রবিবার,২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭
হোম / অন্দর-বাগান / যেসব গাছ মশা তাড়ায়
০৯/০৪/২০১৭

যেসব গাছ মশা তাড়ায়

-

বাংলাদেশে চিকুনগুনিয়া রোগ প্রায় মহামারী আকার ধারণ করছে। এতে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। এতদিনে মোটামুটি সবার জানা যে চিকুনগুনিয়া এক ধরনের ভাইরাস জ্বর, যা এডিস মশার মাধ্যমে ছড়ায়। বর্ষাকাল হওয়ায় চিকুনগুনিয়া ছাড়াও দেশে এই মুহূর্তে ডেঙ্গুর উপদ্রবও বেড়েছে। মশাবাহিত রোগ দমনে সরকারী উদ্যোগ প্রয়োজন হলেও বাসায় মশার উপদ্রব কমাতে পরিশ্রম করতে হবে নিজেদেরই। এক্ষেত্রে রাসায়নিক স্প্রের ব্যবহার কমিয়ে বাসায় লাগাতে পারেন বিভিন্ন মশা তাড়ানো গাছপালা।

পুদিনা
সবচেয়ে কটুগন্ধের ঔষধি হিসেবে পরিচিত পুদিনাপাতা অসাধারণ এক প্রাকৃতিক মশা-প্রতিরোধক। গবেষণায় দেখা গেছে পুদিনা পাতার মাঝে খুঁজে পাওয়া তেল মশার সুরক্ষায় সর্বোচ্চ মাত্রা প্রদান করে ১০০ ভাগ পর্যন্ত। পুদিনা যেহেতু বিভিন্ন ধরনের খাবার ও ড্রিঙ্কসে ব্যবহার করা হয়, তাই বারান্দায় বা রান্নাঘরে এমনিতেই কয়েকটি গাছ লাগিয়ে রাখতে পারেন। পুদিনার পাতাকে কার্যকর করতে তা ছেঁড়া বা ভাঙার প্রয়োজন নেই। মশা দূরে রাখতে কয়েকটি পাতা ত্বকে লাগিয়ে নিতে পারেন।

রসুন
বাঙালি রান্নায় রসুন খুবই জরুরি। তাই বাসায় রসুন গাছ লাগালে একসঙ্গে দুই কাজ হয়ে যাবে। অন্য যে কোনো গাছের গোঁড়ায় কয়েকটি রসুন গাছ লাগিয়ে দিন, এর গন্ধ মশা তাড়াতে সাহায্য করবে। মনে রাখতে হবে যে শুধু রসুন ছড়িয়ে দিলে বা রসুনজাতীয় খাবার খেলে এটি কাজ করবে না।

গাঁদাফুল
গাঁদাফুলের গাছ ধারণ করে পাইরেথ্রাম, যা পোকামাকড় দমনকারী অনেক ঔষধেই ব্যবহৃত একটি যৌগ। বাসার মূল দরজার সামনে বা জানালার কাছে গাঁদাফুলের গাছ লাগালে এরা খুব সহজেই মশা ঘরে ঢুকতে বাধা দেয়।

ল্যাভেন্ডার
ল্যাভেন্ডারের সুবাস ও সৌন্দর্য পছন্দ নয় এমন মানুষ খুব কমই আছে। এই গাছ মশা আটকে রাখতেও সাহায্য করে। ল্যাভেন্ডারের সুগন্ধি মশার কাছে অপছন্দের আর তাই এই গাছটি বাগানে বা ঘরের দরজায় টবে লাগিয়ে নিলে মশার উপদ্রব কমে যায়। ল্যাভেন্ডার তেল, ল্যাভেন্ডার স্প্রে-ও মশা তাড়াতে সাহায্য করে।

মেন্থল
পেপারমিন্ট বা মেন্থলের তাজা সুগন্ধ মশার ওষুধের কেমিকেলের গন্ধের চেয়ে অনেক ভালো, মশা তাড়ানোর প্রাকৃতিক কীটনাশক হিসেবেও এটি ভালো কাজ করে। বিশেষজ্ঞরা আবিষ্কার করেছেন যে, শরীরের খোলা জায়গায় প্রয়োগ করলে মেন্থল বা মেন্থল লাগিয়ে নিলে তা মশার কামড় থেকে বাঁচায়। মেন্থল তেল ও পানির মিশ্রণ মশাপ্রবণ জায়গায় ছিটিয়ে দিলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তার ফল পাওয়া যায়। তবে মেন্থল ছিঁড়ে গায়ে লাগানোর সময় তেলটুকু ফেলে দিলে কাজ হবে না।

সাইট্রোনেলা
সাইট্রোনেলা পশ্চিমের দেশগুলোতে মশা-গাছ নামে পরিচিত। এই উদ্ভিদটি আপনার বাগানের এক কোণায় লাগিয়ে ফেলতে পারেন মশা দমনে। গাছটির ডালপালার মধ্যে সাইট্রোনেলার সুগন্ধ বহন করে, যা মশাকে মেরে ফেলতে সাহায্য করে। সাইট্রোনেলা গাছের পাতা ছিঁড়ে ত্বকে ঘষলে তার অসাধারণ সুবাসটি বুঝা যায়। তাই ঘরে মশা এলে স্প্রে না করে কিছু পাতা ছিঁড়ে গায়ে লাগিয়ে নিলে আর কোনো চিন্তা থাকে না।

বাংলাদেশি আবহাওয়ার জন্য সাইট্রোনেলা খুবই কার্যকর। কেননা এরা খুব গরমেও টিকে থাকতে পারে।

ক্যাটনিপ
ক্যাটনিপ প্রাকৃতিক পোকা-মাকড় দমনের জন্য সেরা গাছ হিসেবে পরিচিত। এতে নেপেটাল্যাকটোন নামক একটি প্রাকৃতিক রাসায়নিক উপাদান থাকে, যা খুব পরিচিত একটি দরকারী পোকা প্রতিরোধী। এমনকি এক গবেষণায় দেখা গেছে যে ক্যাটনিপ গাছ মশার ঔষধ ডিইইটি থেকেও ১০গুণ বেশি কার্যকর। পুদিনাজাতীয় এ-গাছটির সাধারণ সুবাসই যথেষ্ট মশা তাড়াতে, তবু সবচেয়ে ভালো সুরক্ষা পাওয়ার জন্য অনেকে গাছের পাতা ভেঙে শরীরে লাগিয়ে নেন।

ক্যাটনিপ গাছটি পোকা দমন করলেও বিড়ালকে আকর্ষণ করে, তাই বিড়াল পছন্দের না হলে ও বাসার আশপাশে বিড়াল থাকলে এই গাছ না লাগানোই ভালো।

- নাজমুন নাহার