সোমবার,২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯
হোম / ফিচার / বাংলাদেশের পুরুষ ফুটবল দলের প্রধান কোচ হলেন নারী
০২/১৪/২০১৯

বাংলাদেশের পুরুষ ফুটবল দলের প্রধান কোচ হলেন নারী

- অনন্যা ডেস্ক:

মিরোনা খাতুন

বাংলাদেশের পুরুষ জাতীয় ফুটবল দল যখন ফিফা র‌্যাংকিংয়ে তলানিতে দাঁড়িয়ে, তখন আলোর পথ দেখাচ্ছেনএই মহিলারাই। নিজেদের সাফল্যগাথা দিয়ে ঢেকে দিচ্ছেন পুরুষ দলের ব্যর্থতা। বাংলাদেশের ফুটবল কর্তাদেরও এখন এই মেয়েদের নিয়ে গর্বের শেষ নেই।
ঠিক এই সময়েই বাংলাদেশের ফুটবল ইতিহাসে নতুন করে নজির গড়লেন মিরোনা খাতুন। বাংলাদেশের পেশাদার লিগে ঢাকা সিটি এফসির প্রধান কোচ হয়ে তিনি বুঝিয়ে দিলেন, চাইলে মেয়েরাও সব অর্জন করতে পারেন।








ইউরোপের দেশগুলোতে পুরুষ দলের নারী কোচ দেখা গেলেও এই উপমহাদেশে তেমনটা দেখা যায় না। আর এখানেই ব্যতিক্রম মিরোনা।
বাংলাদেশের ইতিহাসে এই প্রথম কোন নারী, পুরুষ ফুটবল দলের কোচের দায়িত্ব পেলেন। ঢাকা সিটি এফসির প্রধান কোচের দায়িত্ব পেয়ে অভিষেক ঘটেছে মিরোনার নতুন ক্যারিয়ারের।
২০০৯ সালে প্রথম জাতীয় ফুটবল দলের জার্সি গায়ে মাঠে নামেন বাগেরহাটের ফুটবলার মিরোনা। দীর্ঘ সাত বছর নিয়মিতভাবে মাঠে মিডফিল্ডার হিসেবে খেলেন। ২০১৬ সালে জাতীয় ফুটবল দল থেকে অবসর নিলেও অ্যথলেট হিসেবে খেলেছেন নৌবাহিনী ও বিজেএমসির হয়ে। ফুটবলার এবং অ্যাথলেট হিসেবে তার ঝুড়িতে রয়েছে সর্বমোট ১৩টি স্বর্ণ।
এবার কোচিং ক্যারিয়ারে তিনি কতোটা দ্যুতি ছড়াতে পারেন, তা দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন সকল ফুটবলপ্রেমীরা।
প্রথম ম্যাচে যদিও হারের স্বাদ নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে। তার দল ঢাকা সিটি ১-০ গোল ব্যবধানে হেরেছে ফরাশগঞ্জের কাছে। তবে এতে মোটেও হতাশ নন মিরোনা।
ঢাকা সিটি এফসির প্রধান কোচের দায়িত্ব পাওয়া প্রসঙ্গে মিরোনা জানান, ফুটবল ও অ্যাথলেট হিসেবে বর্ণাঢ্যময় ক্যারিয়ার শেষে নতুন জীবনে তিনি খুব খুশি। এমনকি ভারতের একটি রাজ্যের কোচিংয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়ে চ্যাম্পিয়নশিপ লিগে ঢাকা সিটি দলের দায়িত্ব নেন তিনি।

মিরোনা বলেন, আসলে এটা আমার জন্যে অনেক বড় পাওয়া। আমি খুব রোমাঞ্চিতবোধ করছি।
তবে তিনি এখানেই থেমে থাকতে চান না। এ বছরই তার কোচিং ক্যারিয়ারের 'এ' লাইসেন্স সমপন্ন করতে চান বলে জানান তিনি।
একজন নারীা হয়ে গোটা একটা পুরুষ দলকে সামলাচ্ছেন মিরোনা। অনেক স্বপ্নবাজ মেয়েদের প্রেরণার উৎস এখন তিনি।
তাদের উদ্দেশ্যে মিরোনা বলেন,'অন্য মেয়েদের প্রতি আমার এই বার্তাটা থাকবে যে, তারা কাজ করে যাক। আপনি যদি কোয়ালিটি সম্পন্ন হন, তাহলে পারফরম্যান্স দেখানোর সুযোগ পাবেন। আর সুযোগ পেলে মেয়েরা আরও এগিয়ে যাবে।'