সোমবার,২২ এপ্রিল ২০১৯
হোম / বিবিধ / দুজনের প্রফেশন যখন এক...
০৩/১৬/২০১৯

দুজনের প্রফেশন যখন এক...

-

সঙ্গী হিসেবে কাউকে বেছে নেওয়ার ক্ষেত্রে তার পেশা একটি মুখ্য বিষয় হিসেবে বিবেচিত হয়। অনেকেই নিজের পেশা থেকেই জীবনসঙ্গী খুঁজে নিতে চান। কেননা এতে করে সঙ্গীর সঙ্গে বোঝাপড়া ভালো হয়, সম্পর্কের ভিত মজবুত থাকে। একে অপরের সুবিধা-অসুবিধাগুলোকে বুঝতে যেমন অসুবিধা হয় না, ঠিক একইভাবে কর্মক্ষেত্রে প্রয়োজনে পারস্পরিক সাহায্য করা যায়। তবে এতসব সুবিধার সাথে সাথে কিছু অসুবিধাও কিন্তু আছে।
প্রথমেই চলুন সুবিধাগুলো সম্পর্কে জেনে নিই।

একে অপরের কাজ সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকা

কর্মক্ষেত্রের চাপ কখনো কখনো সম্পর্কের উত্তাপ বাড়িয়ে দেয়। অফিস টাইমিং, ডেডলাইনসহ কর্মক্ষেত্র সংশ্লিষ্ট আরও বিভিন্ন বিষয় আছে, যা আপনার ও সঙ্গীর মধ্যকার সম্পর্ককে জটিল করে তুলতে পারে। এক্ষেত্রে দু’জনের পেশা যদি একই হয়, তাহলে কর্মক্ষেত্র সংশ্লিষ্ট সমস্যাগুলো নিয়ে সঙ্গীর সঙ্গে টানাপড়েন হওয়ার অবকাশ থাকে না বললেই চলে।



কর্মজীবন নিয়ে আলোচনার সুযোগ

অনেকেই কর্মক্ষেত্রের সমস্যা নিয়ে বাসায় সঙ্গীর সঙ্গে কথা বলতে চান না। ব্যক্তিগত ও পেশাগত জীবনকে সম্পূর্ণভাবে আলাদা করে রাখতে যান। কিন্তু যদি আপনি কর্মক্ষেত্র সংশ্লিষ্ট কোনো সমস্যার সমাধান খুঁজতে বেগ পান, তাহলে অবশ্যই আপনার সঙ্গীর কাছ থেকে পরামর্শ চাইতে সঙ্কোচ করা উচিত নয়। দু’জনেই একই পেশার হওয়ার ফলে আপনার সঙ্গী সমস্যার সঠিক সমাধানের সন্ধান যেমন দিতে পারবে, ঠিক একইভাবে আপনার মানসিক শক্তি হয়ে প্রতিকূল অবস্থা পাড়ি দিতে আপনাকে সাহায্য করবে।

একই লক্ষ্যে একসাথে পথচলা

প্রত্যেক মানুষের ব্যক্তিগত ও পেশাগত লক্ষ্য থাকে। সেই লক্ষ্যগুলো পূরণের জন্যে মানুষ অক্লান্ত পরিশ্রম করে। আর আপনি ও আপনার সঙ্গী যদি একই লক্ষ্যের সারথি হোন, তবে তো সোনায় সোহাগা। একে অপরকে পরিপূর্ণভাবে পারস্পরিক লক্ষ্যপূরণে সাহায্য করার মাধ্যমে একটি ইতিবাচক ভাব নিজেদের মাঝে ছড়িয়ে যায়, যা সম্পর্কের কঠিন মারপ্যাঁচগুলোকে দূরে ঠেলে দেয়।

অসুস্থ প্রতিযোগিতা

একই পেশায় কাজ করার ফলে আপনার ও আপনার সঙ্গী অনেক সুফল যেমন পাবেন, একইসাথে এরফলে কিছু নেতিবাচক বিষয়েরও অবতারণা হতে পারে। যেমন সঙ্গীর সাথে আপনার একধরনের পেশাগত প্রতিযোগিতা তৈরি হতে পারে, যা একসময় ইগোর দ্বন্দ্বে রূপান্তরিত হতে পারে। আর তখন সম্পর্কে অনাকাক্সিক্ষত কলহ সৃষ্টি হতে পারে। আর তাই সবসময় একে অপরের অবস্থান সম্পর্কে সচেতন ও সদাতৎপর থাকতে হবে। যাতে করে কোনো প্রতিকূল পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার পূর্বেই তা নিয়ন্ত্রণে আনা যায়।

পেশাগত প্রতিকূলতা

চাকরির বাজারে যে-কোনো সময়ই প্রতিকূল পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। অধিকাংশ চাকরির স্থায়িত্বের ক্ষেত্রে নিশ্চয়তা নেই বললেই চলে। এক্ষেত্রে দু’জনেই একই পেশায় থাকার ফলে অর্থনৈতিকভাবে প্রতিকূল পরিস্থিতির সম্মুখীন হওয়া অস্বাভাবিক নয়। আর তাই যথেষ্ট সঞ্চয় রাখা অত্যন্ত জরুরি, অন্যথায় সম্পর্কের অবনতি ঘটতে পারে।

নিন্দুকের মুখে পড়া

বিনোদন জগতে কাজ করা পেশাজীবীদের এই বিষয়টি অন্যদের তুলনায় বেশি ভোগায়। সঙ্গীদের মধ্যে একজনের পেশাগত সাফল্য বা ব্যর্থতা অন্যজনের পেশাগত অবস্থানের সাথে নির্বিচারে তুলনা করে নিন্দুকেরা। তবে এর মানে এই নয় যে, অন্যান্য পেশায় থাকা কাপলদের এমন নিন্দুকদের মোকাবেলা করতে হয় না। বরং প্রত্যেক মুহূর্তেই তারা আপনাকে বা আপনার সঙ্গীকে খাটো করে দেখার চেষ্টায় মত্ত থাকে। কখনো তারা শুভানুধ্যায়ী পরিবারের সদস্য, কখনো পক্ষপাতদুষ্ট বন্ধু-বান্ধব, আবার কখনো নাক উঁচু প্রতিবেশী হিসেবে আপনাদের সম্পর্ককে ঠাট্টার বিষয়ে পরিণত করতে পারে। আর তাই নিন্দুকদের প্রতি মুহূর্তে মোকাবেলা করার মতো স্মার্ট হতে হবে আপনাদের।

-হোসাইন মাহমুদ আব্দুল্লাহ
ছবি : শুহরাত শাকিল চৌধুরী