শনিবার,২৩ মার্চ ২০১৯
হোম / অন্দর-বাগান / অন্দরসাজ: বসন্ত আনুন নিজ আঙিনায়
০২/২০/২০১৯

অন্দরসাজ: বসন্ত আনুন নিজ আঙিনায়

- মাহদী

শীতের রুক্ষ হাওয়ায় প্রকৃতির সব সৌন্দর্য যেন লুকিয়ে থাকে কোথাও। বসন্তের আগমন তাই সবার জন্য সুখের সংবাদ। এ যেন প্রকৃতির সাথে নিজেকেও নতুন করে গড়ে তোলার সময়। আসছে ১৩ ফেব্রুয়ারি বাংলা বর্ষের পহেলা ফাল্গুন। সেই দিনে হলুদ বসন্তকে আপন করে গ্রহণ করতে আপনি নিজের বাড়িকে সাজিয়ে নিতে পারেন ব্যতিক্রমী। বসন্ত বরণের জন্য আপনি নিজ উদ্যোগে করতে পারেন অনেককিছু।

পাখির আপ্যায়ন

শীতের ছুটির ঘণ্টা বাজলেই শুরু হয় কোকিলের ডাক। উড়ন্ত জীবগুলো খুঁজে পায় নতুন জীবন। গানের কোকিল ছাড়াও শহরে আছে চড়ুই, কবুতর, দোয়েল, টিয়া এবং অন্যান্য পাখি। বসন্তে এই পাখিদেরকে নিজের ঘরে আনতে চাইলে আপনি বারান্দায় ফিডিং নেট কিংবা ছিদ্র করা প্লাস্টিকের বোতলে করে রাখতে পারেন বাদাম, গম, বার্লি কিংবা চালের কুঁড়া। পাখিরা আপনাআপনি চলে আসবে আপনার আঙিনায়। বার্ড ফিডারের পাশাপাশি আপনি পাখিদের জন্য খাওয়ার পানির ব্যবস্থাও করতে পারেন। বারান্দার বাইরে তক্তা ঝুলিয়ে সেখানে পানির পাত্র বেঁধে রেখে দিতে পারেন। পাখির বিষ্ঠা থেকে অবশ্য কিছুটা সতর্ক থাকা জরুরি। বারান্দায় পাখি ঢুকে অনেক সময় কাপড়চোপড় নষ্ট করে। তবে এর জন্য আপনি ফিডার এবং পানির পাত্র বারান্দার বাইরে স্থাপন করতে পারেন।

ফুলের সুবাস

ফুলের ছড়াছড়ি পুরো বসন্ত জুড়েই। গাঁদা, ডালিয়া, টিউলিপ, গোলাপ, রঙ্গন, বেলি কিংবা রজনীগন্ধা, যে-কোনো ফুলের সন্ধান পাবেন ফুলের দোকানে এই মৌসুমে। সময় করে ফুল নিয়ে আসতে পারেন নিজ বাসা বসন্তের রঙে সাজিয়ে নিতে। ফুলের সুবাসে মেহমান অতিথিকেও আমন্ত্রণ করতে পারবেন মনের আনন্দে।

হ্যাঙ্গিং বাস্কেট

শহরের জঞ্জালে নিজের শখের বাগান করার জায়গা করে নাওয়া বেশ কষ্টসাধ্য। নিজের বাসার মধ্যেই বাস্কেটের মধ্যে গাছ লাগিয়ে বাগান করে নিতে পারবেন। বাসায় যে রুমে আলো বাতাস একটু বেশি, সেখানে ছাদে পেরেক লাগিয়ে বাস্কেট ঝুলিয়ে দিতে পারেন। ক্যাকটাস, লিলি, নাইন-ও-ক্লক, কিংবা চেরির ছোট গাছ টবে করে রাখতে পারবেন সেই ঝুলন্ত বাস্কেটে। মানি ট্রি কিংবা পাথরকুচিও রাখা যায়। বসন্তের সময় এই গাছপালা বেড়ে উঠবে আপন গতিতে এবং আপনার ঘরে হবে নতুন জীবনের আগমন। হ্যাঙ্গিং বাস্কেটে গাছের পানি লাগে কম এবং আঁকারে ছোট হওয়ায় নাড়াচাড়া করা যায় বেশ সহজ। বারান্দায় হ্যাঙ্গিং গার্ডেন করলে সেখানে পুদিনা, ধনিয়া, তুলসি কিংবা মরিচের গাছও রাখতে পারবেন। শখের বাগান থেকেই তখন নিত্যদিনের রান্নার চাহিদা মিটিয়ে নিতে পারবেন।

ঘরের ফটকেই বসন্ত

বাড়িতে ঢুকতেই ফুলের সুবাস পেলে মন্দ হয় না। সাধারণত ঘরের দরজার সামনে ফাঁকা জায়গা থাকে। বসন্তের আগমনের সাথে সাথে নিজ বাড়ির দরজাকে প্রকৃতির রূপ দিতে পারেন। টবে করে মাধবীলতা, জবা কিংবা গোলাপের গাছ রাখতে পারেন দরজার পাশেই। অথবা স্টিলের ফ্রেম করে অর্ধগোলোকে ভাইন জাতীয় গাছ লাগাতে পারেন। বড় ছোট টব মিলিয়ে নানারঙের ফুলগাছও স্থাপন করা যেতে পারে। কাঠের স্ট্যান্ড করে ফুলের টব উঁচুনিচু করে স্থাপন করলে আরও সুন্দর হবে। তাছাড়া, গাছপালার পাশাপাশি আপনি ঘরের ফটক নতুন করে রঙ করে নিতে পারেন। হাল্কা হলুদ, ফেডিং কাঠের রঙ কিংবা পাথরের টেক্সচার ব্যবহার করতে পারেন যাতে করে সবুজ বৃক্ষ এবং রঙিন ফুলগুলি ফুটে আসে।
সেন্টেড ক্যান্ডেল
আজকাল বাজারে অনেক রকমের সেন্টেড মোমবাতি পাওয়া যায়। বসন্তের আগমনের সাথে সাথে প্রতি সন্ধ্যায় বাড়িতে সেন্টেড ক্যান্ডেল জ¦ালিয়ে একটি সুন্দর পরিবেশ তৈরি করতে পারেন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক পেজ এবং অন্যান্য অনলাইন শপে বিভিন্ন ফুল এবং ফলের সুবাসের ক্যান্ডেল কিনতে পারবেন।