বুধবার,১৬ জানুয়ারী ২০১৯
হোম / ভ্রমণ / সেন্তোসা আইল্যান্ডঃ এক আনন্দরাজ্য
১১/১৫/২০১৮

সেন্তোসা আইল্যান্ডঃ এক আনন্দরাজ্য

-

মালয় ভাষায় সেন্তোসা অর্থ শান্তি। শান্তিময় স্থানের পাশাপাশি বর্তমানে বিশ্বের অন্যতম আনন্দ-ফূর্তির গন্তব্যের তকমাটাও এখন সিঙ্গাপুরের সেন্তোসা নগরীর দখলে। হোটেল, লাক্সারি বাড়ি, প্রাইভেট ক্লাবসহ সমুদ্র সৈকত, গলফ কোর্স, ইয়ট ক্লাব কী নেই এই আধুনিক পর্যটন নগরীতে।

সেন্তোসাঞবতে একের পর এক দারুণ সব অ্যাক্টিভিটিজ আর ডেস্টিনেশনস আপনাকে ব্যস্ত রাখবে পুরো ভ্রমণের সময়। এই দ্বীপের আকর্ষণীয় দিকগুলো সম্পর্কে জানিয়ে দিচ্ছি।

ইউনিভার্সাল স্টুডিও সিঙ্গাপুর
২০১৭ সালে এই বিশ্বখ্যাত থিম পার্ককে দক্ষিণ এশিয়ার সেরা পার্কের উপাধি দাওয়া হয়। একটি বিশাল রোলার কোস্টারের পাশাপাশি আছে আরও অনেক আকর্ষণ। আছে বাচ্চাদের জন্য জনপ্রিয় সব অ্যানিমেটেড মুভি চরিত্রের মুখোশধারী ফিগার। সব মিলিয়ে ইউনিভার্সাল স্টুডিও পরিবার নিয়ে সময় কাটানোর জন্য একেবারে পারফেক্ট।

সি অ্যাকুয়ারিয়াম
প্রায় এক লক্ষরও বেশি মাছ নিয়ে সি অ্যাকুয়ারিয়াম সিঙ্গাপুরের একটি অন্যতম নিদর্শন। আছে হাঙ্গর, বিশাল অক্টোপাস, ডলফিন এমনকি ক্ষুদ্র আঁকারের জেলি ফিশ ও হর্স ফিস। হাঙ্গর টানেলের মধ্য দিয়ে গেলে মুগ্ধ হবেন এইসব প্রাণির বিশালতা দেখে। রক পুলে গিয়ে বিভিন্ন প্রজাতির মাছের সাথে খেলতেও পারবেন।

অ্যাডভেঞ্চার কোভ
পানি নিয়ে খেলার অন্য মাত্রা যোগ হয়েছে এই পার্কে। বিশাল পানির রাইড, ওয়াটার কোস্টার, কৃত্রিম নদী সব আছে পার্কের মধ্যেই। তাছাড়াও, রেইনবো রিফে গিয়ে স্নর্কেল করে ঘুরে দেখতে পারবেন প্রায় ২০,০০০ প্রজাতির মাছ। বাচ্চা, বড় সবার কাছেই অ্যাডভেঞ্চার কোভ অনেক প্রিয়।

ট্রিক আই জাদুঘর
নিজের চোখকে যদি ফাঁকি দিতে চান, চলে যাবেন এই মিউজিয়ামে। ছবি তুলবেন বিভিন্ন আকার ভঙ্গিতে এবং বন্ধুদের দেখিয়ে বলবেন ঘুরে এসেছি এক আজব দুনিয়ায়! এই ইন্টার‌্যাক্টিভ জাদুঘরে ঘুরে বেশ মজা করতে পারবেন।

মাদাম তুসো মোম জাদুঘর
মাদাম তুসো জাদুঘরের নাম শোনেনি এমন মানুষ হয়ত হাতে গোনা। বিশ্বের এই জনপ্রিয় জাদুঘরের একটি শাখা আছে সিঙ্গাপুরে। সেখানে গিয়ে ছবি তুলতে পারবেন বিশ্বের নামিদামি সব ব্যক্তির মোমের মূর্তির সাথে। শাহরুখ খান, অমিতাভ বাচ্চান, সালমান খান থেকে শুরু করে বারাক ওবামা কে নেই এই জাদুঘরে!

মেগা অ্যাডভেঞ্চার পার্ক
রোমাঞ্চকর অভিজ্ঞতা নিতে হলে আপনার যেতে হবে এই পার্কে। জিপ লাইনে ঝুলে চলে যাবেন বনের মধ্যে। সেখানে পাহাড় বেয়ে চড়বেন কিংবা প্যারা জাম্প করে চূড়া থেকে নিচে নামবেন পাখির মতো। ভয়কে জয় করে অ্যাডভেঞ্চার পেতে এই পার্কের বিকল্প নেই।

আইফ্লাই
আকাশে চড়ে স্কাই ডাইভ করার সুযোগ সবার হয় না। সেন্তোসা আইল্যান্ডে আইফ্লাই ইনডোর স্কাই ডাইভিং জোনে একটি টিউবে ঢুকিয়ে আপনাকে ছেড়ে দেয়া হবে বাতাসের বিপরীতে ভেসে বেড়ানোর জন্য। প্রফেশানাল ডাইভারদের মতে এই টিউবে পাওয়া অভিজ্ঞতার সঙ্গে একেবারে বাস্তব অভিজ্ঞতার তেমন একটা পার্থক্য নেই।

মনভোলানো সব রিসোর্ট ছাড়াও সেন্তোসা আইল্যান্ডে রয়েছে বেশ কিছু পাহাড় এবং সুন্দর শান্ত সৈকত। হাতে সময় থাকলে আপনারা বিভিন্ন স্থানে ঘুরে আসতে পারবেন। অনেক ল্যান্ডমার্ক ঘুরে দেখতে পারবেন। যেমন - টাইগার স্কাই টাওয়ার, সিঙ্গাপুর বাটারফ্লাই এন্ড ইনসেক্ট কিংডম, ভিভো সিটি শপিং মল, গার্ডেন বাই দ্যা বে, আরও নানা ট্যুরিস্ট অ্যাট্রাকশন।

কী খাবেন?
সেন্তোসা আইল্যান্ডে খাওয়ার দোকানের অভাব নেই। প্যান-এশিয়ান, ইন্ডিয়ান কিংবা ওয়েস্টার্ন, সব পাবেন আইল্যান্ডে। রিসোর্টগুলোর ভেতরে দাম একটু চড়া, তবে বাইরের রেস্টুরেন্টগুলোতে খাওয়ার বেশ সাশ্রয়ী এবং সুস্বাদু। আরও আছে স্ট্রিট ফুড - দামে সস্তা, খেতেও টেস্টি। সিঙ্গাপুরের নিজস্ব কিছু ডিশ অবশ্যই চেখে দেখবেন। যেমন - লাকসা, চিলি র্ক্যাব, চিকেন রাইস, ওয়েস্টার ওমলেট - এগুলোর স্বাদ একবার হলেও নিতেই হবে।

চলাচল
ট্যাক্সি কিংবা গাড়ি ভাড়া করে নিতে পারবেন সহজেই। তবে আইল্যান্ডের কেবল কার সিস্টেমও বেশ ভালো। একদিনের চুক্তি করে নিয়ে ঘুরলে বেশ কিছু স্থান কভার করা যাবে।

টিপস
আবহাওয়া বেশ ভালো। তাই সুতির জামাকাপড় নিয়ে গেলেই হবে।

সিঙ্গাপুর ঘুরতে হলে সেন্তোসা আইল্যান্ডে সবার শেষে যাওয়া উত্তম। কেননা এই রঙ্গিন পর্যটন শহরে একবার ঢুকলে আর অন্য কথাও যেতে ইচ্ছে করবে না।

- কাজী মাহদী