রবিবার,২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭
হোম / স্বাস্থ্য-ফিটনেস / সাইকেল চালান, সুস্থ থাকুন
০৮/১৭/২০১৭

সাইকেল চালান, সুস্থ থাকুন

-

‘দ্বিচক্রযান’ বা সাইকেলের সঙ্গে আমরা সবাই পরিচিত। পরিবেশ উপযোগী বাহন হিসেবে সাইকেলের জুড়ি নেই। কিন্তু আমাদের অনেকেরই সাইকেল চালানোর স্বাস্থ্যগত উপকারিতা সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান নেই।

শরীর ভালো রাখতে খাওয়া-দাওয়া যেমন জরুরি, ঠিক ততটাই জরুরি নিয়মিত ব্যায়াম করা। ফিট এবং হেলদি থাকার জন্য গোসল, খাওয়া, ঘুমের মতোই ব্যায়ামকেও রোজকার জীবনের অংশ করতে হবে। প্রতিদিন হয়তো ব্যায়াম করতে ভালো নাও লাগতে পারে। ভারি ব্যায়াম হিসেবে বেছে নিতে পারেন সাইক্লিং। অন্য যে কোনো ব্যায়ামের চেয়ে সাইক্লিং অনেক বেশি এনার্জেটিক এক্সারসাইজ। সাইকেল চালালে পুরো শরীরের ব্যায়াম হয়। হাত থেকে শুরু করে পা, কাঁধ ও শরীরের বাকি অংশ একটি নির্দিষ্ট রিদমে থাকে।

হৃদয়রোগ প্রতিকারে ভূমিকা
হৃদয়রোগ প্রতিকারে এক শ্রেষ্ঠ উপায় হচ্ছে সাইকেল চালানো। বিশ্বে যারা প্রতিনিয়ত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান, তাদের অর্ধেকের বেশি হৃদরোগী। হৃদরোগীদের জন্য রক্তের স্বাভাবিক প্রবাহ খুবই জরুরি। সাইকেল চালানোর মাধ্যমে শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ বেড়ে যায়। ফলে হার্ট ভালো থাকে। সুস্থ মানুষ নিয়মিত সাইকেল চালালে যেমন তাদের হৃদরোগে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা থাকে না, তেমনি যারা হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছেন, তাদের জন্য পরিমিত সাইকেল চালানো ভালো।

ওজন কমাতে
নিয়মিত সাইকেল চালালে ওজন কমে। সাইকেল চালালে বেশি পরিমানে ক্যালোরি বার্ন হয় এবং মেটাবলিজম বা বিপাকের হার বৃদ্ধি পায়, যার ফলে ওজন কমে যায় এবং নিয়ন্ত্রণে থাকে।

বাড়তি ক্যালোরি কমাতে
সাইক্লিং আপনার বাড়তি ক্যালোরি কমাতে অত্যন্ত সহায়ক হবে যদি আপনি সাধারণ গতির চেয়ে একটু দ্রুত গতিতে সাইকেল চালান। এতে আপনি ঘেমেও যাবেন যা শরীর থেকে ক্ষতিকারক পদার্থ বের করে দিতে সাহায্য করবে।

আয়ুষ্কাল বাড়াতে
নিয়মিত সাইক্লিং করলে আপনার শরীরের রোগ সংক্রমণের হার কমে যাবে ও আয়ু বাড়বে। তাই অধিক আয়ু উপভোগ করার জন্য সাইকেল চালানো শুরু করুন।

ভালো ঘুম
সুস্থ থাকার জন্য ভালো ঘুম খুব জরুরি। সাইকেল চালালে শরীরের যথেষ্ট পরিশ্রম হয়, তাই ঘুম ভালো হয়। যাদের ঘুমের সমস্যা আছে তারা এর হাত থেকে পরিত্রাণ পেতে নিয়মিত সাইকেল চালাতে পারেন।

স্মৃতিশক্তি বাড়াতে
এক গবেষণায় দেখা গেছে নিয়মিত সাইকেল চালালে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়। সাইকেল চালালে মস্তিষ্কে নতুন কোষ তৈরি হয়। যার ফলে যে কোনো জিনিস ভালো মনে থাকে। সাধারণত ৩০ বছরের পর থেকেই স্মৃতিশক্তি ধীরে ধীরে কমতে থাকে। তাই স্মৃতিশক্তি শার্প রাখতে নিয়মিত সাইকেল চালান।

কোলেস্টেরল কমাতে
সাইকেল চালালে রক্তে ঐউখ বা ভালো কোলেস্ট্রেরলের মাত্রা বেড়ে যায়, পাশাপাশি খউখ বা খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমে রক্তে কোলেস্ট্রেরলের মাত্রা স্বাভাবিক থাকে।

ডায়াবেটিস কমাতে
গবেষণায় পাওয়া গেছে, ব্যায়াম করলে ডায়াবেটিস মেলাইটিসের হার কমে। যাদের ডায়াবেটিস মেলাইটিস আছে তারা নিয়মিত ব্যায়াম করলে রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রণে থাকে এবং টাইপ ২ ডায়াবেটিস মেলাইটিসের সূত্রপাতকে প্রতিহত করে।

মাংসপেশি গঠনে
সাইক্লিং হলো সাঁতারের পর সবচেয়ে ভালো ব্যায়ামের একটি। মাংসপেশির গঠনে চমৎকার কাজ করে সাইক্লিং। সাঁতারের মতোই সারা শরীরের ব্যায়াম হয় সাইক্লিং করলে, বিশেষত শরীরের নিচের অংশের মাংসপেশি যেমন পা, হাঁটু, উরু ইত্যাদি অংশের।

মানসিক স্বাস্থ্য
সাইকেল চালানোর ফলে পুরো শরীরের ব্যায়াম হয়, যার ফলে মস্তিস্কে অক্সিজেন সরবরাহ বাড়ে। নিয়মিত সাইক্লিং শরীরের পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতির জন্য তাই যথেষ্ট সহায়ক। নিয়মিত সাইক্লিং করলে ডিপ্রেশন, স্ট্রেস ও অ্যাংজাইটি কমে।

- মুশফিকুর রহমান
ছবিঃ আকিব আবদুল্লাহ