সোমবার,২৩ অক্টোবর ২০১৭
হোম / ফ্যাশন / চুলের সাজে উৎসবের আমেজ
০৬/২১/২০১৭

চুলের সাজে উৎসবের আমেজ

-

ঈদের দিনের পোশাকটির পাশাপাশি চুলের সাজটাও খুব গুরুত্বপূর্ণ। চুলটা যদি মনের মতো করে বাঁধা না হয় তবে পুরো লুকটাই যেন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। তাই ঈদের দিন চুল সাজাতে অনেকটা সময় ব্যয় করেন মেয়েরা, ব্যবহার করেন ফুল কিংবা নানারকম অ্যাকসেসরিজ। ছেলেরাও আজকাল তাদের চুলের ব্যাপারে বেশ সচেতন। চুল সাজিয়ে সবাই চান নিজের লুকে খানিকটা ভিন্নতা আনতে।

মেয়েদের চুলের সাজ
চুল মাঝারি সাইজের হলে ইচ্ছামতো স্টাইল করা যায়। ঈদের দিন পার্লারে বেশ ভিড় থাকে তাই সবার পক্ষে পার্লারে গিয়ে চুল বাঁধা সম্ভব হয় না। তাই চুলে কার্ল আনতে চাইলে চেষ্টা করুন আগের দিন রাতে চুল পেঁচিয়ে রাখার। সকালে চুল খুলে দেখবেন খুব সুন্দর একটা কোঁকড়া ভাব এসে গেছে।

ছোট চুলের সাজে বৈচিত্র্য আনতে তেমন কিছু করা যায় না এমনটাই সবার ধারণা। তবে এখন ছোট চুলকেও সাজাতে পারেন বিভিন্নভাবে। ব্যবহার করতে পারেন বিভিন্ন ধরনের স্টাইলিশ ব্যান্ড কিংবা চুলগুলো হাই-লাইট করে নিতে পারেন। কার্ল করলেও সুন্দর দেখাবে।

লম্বা চুলে বেণি করলে দেখতে দারুণ লাগে। আগে সালোয়ার-কামিজ বা শাড়ির সঙ্গে মেয়েরা বেণি করত। ইদানীং প্রায় সব রকম পোশাকের সঙ্গে মেয়েদের বেণি করতে দেখা যায়। তবে সাদামাটা বেণির জায়গায় নানা স্টাইলে বেণি করা হয় যেমনঃ ফ্রেঞ্চ বেণি, খেজুর বেণি, মারমেইড বেণি ইত্যাদি। মাথার মাঝখান থেকে কিছু চুল নিয়ে টুইস্ট করে বেণি বা পনিটেইল করে নিতে পারেন, দেখতে সুন্দর লাগবে। চাইলে খোঁপা করে তাতে জুড়ে দিতে পারেন আন্টিক কোনো পিন।

চুল খোলা রাখতে চাইলে ব্লো ড্রাই করে নিতে পারেন। রোলার স্টাইলার দিয়ে হালকা কুঁকড়ে কিংবা চুল স্পাইরালও করতে পারেন। চুলে স্টাইল করার আগে হেয়ার ক্রিম লাগিয়ে নিতে ভুলবেন না।

ছেলেদের চুলের সাজ
ঈদের মূল সাজের আগেই চুল কাটিয়ে ফেলুন। চুল কাটানোর পর তা সেট হয়ে যেতে অন্তত দুই-তিন দিন সময় লেগে যায় তাই ঈদের আগের দিন চুল কাটালে দেখা যাবে চুলের কাটিং চেহারার সঙ্গে ঠিকমতো মিলে উঠছে না। চুল কাটানোর ক্ষেত্রে নিজের চেহারার সঙ্গে ঠিকমতো মানিয়ে যায় এমন কাটিং বেছে নিন। হেয়ার ট্রিটমেন্ট করাতে চাইলে তা সেরে ফেলুন ঈদের আগেই।

লেয়ার কাটে সাধারণত চুলের পেছনের অংশে কাটছাঁট চলে। চুলের এই স্টাইলটি ছোট কিংবা বড় উভয় ধরনের চুলেই করা যায়। স্বল্পসময়ে স্টাইলিংয়ের জন্য লেয়ার বেশ প্রচলিত। লেয়ার কাটিংয়ে পেছনের দিকে চুলের শেপ কিছুটা ইংরেজি অক্ষর ‘ভি’র মতো থাকে। পেছনের চুলকে ন্যাচারাল রেখে চুলের মাথার অংশগুলোকে পাতলা করে কিছুটা ছড়িয়ে দেয়া হয়। সামনের দিকের চুলগুলোকে সোজা রেখে জেল ব্যবহার করে এলোমেলো রাখা হয়।

খুব অল্প বয়সেই বেশ খ্যাতি পাওয়া জাস্টিন বিবার-এর চুলের স্টাইলটি হল ব্যাঙ্গস। এই হেয়ার কাটিংয়ে সামনের চুলগুলো সমান রেখে স্টাইল করা হয়। ব্যাঙ্গস হেয়ার স্টাইলের বিশেষত্ব হলো চুলগুলো সামনের দিকে যেভাবে রাখতে চান সেভাবেই রাখা। আর পেছনের দিকে চুল কেমন হবে এটা আপনার পছন্দের ওপর নির্ভর করে তবে মনে করা হয় ব্যাঙ্গস হেয়ার স্টাইলে পেছনের চুল একদম ছোট না রেখে কিছুটা বড় রাখলেই বেশ ভালো মানায়।

কর্পোরেট লুকের জন্য প্রসিদ্ধ হলো কনজারভেটিভ কাট। আপনি যদি চুলকে কিছুটা ছোট রেখে স্টাইল করতে চান তবে এই কাটটি বেছে নেয়া হবে সঠিক নির্বাচন। এই কাটে সাধারণত পেছন ও সামনের দিকে চুলকে টেপার্ড করে রাখা হয়। কিন্তু সামনের অংশে চুল বেশ বড় থাকে।

স্পাইকের অনেক রকমভেদের মধ্যে চুল ছোট রেখে স্পাইক স্টাইল করার চলটাই বেশি দেখা যায়। স্পাইক স্টাইলিংয়ে চুলকে সামনে পেছনে যেভাবে খুশি রেখে একটু খাড়া করে দেয়া হয়। এমনকি সম্ভব হলে পেছনের চুলগুলো হালকা একটু খাড়া করে স্পাইকে নতুনত্ব আনা হয়। চুল ছোট হলে এটাই আপনার লুকের সঙ্গে মানিয়ে যাবে।

- রুবায়েত মহিউদ্দিন