রবিবার,২০ অগাস্ট ২০১৭
হোম / বিনোদন / ২০১৬ অস্কারের নারীবাদী মুহূর্তগুলো
০৩/১৬/২০১৬

২০১৬ অস্কারের নারীবাদী মুহূর্তগুলো

- কাজী হক

হলিউডের সিংহভাগ অভিনেত্রী পর্দায় যতোই পুরুষদের সমকক্ষ রূপ ধারণ করুন না কেন, বাস্তবে তারাও পৃথিবীর অন্য সব সাধারণ নারীদের মতো বৈষম্যের শিকার হয়ে আসছেন। শেষপর্যন্ত গতবছরের শেষ দিকে হলিউডের নারী ও পুরুষ শিল্পী-কলাকুশলীদের মধ্যে পারিশ্রমিকসহ বিভিন্ন ধরনের বৈষম্য নিয়ে সোচ্চার হতে শুরু করেন রিজ উইদারস্পুন, জেনিফার লরেন্স, এমা ওয়াটসনদের মতো প্রভাবশালী নারী শিল্পীরাও।

এ বছর অস্কারের মূল বিতর্ক ছিল অভিনয়ের মূল পুরস্কারগুলোর জন্য মনোনীত প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে কৃষ্ণাঙ্গ কোনো অভিনেতা-অভিনেত্রী না থাকায়। তবে পুরো অনুষ্ঠানে বর্ণবাদ এবং আদিবাসীদের উপর নিপীড়নসহ অন্যান্য বৈষম্য নিয়ে যেমন প্রচুর কথাবার্তা ও কৌতুক ছিল, তেমনি নারীদের কৃতিত্ব ও সাফল্যে গৌরবোজ্জ্বল নারীবাদী মুহূর্তেরও কমতি ছিল না। এমন কিছু মুহূর্ত নিয়েই সাজানো হয়েছে এই লেখাটি।

ধর্ষণ ভিক্টিমদের সঙ্গে নিয়ে লেডি গাগার পারফরমেন্স
কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ধর্ষিত হওয়া কয়েক ডজন শিক্ষার্থীকে সঙ্গে নিয়ে ‘টিল ইট হ্যাপেন্স টু ইউ’ গানটি গান লেডি গাগা। এসময় তাদের প্রত্যেকের হাতে ধরা প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল “নট ইওর ফল্ট” যার অর্থ ধর্ষণের ঘটনা ঘটার জন্য ধর্ষিতরা দায়ী নয়। ক্যাম্পাসে ধর্ষণের শিকার শিক্ষার্থীদের নিয়ে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র ‘দি হান্টিং গ্রাউন্ড’র থিম সং হিসেবে ব্যবহৃত এ গানটির আবেগঘন ও শক্তিশালী পারফরমেন্সের শেষে অনুষ্ঠানের কোনো দর্শকই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি।

অনার কিলিং নিয়ে তৈরি ছবির জন্য শারমিন ওবায়েদ-চিনয়ের অস্কারজয়
পরিবারের মর্যাদা রক্ষার ছুঁতোয় পরিবারের সদস্যদের হাতেই খুন হওয়া বা ‘অনার কিলিং’ থেকে ভাগ্যজোরে বেঁচে যাওয়া এক নারীকে নিয়ে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র ‘গার্ল ইন দ্য রিভার’র জন্য শ্রেষ্ঠ স্বল্পদৈর্ঘ্য প্রামাণ্যচিত্রের পুরস্কার জিতে নেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত নির্মাতা শারমিন ওবায়েদ-চিনয়। পুরস্কার হাতে নেয়ার পর তিনি নিজের বক্তব্য শুরু করেন এভাবে, “এমনটাই ঘটে যখন সংকল্পবদ্ধ নারীরা এক হন”। বক্তব্যে তিনি আরো ঘোষণা দেন যে, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এই প্রামাণ্যচিত্রটি দেখার পরে অনার কিলিংয়ের ঘটনাকে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপরাধের সমান করে আইন করার কথা বলছেন।

‘স্পটলাইট’র শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রের অস্কার জয়
এক ক্যাথলিক চার্চের পাদ্রী কতৃক সঙ্ঘটিত যৌননিপীড়নের ঘটনা আবিষ্কার করেন বোস্টন গ্লোব’র একদল সাংবাদিক। তাদের নিয়েই নির্মিত সিনেমা ‘স্পটলাইট’র শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র এর পুরস্কার পাওয়াটি নিঃসন্দেহে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। পুরস্কার জেতার পরে তা যৌননিপীড়নের শিকারদের প্রতি উৎসর্গ করেন ছবিটির নির্মাতারা। তারা আশা করেন, এরফলে বার্তাটি পোপ ফ্রান্সিস পর্যন্ত পৌঁছাবে। পাদ্রীদের দ্বারা শিশুদের যৌননিপীড়নের ঘটনা ক্রমেই বেড়ে চলায় এটি নির্মূল করতে বেশ বেগ পেতে হচ্ছে ভ্যাটিকানকে।

গার্ল স্কাউটদের জন্য ৬৫ হাজার ডলার তহবিল সংগ্রহ
যুক্তরাষ্ট্রে মেয়েশিশু স্কাউট বা গার্ল স্কাউটদের নিজেদের বানানো ‘কুকি’ বা বিস্কুট বিক্রি করে তহবিল সংগ্রহ করা নতুন কিছু নয়। এবারের অস্কার অনুষ্ঠানে ক্যালিফোর্নিয়ার ইঙ্গেলউডের গার্ল স্কাউটরা তাদের বানানো কুকি নিয়ে নেমে পড়েছিল অতিথিদের মাঝে। তাদের কুকি বিক্রির আয় অনুষ্ঠানের শেষে গিয়ে দাঁড়ায় ৬৫ হাজার মার্কিন ডলারে! এই অর্থ তারা বিভিন্ন স্কুলের জন্য শিক্ষার উপকরণ কেনা, একটি ছবি আঁকা শেখার ক্লাস, এবং একটি শিশুপার্কে একদিন ঘুরে আসার জন্য ব্যয় করবে বলে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় জানানো হয়।

মূল অনুষ্ঠানের আগে গির্জাপাদ্রীদের দ্বারা যৌননিপীড়নের শিকারদের সঙ্গে ‘স্পটলাইট’র কলাকুশলীদেরর্যালিতে যোগ দেয়া
‘স্পটলাইট’-এ অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্র অভিনেতার পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিলেন মার্ক রাফফালো। অস্কার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান শুরুর ঠিক আগে লস অ্যাঞ্জেলেসের ক্যাথেড্রাল অব আওয়ার অব অ্যাঞ্জেলস গির্জার সামনে পাদ্রীদের দ্বারা যৌননিপীড়নের শিকারদের সঙ্গে এক র্যালিতে যোগ দেন মার্ক রাফফালোসহ ‘স্পটলাইট’র সব কলাকুশলী। মার্ক রাফফালো বলেন, ক্যাথলিক পাদ্রীদের যৌননিপীড়নের শিকার যাদের আমরা ইতোমধ্যে হারিয়েছি, এবং যারা এখানে আছেন, তাদের সবার জন্যই আমি আজ এখানে এসেছি।

উপস্থাপক ক্রিস রকের “ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার” আন্দোলনকারীদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন
কৃষ্ণাঙ্গদের অধিকার আন্দোলন ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আহবান করেন তিন কৃষ্ণাঙ্গ নারী প্যাট্রিস কালর্স, ওপাল তোমেটি ও অ্যালিশিয়া গারজা। উপস্থাপক ক্রিস রক অনুষ্ঠানের সমাপনীতে তার বিদায়ী বক্তব্য শেষ করেন এই আন্দোলনের নাম আহ্বান করে প্রতিষ্ঠাতা তিন নারীকে সম্মান জানিয়ে।