বুধবার,২৩ অগাস্ট ২০১৭
হোম / স্বাস্থ্য-ফিটনেস / স্ট্যামিনা বাড়াতে করণীয়
০৩/১৬/২০১৬

স্ট্যামিনা বাড়াতে করণীয়

- রিদোয়ান

বলা হয়ে থাকে মানুষের পরিচয় তার কর্মে। এক জীবনে তাই কাজ করেই চলি আমরা। তবে অতিরিক্ত কাজের চাপে অনেকসময় শারীরিক ও মানসিকভাবে ক্লান্ত হয়ে পড়াটাও স্বাভাবিক বৈকি। সবক্ষেত্রে কাজের পরিমাণ কমানো সম্ভব নয় বলে নিজের ফিটনেস এবং মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি গুরুত্ব দেয়া উচিত। শরীরের স্ট্যামিনা ও মনোবল বৃদ্ধিতে সহায়ক এমন কিছু পদক্ষেপ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা থাকছে লেখার পরবর্তী অংশে।

সবার আগে মেডিকেল চেকআপ করুন
স্ট্যামিনা বাড়ানোর জন্য কার্যক্রম শুরু করার আগে ভালো করে মেডিকেল চেকআপ করিয়ে নিন। এর মাধ্যমে নিজের সামগ্রিক শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে ধারণা পাবেন এবং সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবেন। এর পাশাপাশি রোগ-বালাই বা মানসিক অবসাদ থেকেও বের হয়ে আসতে পারবেন।

পরিমিত খাদ্য গ্রহণ করুন
ফিটনেস বাড়ানোর জন্য অনেকেই শারীরিক কসরত করাকেই বেশি প্রাধান্য দিয়ে থাকেন। তবে সবার আগে পরিমিত ও সুষম পুষ্টিসম্পন্ন খাদ্য গ্রহণের অভ্যাস করাটা জরুরি। খাদ্যতালিকায় কম চর্বিযুক্ত খাবার, ফল ও শাকসবজি এবং চর্বিহীন মাংস যোগ করুন। এ-ধরনের খাদ্যাভ্যাস আপনার শারীরিক ও মানসিক শক্তিমত্তা বৃদ্ধিতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে।

পছন্দের খেলা বেছে নিন
স্ট্যামিনা বাড়ানোর ক্ষেত্রে নিয়মিত খেলাধুলা করাটা বেশ উপকারী। ক্রিকেট, ফুটবল বা বাস্কেটবলের মতো খেলা আপনার হৃদযন্ত্রকে সুরক্ষিত রাখবে এবং শারীরিক শক্তিও বৃদ্ধি করবে। তবে একবারে বেশি পরিশ্রম করা আরম্ভ না করে ধীরে ধীরে পরিশ্রমের মাত্রা বাড়ানো উচিত।

নিয়মিত ব্যায়াম করুন
স্ট্যামিনা বাড়ানোর জন্য নিয়মিত ব্যায়ামের কোনো বিকল্প নেই। নিয়মিত শারীরিক কসরত ধীরে ধীরে আপনার শরীরকে সুগঠিত করবে এবং ক্লান্তিভাব কমাতে সাহায্য করবে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো ফল পেতে ব্যায়ামের সময়ের কাজগুলোকে কয়েকটি ভাগে ভাগ করে নিন। তারপর অল্প কয়েক সেকেন্ড বিরতি নিয়ে একটির পর অন্য ব্যায়ামটি শুরু করুন।

নিয়মিত খাদ্য গ্রহণ ও প্রচুর পানি পান করুন
শরীরে শক্তির যোগানের জন্য সারাদিনে বেশ কয়েকবার খাদ্য গ্রহণ করা উচিত। তবে সকালের নাস্তা ছাড়া প্রতিবার সীমিত পরিমাণ খাদ্য গ্রহণ করতে হবে। সকালের নাস্তায় বেশি পরিমাণে পুষ্টিসম্পন্ন খাদ্য গ্রহণের অভ্যাস করুন। এর সঙ্গে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন।

শরীরে সোডিয়াম বা লবণের মাত্রা ঠিক রাখুন
গরমের দিনে অতিরিক্ত ঘামের ফলে শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দেয়। একই সঙ্গে শরীর থেকে প্রচুর পরিমাণ লবণ নিঃসৃত হয়। এর ফলে আপনি ক্লান্ত বোধ করতে পারেন। এজন্য সোডিয়ামযুক্ত খাদ্য গ্রহণ করা উচিত। তবে উচ্চরক্তচাপজনিত সমস্যা থাকলে তা এড়িয়ে চলাই ভালো।

শর্করাজাতীয় খাদ্য বেশি গ্রহণ করুন
শর্করা বা কার্বোহাইড্রেট থেকে উৎপন্ন স্টার্চ ও সুগার শরীরের পেশির জন্য প্রয়োজনীয় শক্তির যোগান দেয়। তাই খাদ্যশস্য, রুটি, ফল ও শাক-সবজির মতো কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাদ্য গ্রহণের পরিমাণ বাড়িয়ে দিন।

নিজের সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে সতর্ক থাকুন
স্ট্যামিনা বাড়ানোর জন্য কার্যসূচি করার আগে খেয়াল রাখুন তা আপনার দ্বারা আদৌ সম্ভব কিনা। আপনার শরীর যদি মেদবহুল হয় তবে আগে নির্দিষ্ট পরিমাণ ওজন কমিয়ে তারপর অনুশীলন শুরু করুন। একই সঙ্গে যাবতীয় চোট থেকে দূরে থাকতে আগে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

বদঅভ্যাস দূর করুন
ধূমপান, অতিরিক্ত মদ্যপান কিংবা ফাস্টফুড খাওয়ার অভ্যাস আপনার স্ট্যামিনা কমিয়ে দেয়। তাই এ-ধরনের বদঅভ্যাস পরিহার করলে কার্যতই আপনার শারীরিক অবস্থার উন্নতি ঘটবে। এক্ষেত্রে অনেক দিনের অভ্যাস থাকলে আস্তে আস্তে তা দূর করার চেষ্টা করুন। নির্দিষ্ট রুটিন ও লক্ষ্য নির্ধারণ করে নিন, যা আপনাকে কাক্সিক্ষত সফলতার দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।

শরীরের সঠিক ওজন বজায় রাখুন
নিজের উচ্চতা ও বয়সের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ ওজন কত তা জেনে নিন। ওজন বেশি হলে যেমন নানা শারীরিক সমস্যা দেখা দেয় তেমনি কম হলেও সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। তাই সবসময় সঠিক ওজন বজায় রাখার চেষ্টা করুন।

পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন
পর্যাপ্ত বিশ্রামের দিকে গুরুত্ব দিন। পর্যাপ্ত ঘুম ও পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানো আপনার শারীরিক ও মানসিক সামগ্রিক অবস্থার উন্নতি সাধন করবে এবং স্ট্যামিনাও বাড়াবে।