বুধবার,১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯
হোম / খাবার-দাবার / রেসিপি- পুরভরা পুরি
০৪/১৫/২০১৯

রেসিপি- পুরভরা পুরি

-

পুরভরা পুরি

মজার এক নাস্তা হলো পুরি। প্লেইন পুরির পাশাপাশি রয়েছে নানান ধরনের পুরভরা পুরি। ডাল থেকে শুরু করে পিঁয়াজ, মাছ-মাংস কত কি দিয়েই না এই পুর বানানো হয়। এমন কয়েকটি পুরির রেসিপি আজ পাঠকদের জন্য দেওয়া হলো।

ডালপুরি


উপকরণ

পুরির ডো বা খামিরের জন্য-
ময়দা- ২ কাপ
লবণ- স্বাদমতো
তেল- ৪/৫ চা চামচ
পানি- ডো তৈরির জন্য
ভিতরের ফিলিং-এর জন্য
মসুর ডাল- ১/২ কাপ
পেঁয়াজকুচি- ১ চামচ
হলুদগুঁড়া- ১/২ চা চামচ
জিরাগুঁড়া- ১/২ চা চামচ
শুকনো মরিচ- ৩/৪ টি
কাঁচামরিচ কুচি- ২টি
ধনেপাতাকুচি- ১ টেবিল চামচ
লবণ- স্বাদমতো
তেল- ২ চা চামচ
রসুনবাটা- ১/৪ চা চামচ

প্রণালি

প্যানে তেল দিয়ে তাতে পেঁয়াজকুচি, রসুনবাটা দিয়ে ভুনে নিয়ে ডাল ছেড়ে দিয়ে পরিমাণমতো পানি দিন। লবণ দিন। এই পানি শুকিয়ে যেতেই ডাল সিদ্ধ হয়ে আসবে।
ডাল হয়ে এলে যখন পানি শুকিয়ে যাবে তখন ডাল কচলে এর সাথে শুকনো মরিচ টেলে গুঁড়া করে দিন, সাথে ধনেপাতাকুচি মিশিয়ে নিন।
পুরির ডো তৈরির জন্য একটি বোলে ময়দা, লবণ মিশ্রণ করে নিয়ে তাতে তেল ও পরিমাণমতো পানি নিয়ে ময়ান দিন। খামির বা ডো একটু শক্ত রাখতে হবে।
এবার খামির হতে ছোট ছোট বলের মতো হাত দিয়ে ছিঁড়ে নিন। সবগুলো বল হাতের তালুতে গোল করে নিন। এবার প্রতিটি বলের মাঝে পুর ভরে বেলে নিন। সাবধানে পুরি বেলতে হবে যেন ডাল বের হয়ে না যায়। বেলে নেওয়া পুরি ডুবেতেলে ভেজে নিন।

আলুপুরি

উপকরণ

আলু-২ কাপ
পেঁয়াজকুচি- ২টেবিল চামচ
শুকনা মরিচ-৩টি
পুদিনা পাতাকুচি- ২টেবিল চামচ
সরিষার তেল- ৪টেবিল চামচ
ময়দা-২ কাপ
লবণ- স্বাদমতো
তেল- ভাজার জন্য

প্রণালি

আলুতে ১ কাপ পানি, ও লবণ দিয়ে সিদ্ধ করে নামিয়ে হাত দিয়ে মথে নিন। সরিষার তৈলে শুকনা মরিচ টেলে গুঁড়া করে নিন। পেঁয়াজ বেরেস্তা করে গুঁড়া করে নিন।
আলুর সাথে তেল, মরিচগুঁড়া, পেঁয়াজ বেরেস্তা গুঁড়া, পুদিনাপাতা কুচি মিশিয়ে ভর্তা করে নিবেন।
ময়দার সাথে ৫ টেবিল চামচ তৈল ও লবণ দিয়ে ঝরঝরে করে নিবেন। পরিমাণমতো পানি মিশিয়ে মথে নিন। ময়দার ডো ভাগ করে নিন। প্রতি ভাগ ময়ানে আলুর পুর ভরে মুখ বন্ধ করে নিবেন।
পিঁড়িতে আলুর পুরি বলে নিন। কড়াইয়ে তৈল গরম করে ডুবোতেলে কম আঁচে মচমচে করে ভেজে নিন।

কিমা পুরি


উপকরণ

পুরের জন্য-

মাংসের কিমা (মুরগির/গরুর/খাসির)- ১/২ কাপ
পেয়াঁজকুচি- ১/৪ কাপ
কাঁচা মরিচকুচি- ১টেবিল চামচ অথবা স্বাদ অনুযায়ী
হলুদের গুঁড়া- ১/২ চা চামচ
জিরার গুঁড়া- ১/২ চা চামচ
গরম মশলার গুঁড়া- ১/২ চা চামচ
আদাবাটা- ১/২ চা চামচ
রসুনবাটা- ১/২ চা চামচ
ধনিয়া পাতাকুচি- ২ চা চামচ
তেল- ১ টেবিল চামচ
লবণ- ১/২ চা চামচ অথবা স্বাদ অনুযায়ী

রুটির জন্য-

ময়দা- ১ কাপ
তেল/ঘি- ২ টেবিল চামচ
লবণ- ১/৪ চা চামচ
কুসুম গরম পানি- পরিমাণমতো (খামির মাখানোর জন্য)
তেল- ডুবোতেলে ভাজার জন্য

প্রণালি

একটি পাত্রে তেল গরম করে পেয়াঁজকুচি দিয়ে নরম না হওয়া পর্যন্ত নাড়–ুন। তারপর আদাবাটা, রসুনবাটা, হলুদ গুঁড়া, জিরার গুঁড়া, লবণ, কাঁচামরিচকুচি দিয়ে কয়েক সেকেন্ড নাড়ুন।
মশলা থেকে তেল আলাদা হলে মাংসের কিমা দিয়ে নাড়–ুন এবং সামান্য পানি দিয়ে পাত্রটি ঢেকে দিন। কিমা সিদ্ধ হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর পাত্রের ঢাকনা খুলে দিয়ে কিমার অতিরিক্ত পানি শুকিয়ে ফেলুন।
কিমা তৈরি হয়ে গেলে একটি পেপার টাওয়েলে ঢেলে নিন। এটা কিমার অতিরিক্ত তেল শুষে নিতে সাহায্য করবে। এবার কিমাটা ঠান্ডা হওয়ার জন্য রাখুন।
এখন খামির তৈরি করার জন্য একটি পাত্রে ময়দা, লবণ এবং তেল নিয়ে ভালোভাবে মিশান যেন তেল ময়দাটা খাস্তা হয়। তারপর আস্তে আস্তে কুসুম গরম পানি দিয়ে ময়দা মাখান। খামির খুব ভালোভাবে নরম হওয়া পর্যন্ত মাখাতে হবে।
এবার খামিরটা কে ছোট ছোট বল আকারে ভাগ করে নিন। একটি বল নিয়ে গোল বাটির মতো বানিয়ে তাতে কিমার পুর দিন এবং বাটির মুখ এমনভাবে বন্ধ করুন যেন কিমারপুর বলের ভিতর থাকে। এভাবে সব বলগুলো কিমার পুর দিয়ে তৈরি করুন।
এবার রুটির মধ্যে পুর ভরে বেলে নিন। ডুবোতেলে ভেজে নিন।


-রেসিপি ও ছবি : নাজিয়া জামান