রবিবার,১৯ অগাস্ট ২০১৮
হোম / জীবনযাপন / নবদম্পতিদের প্রথম ঈদ
০৬/১১/২০১৮

নবদম্পতিদের প্রথম ঈদ

-

পারিবারিক সম্পর্ক নিঃসন্দেহে পৃথিবীর সুন্দরতম সম্পর্ক। কর্মজীবনের ব্যস্ততার কারণে পরিবারের সবার সঙ্গে একসাথে থাকা না হলেও ঈদের ছুটিতে চিত্রটা হয় ভিন্ন। এ সময়টা পরিবারের সবার সঙ্গে আরো একবার একাত্মতা প্রকাশ করে বন্ধন দৃঢ় করার সময়। আর যারা নতুন দাম্পত্য জীবন শুরু করছেন তাদের জন্য এই ছুটি তো আরও বিশেষ কিছু, নতুন পরিবেশে নতুন পরিবারে নিজের স্থান পাকাপোক্ত করার মোক্ষম সময়।

সদ্যবিবাহিত দম্পতিদের জন্য এবারের ঈদ হবে পারিবারিকভাবে প্রথমবারের মতো উৎসব পালনের সময়। সঙ্গীর পরিবারের সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেয়ার উপযুক্ত সময় তাই এটাই। আর এজন্য চাই সঠিক পরিকল্পনা, মানসিকতা এবং সে অনুযায়ী কাজের বাস্তবায়ন।

পরিকল্পনা করুন সবার আগে
আমাদের শহুরে জীবনে ছুটিছাটা একদম মাপা। তা হোক ঈদ বা পূজার ছুটি। তবে দারুণ একটা ছুটি কাটাতে আপনাকে আগে প্ল্যানিংয়ের কাজটা সেরে ফেলতে হবে। উত্তম পরিকল্পনাই আপনার ছোট ছুটির দিনগুলোতে মনে রাখার মত কিছু স্মৃতি তৈরি করতে সাহায্য করবে। ব্যাপারটা এখানে শুধুমাত্র দুজনের নয়, বরং একে অপরের পরিবারের প্রকৃত সদস্য হয়ে ওঠার সময়ও। তাই এই ঈদে শ্বশুরবাড়িকে ঘিরে থাকা চাই বিশেষ পরিকল্পনা। পরিকল্পনায় আগে যাতায়াতের ব্যাপারটা মাথায় রাখুন। কারণ ছুটিতে যে পথেই যাতায়াত করুন না কেন অতিরিক্ত মানুষের চাপ থাকেই। তাই আগেভাগেই টিকিট করে রাখা, বাইরে ঘুরতে গেলে হোটেলের খোঁজখবর নেয়া ইত্যাদি বিষয়গুলোতে গুরুত্ব দিন।

উদার হোন, ভালোবাসা দিন
বিয়ের পর স্বামী, নতুন সংসার, নতুন পরিবেশ- সব মিলিয়ে আলাদা একটা পরিবেশ। ছেলেদের ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। তাই নতুন পরিবারের ছোট-বড় সবার সাথে একটা আত্মিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে চেষ্টা করুন। এর আগে শ্বশুরবাড়ির সবার সম্পর্কে জেনে নিন এবং সেভাবে আচরণ করার চেষ্টা করুন। খোলা মনে সবার সাথে মেলামেশা করাটা জরুরি।

সবার জন্য গিফট
একটা জমজমাট ছুটি কাটাতে সবার জন্য করতে পারেন সারপ্রাইজ গিফটের ব্যবস্থা। উপহার সামান্য কিছুই হতে পারে কিন্তু তা সবার আনন্দ বাড়িয়ে দিবে কয়েক গুণ, এক নিমিষেই সবার কাছের মানুষের পরিণত হবেন আপনি।

ফ্যামিলি ডাইনামিকস বুঝিয়ে বলুন
পরিবারের ভিন্নতায় সদস্যদের আচার-আচরণে, রুচি ও অভ্যাসে থাকতে পারে ভিন্নতা। একেক পরিবারের সংস্কৃতি একেক রকম। নিজের অভ্যস্ততার বাইরে অন্যের রুচি ও অভ্যাসকে অনেক সময়ই মেনে নিতে হয়। তাই এই ঈদে গেট-টুগেদারের আগেই একে-অপরকে নিজের ফ্যামিলির আচার-আচরণ, বিশ্বাস, রীতি-নীতি এসব সম্পর্কে বুঝিয়ে বলুন। এতেই সকলের সাথে অবসরটা কাটবে দারুণ।

সবাইকে নিয়ে ঘুরতে যাওয়া
বিয়ে যে শুধু দুজন মানুষের তা তো নয়। বন্ধন দুটি পরিবারের। আর সময়টা যখন বিশেষ ছুটির, এইতো সময় সবাইকে একসাথে জানা ও বুঝার। তাই ঈদ বা অন্য কোনো উৎসবের আনন্দের সাথে ভালোবাসার আনন্দকে মিলিয়ে চমৎকার একটা ছুটি কাটাতে চলে যেতে পারেন নিরিবিলি পাহাড়ে বা সমদ্রের কাছাকাছি।

ছুটির দিনগুলো ভাগ করে নিন
হতে পারে ঈদ বা অন্য কোনো উপলক্ষ, ছুটির দিন হাতেগোনা। কিন্তু কথা দেয়া আছে বন্ধুদের, প্রিয়জনের এবং নতুন বিয়ে করলে দুটি পরিবার। কার সাথে কাটাবেন সময়টা এমন দ্বিধায় না পড়ে সময়গুলো ভাগ করে নিয়ে সকলের সাথেই আনন্দ-অবসরে সামিল হোন। শ্বশুরবাড়ি না বাপের বাড়ি এমন দোটানায় না পড়ে সবার সাথে মিলেই উপভোগ করুন ছুটির দিনগুলো। একইভাবে ছেলেদেরও উচিত শ্বশুরবাড়িতে সময় দেয়া।

সঙ্গীকেও সময় দিন
নতুন পরিবার সামাল দিতে গিয়ে প্রিয় মানুষটিকে ভুলে গেলে কিন্তু চলবে না। দুজন মিলে একান্তে কিছু সময় কাটান। নতুন অনুভূতিগুলো শেয়ার করুন। দুজন মিলে লং ড্রাইভে যেতে পারেন বা মনোরম কোনো রেস্টুরেন্টে এক বিকেলে কফি খেয়ে এলেন। মোদ্দাকথা, সবার সঙ্গে সঙ্গে একে-অপরকে সময় দেয়ার ব্যাপারটাও যাতে ঠিক থাকে।

- রিয়াদুন্নবী শেখ