রবিবার,২০ অগাস্ট ২০১৭
হোম / অন্দর-বাগান / কফিটেবিল যেভাবে সাজাবেন
০৩/১৬/২০১৬

কফিটেবিল যেভাবে সাজাবেন

- নুসরাত ইসলাম

মান্না দে’র গানের কফি হাউজটা থাকুক আর না থাকুক, আপনি চাইলে নিজ বাড়িতেই ছোট্টো একটি কফি খাবার জায়গা সাজিয়ে নিতে পারেন। অবসর সময়ে চেয়ারে গা এলিয়ে এক হাতে একটি বই আর আরেক হাতের কফিতে মন দেয়ার জন্য হোক কিংবা কফির গন্ধে তুখোড় আড্ডা জমাতেই হোক না কেন, সবার আগে প্রয়োজন একটি উপযুক্ত কফি টেবিল। দিনবদলের সাথে সাথে মানুষ আরো সৌখিন হয়ে উঠছে - এক কফি টেবিল সাজানোর বিভিন্ন ধরন প্রচলিত হয়েছে এখন। কফিপ্রেমী মানুষ ভিন্ন ভিন্ন উপায়ে তাদের কফি টেবিল গুছিয়ে নিয়ে ঘরসজ্জাকে অন্য পর্যায়ে নিয়ে যাচ্ছে। নীচে দেয়া হলো আপনার কফি টেবিলটিকে আরো আকর্ষণীয় করে তোলার কিছু উপায় :

* দুরকম কফি টেবিল কিনতে পারেন এক্ষেত্রে। এখানে থাকবে কফির জার, দুটি কফি-স্টাইল্ড মগ, কফি ম্যাট, সুগার ইত্যাদি।
* আপনার লিভিংরুমে রাখতে পারেন গ্লাস টপ কফি টেবিল। এ ক্ষেত্রে টেবিলের উপরিভাগ হবে কাচের। চৌকো বা ডিম্বাকৃতি, আপনার পছন্দমতো টেবিল বেছে নিন। তবে কাচের টেবিলগুলোর পায়া মূলত কাঠের হয়। আপনি চাইলে আয়রনের পায়াও লাগাতে পারেন।
* ঘরের অন্য লুক দিতে চাইলে রাখতে পারেন কনটেম্পরারি কফি টেবিল। এ ধরনের টেবিল বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে। বন্ধুবান্ধবদের নিয়ে এই টেবিলে বসে ঝড়় তুলতে পারেন কফি কাপে। তেমনি বসার জায়গা হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন এই টেবিলকে ঘিরে। এই ধরনের টেবিলে একাধিক ড্রয়ার থাকে। ফলে কোনোও কিছু রাখার জন্যও এটি ব্যবহার করা যেতে পারে।
* যদি আপনার ঘরটি বেশ বড় হয়, তাহলে কিনে নিতে পারেন দুটি ছোটো কফি টেবিল। সেক্ষেত্রে একটি টেবিলে যাবতীয় শিল্পকর্ম অথবা বইগুলো রেখে দিতে পারেন, আরেকটি শুধু কফির সামগ্রী রাখার জন্য।
* কফি টেবিল সাজানোর একটি প্রধান এবং সবচেয়ে প্রচলিত উপকরণ হলো বই। কফি টেবিল বই ছাড়া অসম্পূর্ণ। কেননা আড্ডা ব্যতীত কফি খাওয়ার আরেক উদ্দেশ্য হলো চাঙা মনে নিরিবিলি বইপড়া। তবে হ্যাঁ, কফি টেবিলে আপনি নিশ্চয়ই আপনার কালেকশনের সব বই গাদা করে রাখবেন না। যে বইটি পড়ছেন এবং যেটি পড়ার ইচ্ছা এর পরে তা সুন্দরভাবে একটি সাজিয়ে রাখুন। মনে রাখবেন, কফি টেবিলে রাখা বইগুলো আপনার ব্যক্তিগত রুচির পরিচায়ক। বইয়ের পাশাপাশি কয়েকটি চলতি ম্যাগাজিন রাখুন, যেন অতিথিরা গল্প করার সময় হালকা কিছু পড়তে পারে।
* ইদানীং বাজারে হরেক রকমের মোমবাতি ও তা ধরে রাখার মোমদানি খুব চলছে। কফি টেবিলের জন্য হালকা ও রঙিন কিছু মোম কিনে একটি ছোটো দানিতে বসিয়ে দিন। মোমবাতি শুধু কফি টেবিলকে স্নিগ্ধ আলো দিয়ে আলোকিতই করে না, এর আলোয় সন্ধ্যাগুলো উজ্জ্বল ও প্রদীপ্ত হয়ে ওঠে। মোমদানির পাশে একটি ট্রে রাখা যায়, যেখানে সাজিয়ে রাখতে পারেন কিছু তাজা ফুলের পাপড়ি অথবা কয়েকটি মাটির শিল্পকর্ম।
* কফি টেবিলটি যে ঘরে আছে তার ও টেবিলের আকার অনুযায়ী ফুলদানি রাখুন একটি। সম্ভব হলে একদিন পর পর নতুন সুগন্ধি ও তাজা ফুল সাজিয়ে রাখুন এতে, আর তা না পারলে আর্টিফিশিয়াল ফুল সাজিয়ে রাখুন।
* যদি আপনার পেইন্টিং-এর শখ থাকে তাহলে একটি বক্স রাখতে পারেন যাতে আপনার যাবতীয় রং-তুলি থাকবে। লেখালেখির অভ্যাস থাকলে একটি কলমদানি ও তার সাথে কিছু সাদা কাগজ রেখে দিন। নিজের বানানো কোনো হস্তকর্ম বা পছন্দের জুয়েলারিও রাখতে পারেন কফি টেবিলে।
* কফি টেবিলের রঙের সাথে মিলিয়ে যদি টেবিল ক্লথ খুঁজে পান, তবে ভাবনা চিন্তা না করে সাথে সাথে কিনে ফেলুন। এটি আপনার পছন্দের কফি খাওয়ার জায়গার জন্য একটি অত্যাবশ্যকীয় উপাদান কেননা এখানে অহরহ কফির ছিটে পড়ার সম্ভাবনা থাকে যা টেবিলকে ধীরে ধীরে নষ্ট করে ফেলবে।
* পছন্দনীয় ড্রিঙ্কস : আপনি চাইলে একটি বড়সড় ট্রেতে কফি টেবিলের ওপর রাখতে পারেন সতেজতাদায়ক কিছু পানীয়। ট্রে টিতে পছন্দের এক জগ পানীয় (যেমন লেবু বা যেকোনো ফলের জুস), সাথে দুটি গ্লাস রাখুন এবং একটি বরফের গামলা রেখে দিন।
* যদি টেবিল ছোটো কিনতে হয় তাহলে তা চারকোণা টেবিল হলেই ভালো। টেবিলটি শুধু একটি গোল ট্রে দিয়ে সাজানো এবং তাতে আকর্ষণীয় কিছু রাখুন।