারচুপি, টাই ডাই, বাটিক, ব্লক, চুনরি এবং অ্যাম্ব্রয়ডারি। বাংলার মেলার ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম গোলাম মাওলা জানান, গতানুগতিক লাল ও সাদা রঙ ছাড়াও এবারের বৈশাখী নকশায় প্রাধান্য দেয়া হয়েছে নীল, সবুজ, কমলা, হলুদ, ম্যানডারিনসহ গ্রীষ্মের উপযোগী বিভিন্ন উজ্জ্বল রং। বেশিরভাগ পোশাক তৈরিতে সুতি ও সুতি জাত কাপড় ব্যবহার করা হয়েছে। ছেলেদের পাঞ্জাবিতে জয়শ্রি সিল্ক, এন্ডি, কটন, খাদি তাঁতে নিজস্ব বুননে ডবি মাল্টি স্ট্রাইপ এসব মেটেরিয়ালে করা হয়েছে।শাড়িতে বাংলার মেলার অন্যতম আকর্ষণ অর্গানজা সিল্ক, এন্ডি, হাফসিল্ক, এন্ডি কটন বেন্ড ও টাঙ্গাইল শাড়ি। এবারের বৈশাখী আয়োজনেও থাকছে এসব কালেকশন। এখন আর লাল-সাদাতে সীমাবদ্ধ নেই, প্রতিটি শাড়িতে আনা হয়েছে ভিন্নতা।বাংলার মেলা নিয়ে এসেছে সালোয়ার-কমিজের নানান ডিজাইন ও রঙের ভেরিয়েশন। এন্ডি কটন, জয়শ্রী সিল্ক ও মিল খাদিতে উজ্জ্বল সব রঙের পাশাপাশি সফট টোনে সালোয়ার-কামিজে থাকছে কারচুপি, মেশিন এমব্রয়ডারি, হাতের কাজের সঙ্গে নানা ডিজাইনের মেটেরিয়ালের ব্যবহার করা হয়েছে। সময়কে রাঙানোর ব্রত নিয়ে ফ্যাশন হাউজ রঙ বাংলাদেশের বৈশাখ নিয়ে রয়েছে বিস্তৃত আয়োজন। বিষয়ভিত্তিক ফ্যাশন রঙ বাংলাদেশের প্রধান বৈশিষ্ট্য। এবারের অভিযাত্রায় সৃজনের প্রেরণা হিসাবে গ্রহণ করা হয়েছে আলাম (বস্তুত এটা চাকমাসম্প্রদায়ের বয়ন অভিধান), কাইয়ুম চৌধুরী’র রেখাচিত্র, নকশিকাঁথা।

বার্ডস আই-

পয়লা বৈশাখ উপলক্ষে ফ্যাশন হাউজ বার্ডস আই-এ পাওয়া যাবে পাঞ্জাবি, পলোশার্ট, টি-শার্ট, শার্ট, ও ছোটদের পোশাক। পোশাকগুলো পাইকারি ও খুচরা পাওয়া যাচ্ছে ঢাকার আজিজ সুপার মার্কেটে বার্ডস আইয়ের পাঁচটি শো-রুমে।


-মাশরুবা সোহা