বৃহস্পতিবার,২০ Jun ২০১৯
হোম / জীবনযাপন / মন্দিরে এটিকেট ও সতর্কতা
০৯/২৭/২০১৭

মন্দিরে এটিকেট ও সতর্কতা

-

দিনক্ষণ গোনা বলতে গেলে এক প্রকার শুরুই হয়ে গিয়েছে। এখন অপেক্ষা কখন পুরোহিত ভক্তিমনে চন্ডি থেকে পাঠ করবেন ‘যা দেবী সর্বেভূতেসু মাতৃরূপেন সংস্থিতা, নমস্তস্যৈ নমস্তস্যৈ নমোঃ নমোঃ’। বছর ঘুরে আবার দুর্গতিনাশিনী দশভূজা দেবী দুর্গা আসছেন আমাদের মাঝে। মন্দিরে পূজা হবে এবং তার কিছু আদবকেতা আছে যা মেনে চলে সবার সঙ্গে আনন্দের সাথে পূজা উপভোগ করা যাবে।

সাধারন এটিকেট
দেবীর আগমনে এরই মধ্যে মন্দিরে মন্দিরে চলছে জোর প্রস্তুতি। প্রতিমা শিল্পীরা এখন ব্যস্ত প্রতিমার গায়ে তুলির শেষ আঁচড় এঁকে দিতে। ব্যস্ত মায়ের ভক্তরাও। ঘরদোর পরিস্কার আর নতুন পোশাক কিনতে এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন সবাই। দেবীকে স্বাগত জানাতে সবখানেই এখন সাজ-সাজ রব। মন্ডপে মন্ডপে মাটি আর খড়ের গন্ধ মিলেমিশে একাকার।

এতো গেলো পূজার কথা। কিন্তু পূজা উপলক্ষে মন্দিরে মন্দিরে হাজারো ভক্তের নিজস্ব প্রস্তুতিরও ব্যাপার আছে যার অনেকটা অংশজুড়ে থাকা চাই নিয়ম-নীতি মেনে চলা। এক্ষেত্রে খুব সাধারণ এবং স্বাভাবিক নিয়ম মানলেই কিন্তু সব ঝামেলা মিটে যাচ্ছে। এই যেমন-

মন্দিরে প্রবেশের পূর্বে অবশ্যই পবিত্র হতে হবে।

মন্দিরে জুতা-স্যান্ডেল নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না।

প্রসাদ গ্রহণের সময় হাজারো মানুষের ভিড়ে অনেক সময় বিশৃঙ্খলা দেখা যায়। তাই সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে তাড়াহুড়ো না করে প্রসাদ নিন।

মন্দিরের কার্যক্রম পরিচালনার দায়িত্বে নিয়োজিত স্বেচ্ছাসেবক হতে শুরু করে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, সবার নির্দেশ মেনে চলুন এবং পর্যাপ্ত সহযোগিতা করুন।

মন্দির প্রাঙ্গনে বা আশে-পাশের এলাকা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। যেখানে সেখানে ময়লা, খাবার প্যাকেট ইত্যাদি না ফেলে ডাস্টবিন ব্যবহার করুন। আপনার সামান্য দায়িত্বহীন কাজ আরেকজনের সমস্যার কারণ হতে পারে- এটা মাথায় রাখুন।

মন্দিরগামী ভক্তদের একটা বিরাট অংশ বৃদ্ধ। বয়স্ক লোকদের সাহায্য করুন, তাদের আগে যেতে দিন। মনে রাখবেন মানুষে ভক্তি ঈশ্বর ভক্তির একটা বড় অংশ।

সতর্কতা
যেহেতু অনেক মানুষের ভিড়ে মন্দিরে যাবেন সেহেতু কিছু ব্যাপারে আগে থেকেই সতর্ক হয়ে নেয়া ভাল। সবার আগে মন্দিরে শিশুদের সাবধানে রাখুন। ভিড়ের মধ্যে হারিয়ে যাওয়ার মতো ঘটনা যাতে না হয় তার দিকে নজর দিন।

প্রদীপের আগুন থেকে যেন দুর্ঘটনা না ঘটে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এক্ষেত্রে ব্যক্তিগত ভাবেই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে এবং আশে-পাশে কী ঘটছে তা দেখে নিতে হবে। বড় উৎসবে দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা বেশি থাকে ফলে তা এড়াতে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকুন।

- মুশফিকুর রাহমান