শনিবার,২৫ মে ২০১৯
হোম / খাবার-দাবার / রেসিপি-দেশীয় ব্যঞ্জন
০৪/১৩/২০১৯

রেসিপি-দেশীয় ব্যঞ্জন

-

বাঙালি যেমন ভালোবাসে নিজে খেতে, তেমনি খাওয়াতেও। এ পর্যায়ে বাঙালি আর ভোজনরসিক নয় পরিণত হয়েছে ভোজন শিল্পীতে। আর সেই ভোজন শিল্পীদের জন্য বীথি জগলুল নিয়ে এসেছেন বৈশাখের ৪টি রেসিপি-


কাঁচকলা-চিংড়ির বাগারি ভর্তা

উপকরণ

সিদ্ধ কাঁচকলা ৪ টি
গুঁড়া চিংড়ি ১/২ কাপ
পেঁয়াজ কুচি ১/২ কাপ
চেরা কাঁচামরিচ ৪-৫ টি
আস্ত কালোজিরা ১ চা চামচ
তেজপাতা ১টি
হলুদগুঁড়া ১/২ চা চামচ
ভাজা শুকনামরিচ ৪-৫ টি
সরিষার তেল পরিমাণমতো
লবণ স্বাদমতো

প্রণালি

সিদ্ধ কলা চটকিয়ে রাখুন। প্যানে তেল গরম করে কালোজিরা ও তেজপাতা বাগার/ফোঁড়ন দিয়ে পেঁয়াজ কুচি দিন। পেঁয়াজ হালকা বাদামি হলে হলুদগুঁড়া মিশিয়ে একে একে কাঁচামরিচ, চিংড়ি, সিদ্ধ কাঁচকলা মিশিয়ে ভেজে নিন। চিংড়ি সিদ্ধ হলে নামিয়ে ঠান্ডা করে নিন। ঠান্ডা হলে অল্প একটু কাঁচা সরিষার তেল ও ভাজা শুকনামরিচ মিশিয়ে মাখিয়ে নিন। আপনি চাইলে ধনেপাতাও দিতে পারেন। এবার গরম ভাত কিংবা পান্তাভাতের সাথে পরিবেশন করুন সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যকর বাগারি কাঁচকলা-চিংড়ির ভর্তা।

। এবার গোল গোল লাড্ডু মানিয়ে পরিবেশন করুন। হ

মেথি-মটর খিচুড়ি

উপকরণ

পোলাওয়ের চাল দেড় কাপ
খোসাসহ মাষকলাই ডাল ১/২ কাপ
সিদ্ধ মটর ১/২ কাপ
মেথি শাক কুচি ১ কাপ
আস্ত গরম মশলা প্রয়োজনমতো
আস্ত জিরা ১ চা চামচ
পেঁয়াজ কুচি ১/২ কাপ
আদা, রসুনবাটা ১ টেবিল চামচ করে
হলুদ, জিরাগুঁড়া ১ চা চামচ
মরিচ, ধনেগুঁড়া দেড় চা চামচ করে
তেল পরিমাণমতো
লবণ স্বাদমতো

প্রণালি

খিচুড়ি রান্না করার আগের রাতে ডাল ভিজিয়ে রাখুন। রান্নার আগে আলাদা করে চাল ও ডাল ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। একটি গভীর হাঁড়িতে তেল গরম করে আস্ত জিরা ও আস্ত গরমমশলা ফোঁড়ন দিয়ে পেঁয়াজকুচি দিন। পেঁয়াজ হালকা বাদামি হলে একে একে বাটা ও গুঁড়া মশলা কষিয়ে ডাল মিশিয়ে পরিমাণমতো পানি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে ঢেকে রান্না করুন। ডাল সিদ্ধ হলে শাক ও মটর মিশিয়ে নিন। এবার চাল মিশিয়ে চালের দ্বিগুণ গরম পানি দিয়ে স্বাদমতো লবণ মিশিয়ে নিন। চালের সমান সমান পানি হলে চেরা কাঁচামরিচ মিশিয়ে, হাঁড়ির ঢাকনা লাগিয়ে হাঁড়িটি একটি তাওয়ার ওপর দিয়ে দমে রাখুন ১৫-২০ মিনিট। চাল সিদ্ধ হয়ে গেলে নামিয়ে নিন। এবার গরম গরম পরিবেশন করুন সুস্বাদু মেথি-মটর খিচুড়ি।

নোটস : মেথি শাকের পরিবর্তে শুকনা মেথি পাতা বা কাসৌরি মেথি দিয়েও এই খিচুড়ি রান্না করা যাবে।

আলু-মসুর ডালের সালাদ

উপকরণ

সিদ্ধ আলু ২ কাপ
(কিউব করে কাটা অথবা বেবী আলু)
খোসাসহ মুসুর ডাল ২-৩ টেবিল চামচ
আদা, রসুন বাটা সামান্য
হলুদগুঁড়া সামান্য
পেঁয়াজ কুচি ১/৪ কাপ
ধনেপাতা কুচি ১/৪ কাপ
চিলিফ্লেকস স্বাদমতো
লবণ স্বাদমতো
সালাদ ড্রেসিং-এর জন্যে

অলিভ অয়েল ১ টেবিল চামচ
লেবুর রস ১ টেবিল চামচ
ভিনেগার ১ চা চামচ
চাট মশলা ১ টেবিল চামচ
ড্রেসিং-এর সবকিছু চামচ দিয়ে একসাথে মিশিয়ে রাখুন।
টপিং-এর জন্যে
কেপার্স ২ চা চামচ
সিদ্ধ ডিম ২টি

প্রণালি

সামান্য হলুদ গুঁড়া, স্বাদমতো লবণ ও আদা-রসুন বাটা দিয়ে মসুর ডাল সিদ্ধ করে নিন। সিদ্ধ আলুর সাথে ডাল ও অন্যান্য উপকরণ একসাথে মিশিয়ে নিন। এবার এর সাথে কাঠের চামচ দিয়ে ড্রেসিং মিশিয়ে নিন। সালাদ বোলে উঠিয়ে ওপরে সিদ্ধ ডিম, কেপার্স ও ধনেপাতা দিয়ে গার্নিশ করে নিন।
পোলাও দিয়ে পরিবেশন করুন। অথবা শুধু সালাদ-ও পরিবেশন করতে পারেন।


ভুট্টা-ক্যাপসিকামের তেলানি ইলিশ


উপকরণ

ইলিশ মাছ - ৬-৭ টুকরা
ক্যাপসিকাম - ১ কাপ
(ছোটো কিউব করে কাটা)
সিদ্ধ ভূট্টা - ১/৪ কাপ
পেঁয়াজ বাটা - ১/২ কাপ
কাঁচামরিচ বাটা -২ টেবিল চামচ
হলুদ গুঁড়া - ১ চা চামচ
মরিচ গুঁড়া - ১/২ চা চামচ
আস্ত কালোজিরা - ১ চা চামচ
সরিষার তেল - ১ কাপ
লবণ স্বাদমতো

প্রণালি

ইলিশ মাছের সাথে তেল ও কালোজিরা ছাড়া সব উপকরণ মাখিয়ে আধা ঘণ্টা রেখে দিন। কড়াইয়ে তেল গরম করে কালোজিরা ফোঁড়ন দিয়ে মাখানো ইলিশ ঢেলে দিন। মিনিটখানেক নেড়েচেড়ে ঝোলের জন্যে পরিমাণমতো পানি দিয়ে, ঢাকনা দিয়ে ঢেকে মৃদু থেকে মাঝারি আঁচে রান্না করুন। তেল ছেড়ে এলে নামিয়ে নিন। গরম ভাত কিংবা পোলাও দিয়ে পরিবেশন করুন ভিন্নস্বাদের তেলানি ইলিশ।